ধানদিয়ায় গায়ের জোরে জমি দখলে রাখার পায়তারা: উত্তেজনা


প্রকাশিত : মে ২৩, ২০১৯ ||

নিজস্ব প্রতিনিধি: তালা উপজেলার ধানদিয়ায় গায়ের জোরে জমি দখলে রাখার পায়তারা চালাচ্ছেন রেজাউল করিম নামের একজন ঘের ব্যবসায়ী। যদিও ওই জমির চুক্তির মেয়াদ শেষ পর্যায়ে।
এলাকাবাসি জানান, তালা উপজেলার পাটকেলঘাটা ধানদিয়া পাঁচপাড়া গ্রামের মৃত আব্দুস সাত্তার ধাবকের ছেলে ঘের ব্যবসায়ী রেজাউল করিম ধানদিয়া মাঠে এলাকার প্রায় ১১৪ জন জমির মালিকের নিকট থেকে ২০১৪ সালের ১জুন তারিখ থেকে ২০১৯ সালের ৩০ মে পর্যন্ত পাঁচ বছর মেয়াদে চুক্তিবদ্ধ হয়ে ১৯৫ বিঘা জমি লিজ নিয়ে মাছ চাষ করে আসছেন। কিন্তু চুক্তি অনুযায়ী সকল জমির মালিককে তাদের পাওনা টাকা পরিশোধ না করায়, মেয়াদ শেষ হওয়ার দুই মাস আগে থেকে জমির মালিকরা তাদের জমি ছাড়িয়ে নেওয়ার জন্য ঘের ব্যবসায়ী রেজাউল করিমকে মৌখিকভাবে জানিয়ে দেন।
ঘের ব্যবসায়ী রেজাউল করিম ঘেরের জমিতে আসন্ন মৌসুমের ধান চাষ করার উদ্দেশ্যে বৃহস্পতিবার সকালে ট্রাক্টর দিয়ে জমি চাষ করতে গেলে জমির শতাধিক মালিক এসে তাতে বাঁধা দেন এবং জমি চাষ করা বন্ধ করে দেন।
এ ব্যাপরে ওই ঘেরের আওতায় থাকা ১৬ বিঘা জমির মালিক ধানদিয়া গ্রামের মৃত ইব্রাহিম মোড়লের ছেলে সাহেব আলী, হারেজ আলীর ছেলে ৩ বিঘা জমির মালিক আজারুল ইসলামসহ জমির অর্ধশতাধিক মালিক সাংবাদিকদের জানান, পাঁচ বছর আগে আমাদের জমি চুক্তির মাধ্যমে রেজাউল করিমের কাছে জমি লিজ দেই। কিন্তু রেজাউল ঠিকমতো আমাদের (জমির মালিকদের) পাওনা টাকা পরিশোধ না করায়, চুক্তি অনুযায়ী দুই মাস আগে থেকে তাকে আমারা জানিয়ে দিয়েছি তার কাছ থেকে আমরা জমি ছাড়িয়ে নেবো এবং অপর এক ঘের ব্যবসায়ীর কাছে আমরা নতুন করে বছরে বিঘা প্রতি সাড়ে ৬হাজার টাকা চুক্তিতে জমি হারী দেবো। কিন্তু রেজাউল করিম আমাদের জমি ফিরিয়ে দেয়ার প্রস্তুতি না নিয়ে, তিনি স্থানীয় জৈনক ব্যক্তি হাবিবুর রহমান হাবু, সোহরব মোড়ল, আরিফ মোড়ল, ইয়াছিন সরদার, সেকেন্দার মল্লিক, সুরাত সরদারসহ ১০/১২ জন প্রভাবশালী ব্যক্তির দাপট দেখিয়ে গায়ের জোরে আমাদের ১৯৫ বিঘা জমি দখলে রাখার পায়তারা করছে।
তবে একাধিক জমির মালিক জানান, চুক্তি অনুযায়ী রেজাউল করিমের মেয়াদ শেষ পর্যায়ে এসে যাওয়ায় ইতোমধ্যে শতাধিক জমির মালিক নতুন করে পাঁচ বছর মেয়াদে ধানদিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক ইউপি সদস্য শহিদুল ইসলামের ছেলে সাতক্ষীরা সিটি কলেজের প্রভাষক মো: রুহুল আমিনের কাছে ওই জমি চুক্তির মাধ্যমে লিজ দিয়েছেন এবং জমির মালিকরা বিঘা প্রতি সাড়ে ৬হাজার করে এক বছরের হারীর টাকা গ্রহণ করেছেন। বৃহস্পতিবার পূর্বের ঘের ব্যবসায়ী রেজাউল করিম ট্রাক্টর দিয়ে জমি চাষ করা শুরু করলে, জমির শতাধিক মালিক এসে তাতে বাঁধা দিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে মৃদু উত্তেজনার সৃষ্টি হয়।