পাটকেলঘাটা বাজারের করুণ দশা!


প্রকাশিত : আগস্ট ২১, ২০১৯ ||

মুজিবর রহমান, পাটকেলঘাটা: জেলার বাণিজ্যিক রাজধানী হিসেবে খ্যাত পাটকেলঘাটা বাজার। কিন্তু পাটকেলঘাটা বাজারের আজ করুণ দশা। বাজারের ড্রেনেজ ব্যবস্থা সচল না থাকার কারণে অল্প বৃষ্টিতেই বাজারের নিচু এলাকা পানিতে তলিয়ে যায়। সরকারি নিয়মনিতি তোয়াক্কা না করে ব্যবসায়ীরা দোকানঘর বাসাবাড়ি নির্মাণ করায় পানি চলাচলের পথগুলো বন্ধ করে রেখেছে। স্থানীয় সূত্র জানায়, জেলার তালা উপজেলার অন্যতম বাণিজ্যিক নগরী পাটকেলঘাটা বাজার। এ বাজারে ছোট বড় প্রায় ২ হাজারের অধিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও ১৬টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এটি খুলনা-সাতক্ষীরা মহাসড়কের পাশে কপোতাক্ষ নদের তীরে অবস্থিত। এখানে পশুরহাট এবং কাঁচা সবজির ধান চাল, ইলেকট্রনিক্স সামগ্রীর বিখ্যাত হাটবাজার। রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জেলা শহরে বিভিন্ন প্রকার পণ্য সামগ্রী আমদানী রপ্তানী হয়ে থাকে। বাজারের অধিকাংশ সড়কের বিভিন্ন স্থানে ইট পিচ খোঁয়া উঠে গিয়ে ছোট বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এতে সাধারণ মানুষের যাতায়াত ও পণ্য সামগ্রী আমদানী রপ্তানী করা ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। ফলে এ হাটবাজারে ব্যবসা বাণিজ্যের প্রসার ব্যাহত হচ্ছে বলে দাবি ব্যবসায়ীদের। তাছাড়া পানি নিষ্কাশনের জন্য নেই কোন প্রয়োজনীয় ড্রেনেজ ব্যবস্থা। সামান্য বৃষ্টিতে অধিকাংশ সময় হাটু পানি জমে থাকে এ সড়কের উপর। ফলে যোগাযোগ ব্যবস্থা বেহাল থাকার কারণে ব্যবসায়ীসহ সাধারণ মানুষ রয়েছে চরম ভোগান্তিতে। যেন বিষয়টি দেখার কেউ নেই! এর প্রভাব পড়ছে সরকারের রাজস্ব আয়ের উপর।
কপোতাক্ষ নদের তীরে এই বাজারটির অবস্থান থাকায় বহু দূর-দূরান্ত থেকে ব্যবসায়ীরা যেমন নদী পথে তেমনি স্থলপথে এই বাজারে ব্যবসা বাণিজ্যের উদ্দেশ্যে আগমন করেন। পাটকেলঘাটা থেকে প্রতিদিন ঢাকার উদ্দেশ্যে পরিবহনের মাধ্যমে পান, মিষ্টি, শাক-সবজি, মাছ ইত্যাদি রাজধানীতে যায়। কিন্তু দু:খজনক হলেও সত্য এই বাজারের প্রত্যেকটি রাস্তা-ঘাট আজ চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। রাস্তাঘাটের দুরাবস্থার কারণে ব্যবসায়ীরা এখন আর ব্যবসা করতে আসে না। বাজারের প্রাণ কেন্দ্র হলো পাঁচ রাস্তা মোড়। কিন্তু এই মোড়েই বড় বড় খানাখন্দ দিয়ে শুরু। স্টীলের ফার্নিচারগুলো জনতা ব্যাংক রোডে অবস্থিত। বছরের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত কাঁদা পানিতে পরিপূর্ণ থাকে এই রাস্তা। এই রাস্তা বর্ষা এবং গরমকাল দুটিই সমান। পল্লী বিদ্যুৎ রোডের এমন কোন জায়গা নেই যেখানে নদীর মত পানি প্রবাহিত হচ্ছে না। হাই-স্কুল রোড, যে রোডে প্রতিদিন কোমলমতি ছাত্র-ছাত্রীরা হাবুডুবু খায়। টাওয়ার রোড, যে রোডে বিভিন্ন শাক-সবজির চারা বিক্রয় হয়, বিভিন্ন গার্মেন্টস দোকান, বীজের দোকানও অবস্থিত। কিন্তু এ রাস্তাটি চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। এছাড়া পুরাতন জনতা ব্যাংক রোড, পুলিশ ফাঁড়ি রোড, বলফিল্ড রোড, গেডাউন রোড, কলেজ রোডগুলো অবস্থিত। প্রতি বছর কয়েক লক্ষ টাকার রাজস্ব আদায় হয় এই পাটকেলঘাটা বাজার থেকে। রাস্তাগুলো সংস্কারের জন্য সরুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মতিয়ার রহমান উপজেলা নির্বাহী অফিসারসহ উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেছেন বলে এ জানিয়েছেন।