বেনাপোলে গ্রাম আদালতে ফিরেছে শান্তি শৃঙ্খলা, কমেছে অপরাধ: আস্থা বাড়ছে সর্বসাধারণের


প্রকাশিত : সেপ্টেম্বর ৯, ২০১৯ ||

বেনাপোল (যশোর) প্রতিনিধি: যশোরের শার্শা ও বেনাপোলে গ্রাম আদালতের মাধ্যমে ফিরেছে শান্তি শৃঙ্খলা। কমেছে অপরাধ প্রবনতা। জনপ্রতিনিধিরা গ্রামে ও ইউনিয়ন পরিষদে বসেই জনসাধারণের বিভিন্ন সমস্যার সমাধন দিচ্ছেন। ফলে গ্রাম আদালতের প্রতি আস্তা বাড়ছে সর্বসাধারণের। তৃণমূল পর্যায়ে শাষন ব্যবস্থার উন্নতি হওয়ায় মানুষের মধ্যে সোহার্দ ও সম্প্রীতি বাড়ছে। ছোট খাট অপরাধ মিমাংশা করছেন জনপ্রতিনিধিরা।
সবুজ অরণ্যে ভরা সীমান্ত ঘেরা কৃষি প্রধান এলাকা যশোরের শার্শা বেনাপোল। প্রশাসনের দৃষ্টিতে অপরাধ প্রবল এলাকা। চুরি ছিনতাই জমি দখল, নারী নির্যাতন, বাল্যবিবাহ, মারামারি, দখলদারিত্ব, মাদক চোরাচালান সহ একাধিক কর্মকান্ড হয়ে থাকে এলাকাটিতে। তবে গত কয়েক বছরের ব্যবধানে গ্রাম আদালত শক্তিশালী হওয়ায় এসব অপরাধ কমেছে। বাড়নো হচ্ছে গণসচেতনতা। শান্তি শৃঙ্খলার উন্নতিসহ স্বস্তি ফিরেছে শার্শায়। জনপ্রতিনিধিদের আন্তরিকতায় শান্ত হচ্ছে এলাকার পরিবেশ। ঘরে বসেই শুষ্ঠ বিচার পেয়ে খুশি ভুক্তভোগীরা। তবে বর্তমান এমপি শেখ আফিল উদ্দিন ও ইউপি চেয়ারম্যানরা দলীয় নেতাকর্মিদেরকে সব ধরনের অপরাধ থেকে বিরত থাকাসহ বিভিন্ন দিক নির্দেশনা দেওয়ায় আইনশৃঙ্খলার উন্নতি হচ্ছে। অপসংস্কৃতির রাজনীতি ছেড়ে উন্নয়নের রাজনীতি করার নিদের্শনা দেওয়া হয়েছে। সরকারের ভিশন বাস্তবায়নে সবাইকে আন্তরিক হয়ে কাজ করার আহব্বান জানান জনপ্রতিনিধিরা।
ভুক্তভোগীরা বলেন জমিজমা ও টাকার লেনদেন ও নারী ঘটিত সমস্যা সহ বেশকয়েকটা সমস্যার সমাধান পেয়েছেন গ্রাম আদালতে। ফলে কোন টাকা ছাড়ায় বিচার পয়ে খুশি তারা।
মেম্বর ও গ্রাম পুলিশরা জানান, নারী নির্যাতন জমিজমা সংক্রান্ত সহ বিভিন্ন সমস্যা গ্রামের বসেই মিটানো হয় দু একটি ঘটনা ইউনিয়ন পরিষদের মাধ্যমে মিটানো হয়। এলাকার সমস্যা সমাধানে চেষ্টা করেন তারা-আন্তরিক ইউপি সদস্য ও গ্রাম পলিশরা।
বাহাদুরপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান ও গোগা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুর রশিদ বলেন, শার্শ উপজলার ১১টি ইউনিয়ন পরিষদ (গ্রাম আদালত) শক্তিশালী করা হয়েছে। সব সমস্যা মিটানো হচ্ছেন এ আদালতে। দু একটি বড়কেচ আদালতের আশ্রয় নেওয়া হয়। এলাকা পরিবেশ উন্নতি হযেছে। প্রতি সপ্তাহে গ্রাম আদালতে বিচার কার্য করা হচ্ছে। বিনা টাকায় সঠিক বিচার পাচ্ছে এলাকা মানুষ। এলাকার শান্তিপ্রিয় মানুষ অনেক শান্তিতে আছে বলে জানান জনপ্রতিনিধিরা।
গ্রাম আদালতের কার্যক্রম নথিভুক্ত করে উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসনের কাছে দেওয়া হয়। ফলে নজরদারী ও জবাবদিহিতা থাকায় শক্তিশালি হচ্ছে গ্রাম আদালত জানান প্রশাসনের কর্মকর্তা ও জনপ্রতিনিধিরা।
উপজেলা চেয়ারম্যান সিরাজুল হক মজ্ঞু বলেন বর্তমানে জেলা ও উপজেলা পরিষদ অনেক শক্তিশালি। ফলে এর সুফল পাচ্ছেন গ্রাম আদালত।