পল্লী বিদ্যুতের খামখেয়ালীপনায় গ্রাহক হয়রানি চরমে


প্রকাশিত : মে ২৬, ২০১৯ ||

খেশরা (তালা) প্রতিনিধি: পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির খামখেয়ালীপনায় গ্রাহক হয়রানি চরম আকার ধারন করেছে। এ থেকে যেন কারো পরিত্রাণ নেই। সকল গ্রাহক যেন তাদের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছে।
তালা উপজেলার খেশরা ইউনিয়নের শাহপুর গ্রামের প্রায় ৫ শতাধিক গ্রাহকের মে’১৯ মাসের সাথে মার্চ’১৯ মাসের পরিশোধিত বিল যোগ করে বিল প্রস্তুত করা হয়েছে। এ ঘটনায় ফুঁসে উঠেছে এলাকাবাসি। তারা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির বিল প্রস্তুতকারী, এজিএম (ফাইন্যান্স) এবং জিএম (জেনারেল ম্যানেজার) এর খামখেয়ালীপনার বিচার ও অপসারণ চেয়েছেন। এ ধরনের ঘটনা পার্শ্ববর্তি গ্রাম হরিহরনগর এবং জালালপুর ইউনিয়নের কৃষ্ণকাটি ও রথখোলায়ও ঘটেছে বলে খবর পাওয়া গেছে।
উল্লেখ্য যে, গত বছর এপ্রিল মাসে বিদ্যুৎ সংযোগ না থাকলেও শাহপুর গ্রামের মৃত জেহের মোড়লের ছেলে আব্দুল মাজেদ মোড়লসহ দু’জনের নামে বিদ্যুৎ বিল আসে। এছাড়া একই মাসে বালিয়া গ্রামের মোজাম্মেল হক সরদারের আবেদনের প্রেক্ষিতে যে মিটার বসানো হয়, তার রিডিং ছিলো ৪৯০ ইউনিট। প্রথম মাসেই গ্রাহক ২০ ইউনিট বিদ্যুৎ খরচ করেন। কিন্তু পল্লী বিদ্যুৎ অফিস মোজাম্মেল সরদারের নামে বিল করেন ৫১০ ইউনিটের ৩৩৭২ টাকা। এ ধরনের হাঁজারো অনিয়ম আর স্বেচ্ছাচারিতার গল্প জমা আছে বিদ্যুৎ গ্রাহকদের ঘরে-ঘরে। মার্চ’১৯ মাসের পরিশোধিত বিল যোগ করে মে’১৯ মাসের বিল প্রস্তুত করায় মোবাইল ফোনে সাতক্ষীরা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জেনারেল ম্যানেজার সন্তোষ সাহা’র কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিষয়টি আমি জানিনা। এ জন্য কিছু বলতে পারছি না। দু’একজন গ্রাহককে বিল দিয়ে আমার কাছে পাঠান, দেখবো কি সমস্যা।