বেনাপোলে ধান ক্রয়ে হ য ব রল অবস্থা


প্রকাশিত : মে ২৮, ২০১৯ ||

বেনাপোল (যশোর) প্রতিনিধি: যশোরের শার্শা ও বেনাপোলে এখনও কৃষকের কাছ থেকে ধান ক্রয় শুরু হয়নি। তালিকা তৈরীতে গরিমসি করেছে সংশ্লিষ্টরা। ধানের দাম না পেয়ে হতাশায় চাষী ও ব্যাবসায়িরা। ধানের মজুদ থাকলেও সরকারিভাবে ক্রয়ের উদ্যোগ ম্লান। প্রকৃত কৃষকরা পাচ্ছেনা সুযোগ। দেরিতে ধান ক্রয়ের খবরে বিপাকে চাষী।
কৃষি প্রধান এলাকা যশোরের শার্শা ও বেনাপোল। উপজেলায় চলতি বোরো মৌসুমে প্রায় ২৪ হাজার হেক্টর জমিতে হয়েছে ধান চাষ। ধানের ফলন ভাল হলেও দাম না পেয়ে হতাশায় কৃষকেরা। মোটা ৫০০ ও চিকন ধান বিক্রি হচ্ছে ৭০০ টাকায়। তবে বাইরের ব্যবসায়িরা না আসায় দাম পাচ্ছে না চাষী। দায় দেনা করে চাষ করে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন তারা। শার্শায় সরকারিভাবে ধান ক্রয় শুরু না হওয়ায় কৃষকের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। ধান ক্রয়ে নীয়ম বর্হিভূতের অভিযোগ উঠেছে। প্রতি কৃষকের কাছ থেকে ৩ টন ধান ক্রয়ের নিয়ম থাকলেও শার্শায় কৃষক প্রতি ৩০০ কেজি ধান ক্রয়ের নিয়ম বেঁধে দিয়েছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।
অনিয়মের কারণে অনেকে পায়নি সরকারি কার্ড। প্রতি বিঘায় ধানে লস হবে ৪ হাজার টাকা।এ কথা জানান ভুক্তভোগী কৃষকরা।
শনিবার পর্যন্ত তালিকা পায়নি বলে জানান নাভারন খাদ্য গুদাম শার্শা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আক্তারুজামান।
২৬ টাকা কেজি দরে ৬৬ মে. টন ধান ও ৩২ টাকা দরে ৩৪৮০ মে. টন চাল কিনবে শার্শা উপজেলা খাদ্য অধিদপ্তর।
শার্শা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সৌতম কুমার শীল বলেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নির্দেশে প্রকৃত কৃষকের কাছ থেকে তালিকা করা হচ্ছে। উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তারা কাজ করছেন। বিভিন্ন ইউনিয়নে মাইকিং করে কৃষকদের জানানো হচ্ছে। তবে আরও আগে কৃষকের কাছ থেকে ধান ক্রয় করলে উপকৃত হতো কৃষক।