বেনাপোল প্রাণী সম্পদ কোয়ারেন্টাইন ষ্টেশনের দীর্ঘ ৫বছরেও কার্যক্রম শুরু হয়নি


প্রকাশিত : আগস্ট ১, ২০১৯ ||

বেনাপোল (যশোর) প্রতিনিধি: ভারত থেকে বেনাপোল স্থলপথে নিরাপদ পশু খাদ্য ও প্রাণী আমদানীতে ৫কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত প্রাণী সম্পদ কোয়ারেন্টাইন ষ্টেশন উদ্বোধনের পর দীর্ঘ ৫বছরেও কার্যক্রম শুরু হয়নি। নিয়োগ দেওয়া হয়নি জনবল। অযতেœ অবহেলায় নষ্ট হচ্ছে যন্ত্রপাতি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে ব্যবসায়িরা। বিঘœ হচ্ছে খাদ্য নিরাপত্তা।
দেশের বৃহৎ স্থল বন্দর বেনাপোল। এ বন্দর দিয়ে ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে প্রতিদিন ৭শতাধিক ট্রাক পন্য আমদানি রফতানি হয়। পশু ও প্রাণী খাদ্য সহ বিভিন্ন প্রাণী আমদানি করা হয় এ বন্দর দিয়ে। দেশের মধ্যে নিরাপদ পশু খাদ্য ও প্রাণী আমদানীতে ৫কোটি টাকা ব্যায়ে বেনাপোল বন্দরে নির্মিত হয় আধুনিক মানের প্রাণী সম্পদ কোয়ারেন্টাইন ষ্টেশন। পশুর প্রজননসহ পশু খাদ্য ও প্রাণী পরীক্ষণে কোটি টাকার যন্ত্রপাতি দেওয়া হয়। ২৮মে ২০১৪সালে মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নারায়ন চন্দ্র চন্দ্র ষ্টেশনটি উদ্বোধন করেন। তবে কোন জনবল নিয়োগ না দেওয়ায় সুফল পায়নি ব্যবসায়িরা। নষ্ট হচ্ছে ভবন ও যন্ত্রপাতি।
নিরাপত্তা কর্মিরা বলেন, ষ্টেশনটি দেখভালে আন অফিসিয়ালি ২জন নিরপত্তা কর্মি থাকলেও ৫বছর যাবত কোন নিয়োগ ও বেতন ভাতা না পেয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন সরকারের সহযোগিতা চান তারা।
ব্যবসায়ি ও স্থানীয়রা বলেন জনবল নিয়োগ ও ষ্টেশনটি বন্ধ থাকায় খাদ্য পন্য পরীক্ষণে হয়রানি ও সময় ক্ষেপণে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে ব্যবসায়িরা। সরকার বঞ্চিত হচ্ছে রাজস্ব আয় থেকে। জনবল নিয়োগসহ ষ্টেশনটি সচলের দাবী ব্যবসায়ি ও স্থানীয়দের।
কোয়ারেন্টাইন ষ্টেশন-বেনাপোল সহকারি পরিচালক জয়দেব কুমার সিংহ বলেন, জনবলের অভাবে চালু করা যাচেছ না প্রাণী সম্পদ কোয়ারেন্টাইন ষ্টেশনটি। ফলে ভারত থেকে যে সব পশু খাদ্য ও প্রাণী দেশে প্রবেশ করছে সেগুলো পরীক্ষণের মাধ্যমে নিরাপদ ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করা সম্ভব হচ্চেনা বলে জানান সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। জনজল নিয়োগ ও চালু হোক পরীক্ষা কার্যক্রম-সচল হোকে ষ্টেশনটি দাবী ব্যবসায়ি ও স্থানীয়দের।