দৈনিক পত্রদূত পত্রিকায় খবর প্রকাশ সেই প্রকল্পের সমুদয় টাকা ফেরৎ দিলেন ইউপি চেয়ারম্যান


প্রকাশিত : জুলাই ৯, ২০১৯ ||

তালা প্রতিনিধি: দৈনিক পত্রদূত পত্রিকায় খবর প্রকাশের পর প্রকল্পের সমুদয় টাকা ফেরৎ দিলেন তালা উপজেলার ১২নং খলিলনগর ইউপি চেয়ারম্যান আজিজুর রহমান (রাজু)। খলিলনগর ইউনিয়নের গঙ্গারামপুর ঈদগাহের মাঠ ভরাট প্রকল্পের ৬৯,৬৬৮ টাকার দুর্নীতি অনিয়মের খবর প্রকাশিত হলে ৮জুলাই সকালে তালা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে প্রকল্পের সমুদয় টাকা ফেরৎ দিয়েছেন বলে জানিয়েছে সংশ্লিষ্ট সূত্র।
গ্রামীণ অবকাঠামো রক্ষণাবেক্ষণ (টিআর) কর্মসূচীর আওতায় তালা উপজেলার গঙ্গারামপুর ঈদগাহ’র মাটি ভরাট প্রকল্পের প্রায় ৭০ হাজার টাকার ৬০ হাজারই লোপাট করা হয়েছে বলে খবর প্রকাশ হয়। যাতে প্রকল্পে দেখানো কমিটির সভাপতি স্থানীয় ইউপি সদস্য ঝরণা বেগম নিজেও জানেননা প্রকল্পের খবর বলেও তার সাক্ষাৎকার প্রকাশিত হয়। ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের উন্নয়ন প্রকল্পের এমন খবরে ক্ষোভ প্রকাশ করে সুষ্ঠু তদন্ত দাবি করেন স্থানীয়রা।
এরআগে এলাকাবাসীর পক্ষে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আজিজুর রহমান রাজু টিআর, এলজিএসপি, টিআর কাবিখাসহ বিভিন্ন প্রকল্পের টাকা আতœসাতের ঘটনায় স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে দায়ের করা অভিযোগে গত ২৩ জুন জেলা প্রশাসককে তদন্তপূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য নির্দেশ প্রদান করেন সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়।
সর্বশেষ ফের (টিআর) প্রকল্পে দুর্নীতির অভিযোগের প্রেক্ষিতে উঠে আসে স্থানীয় ইউপি সদস্য ঝরণা বেগমকে সভাপতি দেখিয়ে একটি প্রকল্প কমিটি করা হয়। আদায়কের উদ্বৃতি’র দেয়া তথ্য থেকে জানাযায়, বিল নং-৩৬, তারিখ-৩০-৫-১৯ প্রকল্প সভাপতি ঝরণা বেগমের স্বাক্ষরে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কোন প্রকার কর্তন ছাড়াই প্রকল্পের অনুকূলে সমুদয় টাকা অর্পণাদেশ ও ছাড়পত্র প্রদানের অনুমতি দেন।
ঈদগাহ কমিটির সভাপতি সাঈদ হোসেন জানান, ঈদগাহের মাটি ভরাটের জন্য ইউপি চেয়ারম্যান তাদের ২২ হাজার টাকা দিয়েছেন। প্রকল্প সভাপতি ইউপি সদস্য ঝর্ণা বেগম জানান, প্রকল্পের ব্যাপারে তিনি কিছুই জানেন না। চেয়ারম্যানের সাথে যোগাযোগ করেন।
এব্যপারে খলিলনগর ইউপি চেয়ারম্যান আজিজুর রহমান রাজুর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন,প্রকল্পের টাকায় আরো দু’টি উন্নয়ন কাজ এগিয়ে নেয়া হয়েছে। বিষয়টি তিনি ঈদগাহ কমিটি ও রাস্তা সংরক্ষণে পুকুর ভরাট এলাকার সংশ্লিষ্টদের সাথে সমন্বয় করেই প্রকল্পগুলি বাস্তবায়ন করেছেন।
এনিয়ে স্থানীয় আরেক ইউপি সদস্য প্রকাশ দালাল বলেন, রেজুলেশন করে প্রকল্প গ্রহনের নিয়ম থাকলেও প্রকল্পটিতে তা করা হয়নি। এমনকি এনিয়ে তাকে জানানোও হয়নি।
তালা উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মাহাফুজুর রহমানের নিকট মুঠোফোনে প্রকল্পের ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন,এনিয়ে তিনি এখনই কিছু বলতে পারছেন না। তবে পরে বিষয়টি তদন্তপূর্বক তিনি ব্যবস্থা নেবেন।
সর্বশেষ এনিয়ে সাতক্ষীরা জেলা ত্রাণ ও পূণর্বাসন কর্মকর্তা (ডিআরআরও) প্রশান্ত কুমার রায়ের নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন, তিনি অবশ্যই বিষয়টির তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নিবেন।
সর্বশেষ ৮ জুলাই ইউপি চেয়ারম্যান আজিজুর রহমান প্রকল্প সভাপতি ঝর্ণা বেগম ও সেক্রেটারী অপর ইউপি সদস্য প্রকাশ দালালকে প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মাহফুজুর রহমানের কক্ষে নিয়ে প্রকল্প কমিটি ফরম, বিল ফরম ও রেজিষ্ট্রেশন খাতায় স্বাক্ষর করিয়ে নেন। এসময় ইউপি সদস্যদ্বয় বলেন, এরআগে তারা এ প্রকল্প নিয়ে কোথাও কোন স্বাক্ষর করেন নি।
সর্বশেষ এলাকাবাসী ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তপূর্বক জরুরী ভিত্তিতে পদক্ষেপ গ্রহনের জন্য সরকারের সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।