মাদক দ্রব্যের অপব্যবহার রোধ ও সন্ত্রাস জঙ্গি বিরোধী যুব সমাবেশ


প্রকাশিত : আগস্ট ২১, ২০১৯ ||

মীর মোস্তফা আলী: মাদক দ্রব্যের অপব্যবহার রোধ, সন্ত্রাস জঙ্গি বিরোধী যুব সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।
মঙ্গলবার জেলা প্রশাসন ও যুব উন্নয়ন অদিদপ্তরের আয়োজনে যুব উন্নয়ন হল রুমে যুব উন্নয়ন উপ পরিচালক সাতক্ষীরা মো. রফিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে এ মাদক দ্রব্যের অপব্যবহার রোধ, সন্ত্রাস জঙ্গি বিরোধী যুব সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক এসএম মোস্তফা কামাল শোকের মাসে বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের সকল শহীদের প্রতি বিন¤্র শ্রদ্ধা জানিয়ে বলেন, আমরা শোককে শক্তিতে পরিণত করে মাসব্যাপি যে কার্যক্রম করছি আজকের যুবসমাবেশ তারই অংশ। এমন কোন পেশা নেই, যে পেশায় মাদকসেবী নেই। সাতক্ষীরা সীমান্ত জেলা হওয়ায় এখানে মাদক বেচাকেনা বা সেবনে জড়িয়ে পড়া স্বাভাবিক। মাদক, সন্ত্রাস, জঙ্গি বা ভিক্ষুকমুক্ত করা সহজ বিষয় নয়। কিন্তু এসব নির্মুল করা খুবই কঠিন। যুব সমাজ একটি বড় শক্তি। যুবদের এখন কাজ করার সময়। চাকরির আশায় বসে থাকলে চলবে না। যতদিন ভাল চাকরি না পান, তত দিন ঘরে বসে হাঁস-মুরগী গরু-চাগল পালন বা মাছ চাষ করে বা ইন্টারনেট ব্যবহার করে আর্নিং এন্ড লার্নিংয়ের মাধ্যমে ১৫ থেকে ২০ হাজার বা তার বেশি আয় করা সম্ভব। অনেক প্রতিষ্ঠান যুব সমাজকে জঙ্গি ও মাদক ব্যবসার সাথে পরিচালনা করছে। শুধু স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা নয়, বিশ^বিদ্যালয়ের সুন্দর চেহরার শিক্ষার্থীরা জঙ্গিবাদের সাথে জড়িয়ে পড়ছে। মনে রাখবেন মাদক দেখতে সুন্দর, কিন্তু ভিতরে বিষ। যা সেবন বা গ্রহণ করলে মৃত্যুও হতে পারে।
তিনি আরো বলেন, ডেঙ্গু প্রতিরোধে ও এডিস মশা নিধনে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে নির্দেশ দিয়েছি প্রতিদিন শিক্ষার্থীরা আসার আগে সব জায়গা পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখতে। বাংলাদেশে যখন ডেঙ্গু রোগে মানুষ আক্রান্ত হয়, তখন প্রধানমন্ত্রী সরকারি সফরে লন্ডন ছিলেন। তিনি সফর শেষে দেশের মাটিতে পা রেখেই প্রথম ডেঙ্গু প্রতিরোধ ও এডিস মশা নিধনে সকলকে সমন্বিতভাবে কাজ করতে বলেন। তারই ধারাবাহিকতায় জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশান, সিভিল সার্জনসহ সকলে এক যোগে কাজ করছে। এ সমন্বিত উদ্যোগে আপনারাও অংশ নিয়ে আপনার বাড়ির আঙ্গিনাসহ আশপাশের সব জায়গা পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করে পরিষ্কার রাখতে হবে। যাতে এডিস মশা জন্ম নিয়ে ডেঙ্গু রোগ না ছড়াতে পারে।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে পুলিশ সুপার মো. মোস্তফিজুর রহমান বলেন, কোন দেশে যখন সরকার গঠন হয়, তখন কীভাবে দেশ পরিচালনা করা হবে-সেজন্য দিক নির্দেশনা থাকে। আমাদের বর্তমান সরকারেরও একটি নির্দেশনা আছে। যারা মাদক ব্যবসা বা সেবন করে তাদের প্রথমে ভাল করার চেষ্টা করা তার মধ্যে একটি। সাতক্ষীরা সীমান্তবর্তী জেলা। এখানে মাদক আসতে পারে। মাদক ব্যবসায়ী বা সেবীও থাকতে পারে। সব জায়গায় যেমন খারাপ ও দুষ্ট মানুষ থাকে, এখানেও আছে। তবে যারা মাদক ব্যবসা, সেবন করা ও সন্ত্রাস জঙ্গিবাদসহ সব রকম খারাপ কাজ থেকে ভাল না হবে, তাদের দমনসহ নির্মুল করা হবে। যে পরিবারে মাদকসেবী থাকে, সে পরিবার নি:স্ব হয়ে যায়। জঙ্গি ও মাদক দমনে সরকারের নির্দেশে পুলিশ যে কাজ করছে তাতে আপনাদের সাহসীকতার সাথে সহযোগিতা করতে হবে। জঙ্গিবাদের কারণে অনেক মুসলিমদেশ ধংস হয়ে গেছে। কোন দেশ মুক্তিযোদ্ধা বা মুক্তিযুদ্ধের সংগঠককে বাদ দিয়ে বা অসম্মান করে রাষ্ট্র পরিচালনা করে না-তারা যে যে রাজনীতিই করুক না কেন। বাংলাদেশেও মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক বঙ্গবন্ধুকে অসম্মান করে কেউ কোন রাজনীতি করতে পারবে না। যারা জঙ্গি ও মাদক ব্যবসা এবং সেবনসহ সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে জড়িত আছেন, তারা ভাল না হলে নির্মুল করা হবে।
সমাবেশ শেষে বিজিবি ক্যাম্পের সামনে খুলনা সাতক্ষীরা মহাসড়কে এডিস মশার প্রজনন ক্ষেত্র ধ্বংস ও ডেঙ্গুজ¦র প্রতিরোধে সচেনতামূলক মানববন্ধন করা হয়।