বনদস্যু জোনাব বাহিনীর আস্তানা থেকে পালিয়ে বাড়ি ফিরেছে ৩ জেলে


প্রকাশিত : জুলাই ৭, ২০১৯ ||

শ্যামনগর (সদর) প্রতিনিধি: দীর্ঘ ১মাস বনদস্যু জোনাব বাহিনীর আস্তানায় বন্দী থাকার পরে ৪দিন নদীতে ভেসে পালিয়ে বাড়ি ফিরেছে ৩ জেলে। শনিবার সকাল ৯টার দিকে সুন্দরবন সংলগ্ন গোলাখালী দিয়ে ৩ জেলে বাড়িতে ফিরে আসে। ফিরে আসা জেলেরা হলেন কালিঞ্চি গ্রামের মৃত দৈব্য চরণ মুন্ডার ছেলে সুজন মুন্ডা, জয়াখালী গ্রামের মাহমুদ সরদারের ছেলে জাহাঙ্গীর সরদার এবং পাতাখালী গ্রামের আব্দুল মান্নান।
সরেজমিনে ফিরে আসা জেলে সুজন মুন্ডার সাথে কথা হলে জানায়, গত ৬জুন কৈখালী বন অফিস হতে অনুমতি নিয়ে সুন্দরবনে হোগলডুবি খালে মাছ ধরার সময় ওই দিন রাত ৮টার দিকে বনদস্যু জোনাব বাহিনীর ৩ সদস্য অস্ত্রের মুখে তাদের জিম্মি করে। সেখান থেকে ওই রাতে ভারত বাংলাদেশ সীমান্ত ছায়া নদীতে নিয়ে তাদের আটকে রাখে। পরদিন জেলেদের বাড়িতে টাকার জন্য ফোনে কথা বলতে বলে। এভাবে বিকাশের মাধ্যমে মান্নান এর কাছ থেকে ২লক্ষ ৫০ হাজার এবং জাহাঙ্গীর এর কাছ থেকে ৭৫ হাজার টাকা আদায় করে জোনাব বাহিনী। টাকা নেওয়ার পরেও জেলেদের মুক্তি না দিয়ে আরও টাকা আদায়ের জন্য আটকে রাখে। সুজন মুন্ডা জানায়, দরিদ্র হওয়ার কারণে সে নিজে টাকা দিতে না পারায় সারা রাত বনদস্যুদের নৌকা চালাতে হত। সারাদিনে জেলেদের এক বেলা ডাল ভাত খেতে দিত জোনাব বাহিনী। এভাবে চলতে চলতে গত ২ জুলাই বেলা ২টার দিকে রান্নার জন্য বনে কাট জোগাড়ের জন্য বনে প্রবেশ করে সুজন সহ ওপর দুই জেলে। এসময় পাহারায় থাকা দুই বনদস্যু নৌকায় ঘুমিয়ে পড়ে। সুযোগ বুঝে ৩ জেলে গহীন সুন্দরবনে লুকিয়ে পড়ে। এক পর্যায়ে হেতাল গাছের সাহায্যে ভেলা তৈরী করে ভাসতে ভাসতে গতকাল শনিবার গোলাখালী ঘাটে এসে পৌছায়। সুজন আরও জানায়, ৩সদস্য বিশিষ্ট জোনাব বাহিনীর কাছে ২টি দোনলা বন্দুক, ১টি নলা বন্দুক ও ১টি পিস্তল ছিল। জোনাব বাহিনী দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার কুমিরমারী নিজ বাড়ী থেকে বনদস্যু বাহিনী পরিচালনা করে সুজন মুন্ডা জানায়। সুজন আরও জানায়, বেশ কিছুদিন শান্ত থাকার পরে বর্তমানে সুন্দরবনে বনদস্যু জোনাব, জিয়া ও মেকাইল বাহিনীর তৎপরতা বেপরোয়াভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে।