কয়রায় লবণাক্ত পতিত জমিতে বাদাম চাষে সফলতা


প্রকাশিত : এপ্রিল ২১, ২০১৯ ||

কয়রা (খুলনা) সংবাদদাতা: উপকূলীয় জনপদ কয়রায় লবণাক্ত জমিতে এই প্রথম বাদাম চাষ করে সফলতা দেখিয়েছে উত্তর বেদকাশির কৃষক শহিদুল ইসলাম। আর এটিকে কৃষি ক্ষেত্রে আমুল পরিবর্তনের ছোয়া বলে দেখছেন কয়রা প্রত্যন্ত এ জনপদের কৃষকরা। সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, কয়রা উপজেলার উত্তর বেদকাশী ইউনিয়নের কৃষক মো. শাহিদুল ইসলাম ১ বিঘা জমিতে বাদাম চাষ করে সফল পেয়েছে। তিনি জানান, তার এ সফলতার পিছনে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট এর সরেজমিন গবেষণা বিভাগ এমএলটি সাইট কয়রার বিশেষ অবদান রয়েছে। তাদের সার্বিক ততা¡বধানে উপকুলীয় এ এলাকায় কৃষি ক্ষেত্রে পরিবর্তনের ছোয়া লাগছে। গোপালগঞ্জ জেলায় বিএআরআই এর কৃষি গবেষণা কেন্দ্র স্থাপন ও দেশের দক্ষিন-পশ্চিমাঞ্চলের পরিবেশ-প্রতিবেশ উপযোগী গবেষণা কার্যক্রম জোরদার করনের মাধ্যমে কৃষি উন্নয়ন প্রকল্পের আর্থিক সহযোগিতায় স্থানীয় কৃষকরা বাদাম চাষের পাশাপাশি ধান, সুর্যমুখী, গমসহ কৃষি ক্ষেত্রে বিভিন্নভাবে সহযোগিতা পাচ্ছে। তাদের এ ধরনের মহতী উদ্যোগে সাধুবাদ জানিয়েছে কয়রা সাধারন মানুষ। কৃষি গবেষনা সুত্রে জানা গেছে, বাদাম একটি অর্থকরী ফসল। এটি অধিকাংশ মানুষের মুখরোচক খাবার এ ছাড়াও এটি একটি উৎকৃষ্ট ভোজ্য তেল বীজ। বীজে ৪৮-৫০% তেল ও ২২-২৯% আমিষ রয়েছে। এ জন্য প্রত্যেক মানুষকে মাদাম খাওয়ার প্রয়োজনীয়তা রয়েছে।
সরেজমিন গবেষনা বিভাগের এমএলটি সাইটের বৈজ্ঞানিক সহকারী মো. জাহিদ হাসান বলেন, বাদাম চাষের জন্য বেলে দোআঁশ মাটির প্রয়োজন সেই হিসাবে উত্তর বেদকাশী ইউনিয়নকে বেছে নেই এবং এই বছর বাদামের ৩টি জাত বপন কর হয়েছে। এর ভিতর লবনাক্ত এলাকায় যে জাতটি বেশি ফলন হবে পরবর্তীতে সেটি বেশি করে বীজ দেওয়ার জন্য উর্ধতন কর্তৃপক্ষের নিকট জোর দাবি জানানো হয়েছে।
সরেজমিন গবেষণা বিভাগ খুলনার প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ও প্রকল্পের উপ-পরিচালক ড. মো. হারুনর রশিদ বলেন, বর্তমান সরকার কৃষি বান্ধব সরকার, তারই লক্ষ্যে কয়রায় অনেক জমি আমন ধান কাটার পর পড়ে থাকে বিধায় উত্তর বেদকাশীতে গবেষনা করা হচ্ছে বাদামের বিভিন্ন জাতের উপযোগিতা যাচাই করার জন্য। এ ছাড়াও চলমান প্রকল্পের মাধ্যমে গম, সরিষা, তরমুজ, ভুট্রা ও সুর্যমুখির বিভিন্ন জাতের উপযোগীতা যাচাই করে গবেষণা করা হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, চলতি মাসে ওল ও মুখি কচুর বিভিন্ন জাতের উপযোগিতা যাচাইয়ের জন্য রোপন কাজ অব্যাহত রয়েছে।