তালায় এলজিইডির নির্মিত গ্রামীন সড়কে ১০ চাকার ট্রাক: জনদুর্ভোগ চরমে


প্রকাশিত : এপ্রিল ২১, ২০১৯ ||

তালা প্রতিনিধি: তালা উপজেলার গ্রামীন সড়কগুলোতে অতিরিক্ত বোঝায় ট্রাক (১০ চাকার) প্রবেশ করাই সদ্য নির্মিত ও মেরামত করা সড়কগুলি এখনই বেহাল হতে শুরু করেছে। কোথাও কালভার্ট ভেঙে পড়েছে, কোথাও রাস্তার মাঝদিয়ে ফাঁটল দেখা দিয়েছে, কোথাও আবার রাস্তার হেজিং (দুই পার্শ্ব) এর মাটি বসে খাদে পরিণত হয়েছে। এতে এলাকার জন-সাধারণ নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি বাজারজাতসহ কোমলমতি শিক্ষার্থীদের চলাচলে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। এদিকে স্থানীয় ইউনিয়ন চেয়ারম্যান, উপজেলা প্রকৌশল অধিদপ্তর, উপজেলা প্রশাসন সকলেই বারবার নিষেধ করা সত্ত্বেও যেনো কানো বাঁধা মানছে না ভারি এ যানবহন চালকরা। কখনো রাতের শুরুতেই, কখনো মাঝরাতে, কখনো বা ভোর রাতে লোক চোখের আড়ালদিয়ে তাদের গন্তব্যে পৌছাচ্ছে তারা। এ কারণে চরমভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে উপজেলা প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) কর্তক নির্মিত বা মেরামোতকৃত গ্রামীন এ সড়কগুলি।
সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, তালা উপজেলার পাটকেলঘাটা থেকে শুরু করে মাগুরা বাজার পর্যন্ত, মাগুরা থেকে মাদ্রা, দোহার, গলাভাঙ্গা, শ্রীমন্তকাটি সদ্য নির্মিত এ রাস্তার বুক দিয়ে ফাঁটল দেখা দিয়েছে। সাম্প্রতি তালা ব্রীজ থেকে জেঠুয়া বাজার অভিমুখ সদ্য মেরামত করা রাস্তার একটি কালভার্টও ভেঙে পড়েছে ১০ চাকার ট্রাক পারাপারের সময়, এঘটনায় (চুয়াডাংগা-ট-১১-০৪১৪) ট্রাক চালকের নামে তালা থানায় ওভার লোডের একটি মামলাও হয়েছিলো। তালা প্রেসক্লাব থেকে অমলের মৎস্য ডিপু পর্যন্ত রাস্তায় ভরি যানবহন চলাচলের ফলে ছোট, বড় অনেক গর্তের সৃষ্টি হয়েছে।
এঘটানায় উপজেলা চেয়ারম্যান ঘোষ সনৎ কুমার বলেন, সম্প্রতি গ্রামীন এসব সড়কে ১০ চাকার ট্রাক চলাচলের অভিযোগে কয়েকটি ট্রাক চালকের বিরুদ্ধে প্রশাসনের সহায়তায় মামলাও দেওয়া হয়েছে। তারপরও গভীর রাতে মালের মালিক পক্ষের চাপের কারণে লোক চক্ষুর আড়াল দিয়ে বিভিন্ন একলায় অতিরিক্ত বোঝায় গাড়ী চলাচল করছে।
উপজেলা প্রকৌশলী কাজী আবু সাঈদ মো. জসীম বলেন, আমরা গ্রামীন বা উপজেলার যে সকল সড়ক নির্মান বা মেরামত করি সে সড়কে ১০ চাকার ট্রাক চলাচলের কোন বৈধতা নেই। সম্পতি আমিও এমন কিছু ঘটনা শুনেছি এবং ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি।