টর্নেডোর আঘাত এখনো কাটিয়ে উঠতে পারেনি তালা মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়


প্রকাশিত : জুলাই ২১, ২০১৯ ||

এসকে রায়হান, খেশরা (তালা) প্রতিনিধি: টর্নেডোর দগদগে ক্ষত এখনো যায়নি। আঘাতের সেই ক্ষত নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে ২১০ নং তালা মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। গত ১৫ জুলাই বিকাল সাড়ে ৩টায় হঠাৎ তালা সদরের উপর দিয়ে বয়ে যায় এক প্রলয়ঙ্করী টর্নেডো। এতে অন্তত ১০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, অর্ধশতাধিক ঘর-বাড়ি এবং শতাধিক গাছ-পালা উপড়ে যায়। ক্ষতিগ্রস্ত হয় লক্ষ লক্ষ টাকার সম্পদ, ব্যাহত হয় স্বাভাবিক জীবন যাত্রা।
সোমবারের ওই টর্নেডোয় সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয় তালা মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। এছাড়াও তালা ফাজিল মাদ্রাসা, শহীদ কামেল মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ও ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তালা মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবনের টিনের চাল উড়িয়ে নিয়ে যায় মুহূর্তের মধ্যে। সমস্ত কাগজপত্র ভিজে সম্পূর্ণ নষ্ট হয়ে যায় ওই ঝড়ে।
২০ জুলাই শনিবার তালা মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সরেজমিনে পরিদর্শনে গিয়ে দেখা যায়, নিজস্ব অর্থায়নে ভবনের চালে টিন লাগাতে ব্যস্ত শ্রমিকরা। কথা হয় প্রধান শিক্ষক জোহরা পারভীনের সাথে। তিনি জানান, ১৯৯৬ সালে প্রতিষ্ঠিত ৪ রুম বিশিষ্ট বিদ্যালয়টিতে প্রতিষ্ঠাকালীন ভবনেই চলে বিদ্যালয়ের পাঠ্যক্রম। বর্তমানে বিদ্যালয়ে ৪জন শিক্ষক, ৪ জন ন্যাশনাল সার্ভিসের অস্থায়ী শিক্ষক এবং ১৩১ জন ছাত্র-ছাত্রী আছে। উল্লেখ্য, এখানে ৩৩জন উপজাতি (ত্রিপুরা) শিক্ষার্থীও অধ্যায়ন করে।
প্রধান শিক্ষক আক্ষেপ করে বলেন, ২০১৪ সালের জানুয়ারিতে ৩য় ধাপে আমাদের বিদ্যালয়টি জাতীয়করণ হলেও অদ্যাবধি স্কুলের অবকাঠামোগত উন্নয়নে কোন রকম সরকারি বরাদ্দ আমরা পাইনি। তবে ভবন নির্মাণের জন্য শিক্ষা মন্ত্রাণালয়ে আবেদন করা হয়েছে। তিনি গর্বের সাথে আরো বলেন, স্কুলটি সরকারি ঘোষণার পর প্রতি বছর প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষায় কৃতিত্বের সাথে আমাদের স্কুলের শতভাগ শিক্ষার্থী পাশ করেছে।
টিন শেডের কাজ চলমান থাকায় এক প্রশ্নের জবাবে প্রধান শিক্ষিকা বলেন, বর্তমানে আমরা আমাদের বিদ্যালয় সংলগ্ন শহীদ কামেল মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৬টি রুম বরাদ্দ নিয়ে সকাল ৭টা থেকে ১০টা পর্যন্ত এক শীফট্ এ পাঠক্রম অব্যাহত রেখেছি। নিজস্ব অর্থায়নে (শিক্ষকদের বেতনের অর্থে) কাজ কেন করছেন, এমন প্রশ্নের জবাবে বলেন, কি করব! আমাদের বিদ্যালয়ে কোন ফান্ড নেই। তবে উপজেলা চেয়াম্যানের সুপারিশের ভিত্তিতে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের মাধ্যমে তালা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর অনুদান চেয়ে আবেদন করা হয়েছে। ঘটনার দিন তারা স্কুল পরিদর্শন করেছিলেন।
তালা মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জোহরা পারভীন ও ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি বিশিষ্ট সাংবাদিক আব্দুল হাকিম ক্ষতিগ্রস্ত স্কুল ভবন সংস্কার, অবকাঠামো নির্মাণসহ বিদ্যালয়ের সার্বিক উন্নতির জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন।