কালিগঞ্জে ছিনতাইয়ের অভিযোগে মৌতলা ইউপি’র সদস্য সালমান রহমান ডালিমসহ আটক ২


প্রকাশিত : সেপ্টেম্বর ৭, ২০১৯ ||

বিশেষ প্রতিনিধি: ছিনতাইয়ের অভিযোগে কালিগঞ্জের মৌতলা ইউপি’র সদস্যসহ দুই জনকে আটক করেছে পুলিশ। আটককৃতরা হলেন মৌতলা গ্রামের মীর জিয়াউর রহমানের ছেলে ১নং ওয়ার্ডের সদস্য মীর সালমান রহমান ডালিম (৩৫) ও একই গ্রামের শেখ হাবিবের ছেলে শেখ রানা (২৬)।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, মৌতলা গ্রামের খান ছোট’র স্ত্রীর সাথে নামাজগড় গ্রামের মোকছেদ মোড়লের জমিজমা নিয়ে দীর্ঘদিন বিরোধ চলছে। গত ৫ সেপ্টেম্বর বেলা সাড়ে ১২টার দিকে মোকছেদ মোড়ল মৎস্যঘের থেকে মাছ বিক্রি করে বাড়ি আসার পথে পথিমধ্যে মৌতলার সীডস্টোর মসজিদের সামনে পৌছালে পূর্ব পরিকল্পিকত ভাবে মৌতলা গ্রামের মৃত কাজী আসাদুল রহমানের ছেলে কাজী সোহেল ও মীর জিয়াউর রহমানের ছেলে ইউপি সদস্য মীর সালমান রহমান ডালিমের নেতৃত্বে তাদের বাহিনী মোকছেদ মোড়লের উপর হামলা করে গুরুতর জখম করেন। এসময় মীর ডালিমের হুকুমে মোকছেদ মোড়লের কাছে থাকা মাছ বিক্রির এক লক্ষ পঞ্চাশ টাকা জোরপূর্বক কেড়ে নেয়। পরবর্তীতে মোকছেদ মোড়লের স্ত্রী মঞ্জুরা বেগম (৩৮) বাদী হয়ে ৬ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা ৪/৫ জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করেন। এর প্রেক্ষিতে উপ-পরিদর্শক অনুপ কুমার অভিযান চালিয়ে শনিবার দুপুরের দিকে মীর সালমান রহমান ডালিম ও শেখ রানাকে আটক করেন। এরআগে শুক্রবার মামলার এক নম্বর আসামি কাজী সোহেলকে (৩২) আটক করে পুলিশ।

এব্যাপারে জানাতে চাইলে ইউপি সদস্য মীর সালমান রহমান ডালিম বলেন, জমিজমা নিয়ে বিরোধের জের ধরে দু’পক্ষের মধ্যে মারামারির ঘটনা ঘটে। এর প্রেক্ষিতে আমার বিরুদ্ধে পরিকল্পিত ভাবে মিথ্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। তিনি আরও জানান, মৌতলা ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান সাঈদ মেহেদীর সাথে আমার পূর্বের বিরোধ রয়েছে। তার নির্দেশে ২০১৮ সালের জানুয়ারী মাসে আমার উপর সন্ত্রাসী হামলা হয়। আমি গুরুতর আহত হই। সেঘটনায় মামলা চলমান রয়েছে। এসব ঘটনাকে কেন্দ্র করে আমার বিরুদ্ধে অব্যাহত ভাবে ষড়যন্ত্র চালানো হচ্ছে।