অবশেষে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া সেই টাকা ফেরত পেল মোমিন !


প্রকাশিত : এপ্রিল ২৭, ২০১৯ ||

পত্রদূত রিপোর্ট: সাতক্ষীরার কলারোয়ায় ৫ম শ্রেণির স্কুল ছাত্র আব্দুল মোমিন প্রধানমন্ত্রীর হাতে থেকে পাওয়া সেই চেকের টাকা অবশেষে গণমাধ্যমের সহযোগিতায় ফেরত পেয়েছে। দৈনিক পত্রদূতসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবরটি মঙ্গলবার ছড়িয়ে পড়ে।
প্রকাশিত খবরটি দুদকের নজরে আসে। খুলনা থেকে দুদকের একটি টিম বুধবার দুপুরে ঘটনাস্থল কলারোয়া উপজেলার কোমরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সরেজমিন গিয়ে ঘটনার সত্যতা পান। এ সময় তাদের সাথে ছিলেন কলারোয়া উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোজাফফর হোসেনসহ দুইজন সহকারী শিক্ষা অফিসার।
স্কুল ছাত্র আব্দুল মোমিনের পিতা কলারোয়া উপজেলার সোনাবাড়িয়া গ্রামের আনছার আলী জানান, ‘বুধবার দুপুর একটার দিকে খুলনা থেকে দুদকের ৭ সদস্যের একটি টিম স্কুলে আসেন। তারা আমাকে সেখানে ডেকে পাঠান। আমি সেখানে গিয়ে ঘটনাটি তাদেরকে খুলে বলি।এরই মধ্যে দুদকের টিম আসার খবরে সেখানে এলাকার বহু মানুষ জড়ো হয়। আমি জেলা প্রশাসকের কাছে যে অভিযোগ করেছি তার সত্যতা পাওয়ায় দুদক কর্মকর্তারা স্কুলের প্রধান শিক্ষক ও স্কুল পরিচালনা কমিটির সভাপতিকে ভৎসনা করেন। এক পর্যায় স্কুলের প্রধান শিক্ষক শহিদুল ইসলাম ও স্কুলের সভাপতি মুনসুর আলী সেখানে শত শত মানুষের উপস্থিতিতে এই ঘটনার জন্য প্রকাশ্যে ক্ষমা প্রার্থনা করেন এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হাত থেকে চেকের মাধ্যমে পাওয়া ১০ হাজার টাকা নগদ মোমিনের পিতার হাতে তুলে দেন। এছাড়া জেলা ও বিভাগীয় পর্যায় ১ম স্থান অধিকার করায় আব্দুল মোমিন যে টাকা পেয়েছিলো তাও আগামি দুই দিনের মধ্যে দিয়ে দেওয়ার অঙ্গিকার করেন প্রধান শিক্ষক ও স্কুলের সভাপতি’। তিনি আরো বলেন, ‘পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত না হলে আমি বিচার পেতাম না। টাকাও পেতাম না। সাংবাদিকদের কারনেই আজ আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হাত থেকে পাওয়া টাকা ফেরত পেয়েছি’।
এদিকে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে কলারোয়া উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোজাফফর হোসেন জানান, ‘স্কুল ছাত্র মোমিনের পিতার অভিযোগের প্রেক্ষিতে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক ও কলারোয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নির্দেশে ঘটনা তদন্তে দুই সদস্যের একটি তদন্ত টিম গঠন করা হয়েছে। ওই স্কুল শিক্ষকের বিরুদ্ধে তদন্ত করে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে’।
প্রসঙ্গত: কলারোয়া উপজেলার সোনাবাড়িয়া গ্রামের আনছার আলীর ছেলে আব্দুল মোমিন (১১)। সে কলারোয়া উপজেলার ১২০ নং কোমরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৫ম শ্রেণীর ছাত্র। আন্ত:প্রাথমিক ক্রীড়া ও সাংস্কৃতি প্রতিযোগিতা-২০১৮ এর ১০০ মিটার দৌড়ে থানা, জেলা ও বিভাগীয় পর্যায় প্রথম স্থান এবং জাতীয় পর্যায়ে তৃতীয় স্থান অধিকার করে ছেলেটি। আর এই পুরস্কারের মধ্যদিয়ে শিশু শিক্ষার্থী আব্দুল মোমিন গোটা সাতক্ষীরার জন্য বয়ে এনেছে সুনাম। জাতীয় পর্যায়ে উজ্জল করেছেন সাতক্ষীরার মুখ।