সাবেক চেয়ারম্যান আছাদুল হকের সংবাদ সম্মেলন


প্রকাশিত : এপ্রিল ১০, ২০১৯ ||

পত্রদূত ডেস্ক: আমার স্ত্রী মেহেরুননেসা ১৫ বছর আগে থেকে কুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের পাশে জেলা পরিষদ মালিকানাধীন দেড় হাজার বর্গফুট আয়তনের জমি বানিজ্যিকভাবে ডিসিআর নিয়ে আসছেন। কুলিয়া মৌজার ৫৭৫, ৫৭৬, ৫৭৭ দাগের ওই জমিতে মেহেরুননেসার লোকজন যখন কাজ করছিল তখন জেলা পরিষদ সদস্য শাহনাজ পারভিন মিলি ও তার স্বামী মোস্তাফিজুর রহমান ওই জমিতে ঢুকে কাজে বাধা দেন।
মঙ্গলবার দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলন করে এ কথা বলেন কুলিয়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের কোষাধ্যক্ষ মো. আছাদুল হক। তিনি অভিযোগ করে বলেন গত ২ এপ্রিল ডিসিআরকৃত জমিতে কাজ করার সময় শ্রমিকদের কাছে তিন লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন মিলি ও তার স্বামী মোস্তাফিজ। এই টাকা না দিলে কাজ বন্ধ করতে বলেন তারা। তিনি জানান এ খবর পাবার পরই ঘটনাস্থলে আমি পৌছানোর আগেই তারা চলে যান। তিনি আরও জানান আমি টেলিফোনে তাদের কাছে জানতে চাই আমার স্ত্রীর ডিসিআর নেওয়া জমিতে কাজ করায় আপনারা বাধা দেবেন কেনো। এ সময় মোবাইল ফোনে মিলি ও মোস্তাফিজের সাথে তার তর্ক বিতর্ক হয়। তিনি বলেন এরপর ফেসবুকে তাকে গাড়ি চাপা দিয়ে মেরে ফেলার মতো মন্তব্য করে মিলির বোনের ছেলে নাজমুস সাকিব। পরে তাকে ডেকে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুনছুর আহমেদের সামনে নিয়ে যাওয়া হলে সাকিব জানায় আমার খালা ও খালুর কথায় এমন মন্তব্য করে ভলি করেছি। সে দোষ স্বীকার করে মুচলেকা দিয়ে চলে যায়। একইভাবে তাকে নিয়ে যাওয়া হয় সাতক্ষীরা প্রেসক্লাব সভাপতি অধ্যক্ষ আবু আহমেদের কাছে। তার কাছেও সে একই মুচলেকা দিয়ে নিজের দোষ স্বীকার করে।
সংবাদ সম্মেলনে আছাদুল হক আরও বলেন গত ৬ এপ্রিল এসব ঘটনাকে কেন্দ্র করে আমার বিরুদ্ধে জেলা পরিষদ সদস্য শাহনাজ পারভিন মিলি ও তার স্বামী মোস্তাফিজুর রহমান এক সংবাদ সম্মেলন করে আপত্তিকর কথা তুলে ধরেন। তিনি এসবের প্রতিবাদ জানিয়ে ঘটনাস্থলে যেয়ে তদন্ত করার জন্য সাংবাদিকদের প্রতি আহবান জানান।