শার্শায় নারী ধর্ষণের ঘটনায় অভিযুক্ত এসআইকে বাদ দিয়ে ৪ জনের বিরুদ্ধে মামলা: আটক ৩ জন


প্রকাশিত : সেপ্টেম্বর ৪, ২০১৯ ||

বেনাপোল (যশোর) প্রতিনিধি: যশোরে আলোচিত গ্রেপ্তার হওয়া ব্যক্তির স্ত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে পুলিশ ও তার সোর্সের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ। তিনজনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত একজনসহ চারজনের বিরুদ্ধে মঙ্গলবার রাতে এ মামলা করেন ওই নারী।
যশোর পুলিশের এসপি মঈনুল হক এবং শার্শা থানার ওসি মশিউর রহমান বলেন, ওই নারীর অভিযোগের ভিত্তিতে এসআই খায়রুল ইসলাম, শার্শা উপজেলার চটকাপোতা গ্রামের বাসিন্দা কামারুল, লক্ষ্মণপুর গ্রামের আব্দুল লতিফ ও আব্দুল কাদেরকে তার সামনে হাজির করা হয়। এসময় তিনি এসআই খায়রুল ছাড়া অন্য তিনজনকে শনাক্ত করেন। এসআই খায়রুলকে শনাক্ত না করায় তার বিরুদ্ধে মামলা হয়নি।
তবে অভিযুক্ত অজ্ঞাত ব্যক্তির বিরুদ্ধে বিষয়টি অনুসন্ধানে পুলিশ কাজ করছে বলে জানান এসপি। দোষী যেই হোক না কেন তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানান তিনি।
উল্লেখ্য, মঙ্গলবার যশোরের শার্শা উপজেলার গোড়পাড়া লক্ষ্মণপুর গ্রামের এক গৃহবধূ যশোরে এসে পুলিশ সুপারের কাছে অভিযোগ করেন, গত ২৫ আগস্ট রাত ১১টার দিকে তার স্বামীকে আটক করে পুলিশ। পরদিন সকালে তিনি জানতে পারেন তাকে ৫০ বোতল ফেনসিডিলসহ মামলা দেয়া হয়েছে। এর ৯ দিন পর সোমবার রাত আড়াইটার দিকে শার্শার গোরপাড়া পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ খায়রুল ইসলামসহ চারজন তার বাড়িতে আসে। তাকে ডেকে তুলে এসআই খায়রুল বলে, ৫০ হাজার টাকা দিলে তার স্বামীকে ৫৪ ধারায় অভিযুক্ত করে চার্জশিট দেয়া হবে। তিনি এ টাকা দিতে না চাইলে বিভিন্ন কথায় বাকবিত-ার একপর্যায়ে এসআই খায়রুল ও তার সোর্স কামারুল তাকে ধর্ষণ করে। এসময় লতিফ ও কাদের ঘরের বাইরে অবস্থান করছিল।
অভিযোগ পেয়ে যশোরের পুলিশ সুপার ঘটনা পরিদর্শন করেন। কারণ অনুসন্ধানে শার্শা থানাকে নির্দেশ দেন। স্থানীয় সাংবাদিকদের জানান, ঘটনা সঠিক হলে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে।