সংবাদ সম্মেলন: পাটকেলঘাটায় আদালতের নির্দেশ অমান্য করে বসতবাড়ী ও দোকান ঘর দখলের চেষ্টা


প্রকাশিত : আগস্ট ২৯, ২০১৯ ||

পাটকেলঘাটা প্রতিনিধি: আদালতের নির্দেশ অমান্য করে বসতবাড়ি, দোকান ভাংচুর ও দখলে নেওয়ার অভিযোগে বৃহস্পতিবার (২৯ আগষ্ট) বিকাল ৫টায় পাটকেলঘাটা নিউজ ক্লাবে লিখিত সংবাদ সম্মেলন করেন আমতলাডাঙ্গা গ্রামের মৃত কছিমুদ্দিনের পুত্র ভ্যানচালক সোহরাব হোসেন।
লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, রাজেন্দ্রপুর মৌজায় ১২৭১/২৩৫১নং দাগে পৈত্রিক সূত্রে পাওয়া ৭.৬০ শতক ও আমানত সূত্রে ৩.৮০শতক জমি শান্তিপূর্ণভাবে ভোগ দখল করে। উল্লেখ্য সোহবার হোসেনের মেজো বোনের ওয়ারেশগন তাদের অংশের ৩.৮০ শতক জমি আমতলাডাঙ্গা গ্রামের জামাল মোড়লের নিকট গত ৫/৯/১৬ইং তারিখে ৩২৮২নং কোবলা দলিলের মাধ্যমে সাবরেজিষ্ট্রী অফিসে রেজিষ্ট্রী করে দেয়। ‘যার উত্তরে সুফিয়া খাতুন, দক্ষিনে রাস্তা, পূর্ব কছিমুদ্দিন, পশ্চিমে রাস্তা চৌহদ্দী উল্লেখ পূর্বক সীমানা নির্ধারণ করে দেওয়া হয়’।
বিক্রয়কৃত জমিটি বসতভিটা হওয়ায় মূল শরিক সোহবার হোসেন জমিটি ফেরত পাইবার জন্য তালা সহকারী জজ আদালতে আশ্রয় নেয়। আদালত সকল শরিকগণকে নোটিশ করে দীর্ঘ শুনানীর পর সোহরাব হোসেনের পক্ষে রায় দেন এবং ১০/১০/১৮ইং তারিখে আদালতের পক্ষে সহকারী সেরেস্তাদার মোঃ আয়জুদ্দীন মোড়ল সোহরাব হোসেনের নামে ৪০২৮নং কোবলা দলিল করে দেয়।
ভুক্তভোগী সোহবার হোসেন আরো বলেন, দীর্ঘদিন যাবত আমি বসত ভিটা ও দোকান ঘর ভোগদখল করে আসছি। কিন্তু চোমরখালী গ্রামের মৃত ফটিক মোড়লের পুত্র বহুঅপকর্মের হোতা আনার আলী মোড়ল, সোহবার হোসেনের অপর দু’বোনের কন্যাকে নিজের ভাগ্নে সাজিয়ে সরকারী কর ফাঁকি দেয়ার জন্য শ্রেণি পরিবর্তন করে জমির মাঠ দেখিয়ে সুকৌশলে দানপত্র লিখে নেয়। এরপর থেকে সোহবার হোসেনের বসতভিটা ও দোকান ঘর জোর করে দখলের চেষ্টা করে আসছে। ইতিপূর্বে উক্ত আনার আলী বিএনপি’র সরকার আমলে ক্ষমতা ও টাকার দাপট দেখিয়ে একই গ্রামের দাউদ মোড়ল গং দের জমি হামলা-মামলার মাধ্যমে জোর করে দখল করে বাড়ী ঘর স্থাপন করে।
সোহরাব হোসেন আরো বলেন, গত ১৮ই আগস্ট আনার আলী’র নেত্বত্বে বসতভিটা ও দোকান ঘর ভাংচুর করে অবৈধভাবে দখলের পায়তারার চেষ্টা করে প্রতিপক্ষরা। এসময় আমি বাধা দিলে আমাকে মারপিঠ করে আহত করে। আমার আতœচিৎকারে পার্শ¦বর্তী দোকানদার বাকী বিল্লাহ, সেলিম হোসেন ছুটে আসলে সন্ত্রাসীরা তাদের মাথায় দেশীয় অস্ত্রে আঘাত করে চলে যায়। আমিসহ আহত আরো কয়েকজন সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ভর্তি হই।
এ ঘটনায় আদালতের নির্দেশ অমান্যকারীদের গ্রেফতার ও শাস্তির দাবী জানিয়ে সোহরাব পাটকেলঘাটা থানায় নিজ বাদী হয়ে ৩ জনের নাম উল্লেখ করে একটি মামলা(নং- ৬, তাং- ১৮/০৮/২০১৯ই) করেন।