দেবহাটা উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ে ডুপলিকেটিং অপারেটরের বিরুদ্ধে সীমাহীন দুর্নীতির অভিযোগ


প্রকাশিত : এপ্রিল ১, ২০১৯ ||

পত্রদূত রিপোর্ট: দেবহাটা উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ে কর্মরত ডুপলিকেটিং অপারেটর শহিদুল ইসলামের বিরুদ্ধে অনিয়ম-দুর্নীতির সীমাহীন অভিযোগ তুলেছেন একই অফিসের চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারীগণ। দুর্নীতির প্রতিকার চেয়ে কর্মচারীগণ জেলা প্রশাসকের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। অভিযোগে প্রকাশ, ডুপলিকেটিং অপারেটর শহিদুল ইসলাম একই অফিসে ১৫/১৬ বছর যাবৎ কর্মরত থাকায় অন্যান্য কর্মকর্তা-কর্মচারীদের উপর ছড়ি ঘুরিয়ে প্রভাব খাটান। অফিস সুপারের সহযোগিতায় দুর্নীতির আখড়া বানিয়েছেন তার অফিসকে। প্রসেস সার্ভারদের আইনী সহায়তা খাতে ৬০ হাজার টাকা বরাদ্দ ছিল। সার্ভার বিল না দিয়ে সে টাকা আত্মসাত করেছেন তারা দু’জন। এছাড়া কর্মচারীদের পোশাক বাবদ ৩০ হাজার টাকা বরাদ্দ থাকায় সে টাকাও দেয়া হয়নি। পোশাক খাতের ৩০ হাজার টাকাও আত্মসাত করেছেন সুপার আবু জাফর ও অপারেটর শহিদুল ইসলাম। এছাড়া বিভিন্ন মালামালের ভূয়া ভাউচার দিয়ে টাকা উত্তোলন করে তা আত্মসাত করেন তারা। মিনি সুন্দরবনের টাকা ভূয়া ভাউচার দিয়ে উত্তোলন করে আত্মসাত করেছেন বলে অভিযোগে বলা হয়েছে। এসব অনিয়ম দুর্নীতির প্রতিবাদ করলে কর্মচারীদের বদলিসহ বিভিন্ন হুমকি দেয়া হচ্ছে বলে অভিযোগে প্রকাশ।
এ ব্যাপারে অফিস সুপার আবু জাফর ও অপারেটর শহিদুল ইসলামের সাথে পৃথকভাবে যোগাযোগ করার চেষ্টা করে তাদের পাওয়া যায়নি।