তালতলায় অন্ত:স্বত্ত্বা গৃহবধুকে হত্যার চেষ্টা


প্রকাশিত : এপ্রিল ২, ২০১৯ ||

মনিরুল ইসলাম মনি: যৌতুকের দাবিতে আট মাসের অন্ত:স্বত্ত্বা স্ত্রীকে মুখে বালিশ চাপা দিয়ে হত্যার চেষ্টা চালানো হয়েছে। গত শনিবার বিকেল চারটার সময় শহরতলীর তালতলা মাঠপাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। তাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
সদর উপজেলার ধুলিহর গ্রামের শফিকুল ইসলামের ছেলে হাবিবুর রহমান জানান, তার নাবালিকা বোন হাবিবাকে স্কুলে যাওয়ার পথে মোটরসাইকেলে তুলে ফুসলিয়ে নিয়ে বিয়ে করে তালতলা মাঠপাড়ার ইসলাম কারিকরের ছেলে বাহাউদ্দিন। প্রথমে এ বিয়ে তারা মেনে নেননি। বিয়ের কিছুদিন পর বাপের বাড়ি থেকে টাকা ও মোটরসাইকেল নিয়ে আসার জন্য চাপ সৃষ্টি করতো ভগ্নিপতি বাহাউদ্দিন, তার মা মমতা ও বাবা ইসলাম কারিকর। আনতে অপারগতা প্রকাশ করায় তার উপর চলতো নির্যাতন। এরই জের ধরে শনিবার বিকেল ৪টার দিকে টাকা আনতে রাজী না হওয়ায় আট মাসের অন্ত:স্বত্ত্বা হাবিবার মুখে বালিশ চাপা দিয়ে হত্যার চেষ্টা করে ভগ্নিপতি, তার বাবা ও মা। তার চিৎকালে প্রতিবেশিরা ছুটে এসে তাকে শিমুলবাড়িয়া তার খালা ফতেমার বাড়িতে রেখে আসে। সেখানে তার অবস্থার অবনতি হওয়ায় সোমবার বিকেলে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালের স্ত্রী ও গাইনি রোগ বিশেষজ্ঞ ডা. কাণিজ ফতেমা জানান, হাবিবাকে পূর্ণাঙ্গ চেক আপ না করানো পর্যন্ত শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে কিছুই বলা যাবে না।
হাবিবার শ্বশুর ইসমাইল কারিকর জানান, তাদের বিরুদ্ধে পুত্রবধূকে নির্য়াতনের অভিযোগ ঠিক নয়।