লাবসার দিলারা বাড়ি বিক্রি করে ভাড়ায় ছিলেন!


প্রকাশিত : এপ্রিল ১, ২০১৯ ||

নিজস্ব প্রতিনিধি: আমার স্ত্রী কামরুন্নাহার লাবসা মৌজার ৩৩ শতকের মধ্যে ৬ শতক জমি ৫৩৮৩ নম্বর রেজিস্ট্রি দলিলমূলে ক্রয় করেন দিলারা আহমেদের কাছে থেকে। একই দাগে দিলারার বোন রেহানার কাছ থেকে আমি ক্রয় করি আরও ৫ শতক জমি।
রোববার সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলন করে এ কথা বলেন, শহরের পলাশপোলের আসাুদজ্জামানের পুত্র শেখ মনজুরুজ্জামান। তিনি বলেন ‘ আমার স্ত্রীর ক্রয়কৃত জমিতে দিলারার বসত বাড়ি থাকায় তিনি ভাড়াটিয়া হিসেবে বাস কতে থাকেন। বেশ কয়েক বছর নিয়মিত ভাড়াও দিয়েছেন তিনি। কিন্তু হঠাৎ ভাড়া দেওয়া বন্ধ করায় আমার স্ত্রী ভাড়াটিয়া উচ্ছেদের জন্য আদালতে দিলারার বিরুদ্ধে মামলা করেন। এ মামলায় গত ২৩.০৮.১১ তারিখে দিলারার বিরুদ্ধে ডিক্রি হয়। কিন্তু দিলারা আহমেদ হাইকোর্টে রিভিশন মামলা করেন। ২০১৩ সালের ২৯ এপ্রিল সে মামলা নামঞ্জুর হয়ে যায়’।
সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরও বলেন পরবর্তীতে উচ্ছেদের মামলায় আদালত দিলারাকে বাড়ির মালামাল আমার স্ত্রীকে বুঝিয়ে দেওয়ার নির্দেশ দিলেও দিলারা আহমেদ তা অমান্য করেন। পরে আদালতের নির্দেশে মাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে পুলিশ দিলারাকে উচ্ছেদ করে আমার স্ত্রী কামরুননাহারকে দখল বুঝিয়ে দেওয়া হয়।
সংবাদ সম্মেলনে শেখ মনজুরুজ্জামান আরও বলেন, এসব প্রক্রিয়ার সাথে বিন্দুমাত্র জালিয়াতির সম্পর্ক নেই। দিলারা আহমেদ আদালতের রায় গোপন করে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে প্রতারণা করেছেন। আদালতের নির্দেশনার সাথে আলিম নামের কারও সম্পর্ক নেই। আলিম নামে আমার কোনো ভায়রা ভাইও নেই। দিলারা আহমেদ এসব বিষয় নিয়ে মিথ্যাচার করেছেন বলে উল্লেখ করেন তিনি। সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন আবদুল মজিদ, আবু তৈয়ব পান্না ও আহমেদ মুন্সি প্রমূখ।