উপজেলা পর্যায়ে গণ সমাবেশ ও মুক্ত আলোচনা অনুষ্ঠিত


প্রকাশিত : August 5, 2019 ||

শ্যামনগর উপজেলা হোটেল সী-ল্যান্ড সম্মেলন কক্ষে উপজেলা পর্যায়ে গণ সমাবেশ ও মুক্ত আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। “আমেরিকান সরকারের আন্তজার্তিক উন্নয়ন সংস্থা (ইউএসএআইডি) এর ফুড ফর পিস (টাইটেল-২) খাদ্য সহায়তা কার্যক্রমের অর্থায়নে ‘নবযাত্রা’ একটি পাঁচ বছর মেয়াদী প্রকল্প; যা ২০১৫ সালের সেপ্টেম্বরে শুরু হয়েছে এবং ২০২০ সালের সেপ্টেম্বরে শেষ হবে। ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ এর নেতৃত্বে নবযাত্রা প্রকল্প অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে ওয়ার্ল্ড ফুড প্রোগ্রাম, উইনরক ইন্টারন্যাশনাল এবং সরকারের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতায় বাস্তবায়িত হচ্ছে। প্রকল্পটি বাংলাদেশের দক্ষিণ পশ্চিম উপকূলীয় সাতক্ষীরা জেলার কালিগঞ্জ ও শ্যামনগর এবং খুলনা জেলার দাকোপ ও কয়রা উপজেলার ৮,৫৬,১১৬ জন উপকারভোগীর জন্য বাস্তবায়িত হচ্ছে। স্থানীয় বেসরকারি সংস্থা (এনজিও), সুশীলননবযাত্রা কর্মসূচীর সুশাসন, জেন্ডার, এবং গ্র্যাজুয়েশন কার্যক্রমের সঞ্চয়ী দল সম্পর্কিত কার্যাবলী বাস্তবায়ন করছে।ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ সুশীলনে’র সাথে খুলনা ও সাতক্ষীরা জেলায় বাল্যবিবাহ বন্ধে সচেতনতামূলক নানা কর্মসূচী পালন করে থাকে। সমাজের সকল অংশের সাথে নেটওয়ার্ক তৈরির মাধ্যমে সমন্বিতভাবে বাল্যবিবাহ বন্ধে কাজ করার জন্য প্রান্তিক জনগোষ্ঠির বাল্যবিবাহ বন্ধে বাস্তবভিত্তিক জ্ঞান, চ্যালেঞ্জ এবং উত্তরণের বিষয়ে সঠিকভাবে নির্দেশনার জন্য গণ সমাবেশ ও মুক্ত আলোচনার আয়োজন করা হয়ে থাকে। শ্যামনগর উপজেলার হোটেল সী-ল্যান্ড সম্মেলন কক্ষেনবযাত্রা প্রকল্পের জেন্ডার কম্পোনেন্টের টেকনিক্যাল অফিসার, মোঃ আসাদুজ্জামান (রিপন)এর সঞ্চালনায় গণ সমাবেশ ও মুক্ত আলোচনায় সভাপতিত্ব করেন, শ্যামনগর উপজেলার উপজেলা চেয়ারম্যান এস এম আতাউল হক (দোলন)। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মোঃ জামিরুল ইসলাম অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, কালিগঞ্জ সার্কেল, সাতক্ষীরা। উক্ত অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, শাহনওয়াজ পারভীন (মিলি) সদস্য, জেলা পরিষদ, সাতক্ষীরা ও সভাপতি, জেলা বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ কমিটি, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান খালেদা আইয়ুব (ডলি), পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত), মোঃ আনিচুর রহমান মোল্যা, শ্যামনগর থানা, মোঃ সাইদুল ইসলাম, উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা, মোঃ আকরাম হোসেন খান, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার, এবং শ্যামনগর উপজেলার সকল ইউনিয়ন থেকেআগত সব ধর্মেরবিবাহ নিবন্ধক, মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক, সাংবাদিক, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, গ্রাম পুলিশ সহ সুশিল সমাজের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। উক্ত আলোচনা সভায় উপজেলা পর্যায় থেকে আগত প্রতিনিধিরা তাদের মতামত তুলে ধরেন। বাল্যবিবাহ নিরসনে তারা সরকারী দায়িত্বশীল প্রতিষ্ঠান সহ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মেম্বারদের কার্যকর ভূমিকার কথা তুলে ধরেন্্এবং সাহায্য কামনা করেন। মুক্ত আলোচনায় শ্যামনগর উপজেলার উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা বলেন আইনের যথাযথ প্রয়োগ হলেই বাল্যবিবাহ নিরসন সম্ভব। উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বলেন, সরকার বাল্য বিবাহ বন্ধে কঠোর অবস্থানে রয়েছে, সবাইকে এ বিষয়ে সজাগ থাকতে হবে। শ্যামনগর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত)বলেন, পুলিশ বাহিনী তৎপর রয়েছে, শ্যামনগর উপজেলায় বাল্যবিবাহ বন্ধে ছাড় দেয়া হবেনা। অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি জনাব, মোঃ জামিরুল ইসলামঅতিরিক্ত পুলিশ সুপার, কালিগঞ্জ সার্কেল, বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ করা গেলে জাতীয় আয়ের ১২ শতাংশ বাড়ানো যাবে। আমাদের সমাজের অভিভাবকদের দৃষ্টি ভংগি পরিবর্তন করতে হবে। তিনি আরো বলেন, নেপোলিয়ার এর ভাষায় আমাকে শিক্ষিত একটি মা দাও আমি তোমাদের একটি শিক্ষিত একটি জাতি উপহার দেব। তিনি গ্রাম পুলিশদের উদ্দেশ্য করে বলেন তাদের মাঠ পর্যায়ে বাল্যবিবাহের কোন তথ্য পেলে সাথে সাথে উপজেলা প্রশাসনকে জানাতে হবে। তিনি বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন-২০১৭ উপস্থাপন করেন এবং এ বিষয়ে সবাইকে সচেতন হওয়ার পরামর্শ দেন। শ্যামনগর উপজেলাকে বাল্যবিবাহ মুক্ত করার সহযোগীতা করার অঙ্গিকার করেন। তিনি আরো বলেন, সবাইকে সামজিক দায়িত্ব পালন করতে হবে, বাল্যবিবাহ রুখে দিতে হবে। এ সময় তিনি বাল্যবিবাহের নানান কূফল আলোচনা করেন। বাল্যবিবাহ বন্ধে তিনি সরকারের কঠোর অবস্থানের কথা তুলে ধরেন। তিনি নবযাত্রাকে ধন্যবাদ দেন এরকম মুক্ত আলোচনা ও গণসমাবেশ এর আয়োজন করার জন্য