দেবহাটায় সরকারি রাস্তা দখল করে প্রাচীর নির্মাণ: জনদুর্ভোগ চরমে


প্রকাশিত : সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৯ ||

দেবহাটা ব্যুরো: দেবহাটার পারুলিয়াতে জনসাধারণের দীর্ঘদিনের চলাচলে সরকারী রাস্তার দুই তৃতীয়াংশ দখল করে প্রাচীর নির্মাণসহ এলাকায় বসবাসরত অসহায় সাধারণ মানুষদের হয়রানীর অভিযোগ উঠেছে শেখ রেজাউল ইসলাম (৫০) নামের এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে। অভিযুক্ত রেজাউল ইসলাম মাঝ পারুলিয়া গ্রামের মৃত শেখ সোবহানের ছেলে। দীর্ঘদিন ধরে জনসাধারণের চলাচলে সরকারী ১২ ফুট প্রস্থের রাস্তাটির ৮ ফুটই দখল করে নিয়েছে রেজাউল ইসলাম। আর বাকী ৪ ফুট রাস্তায় বর্তমানে একটু বৃষ্টিতে কর্দমাক্ত হয়ে পড়ায় এলাকার সাধারণ মানুষ ওই রাস্তায় চলাচলে চরম দুর্ভোগে পড়েছে। পাশাপাশি বিষয়টি নিয়ে প্রতিবাদ করতে গেলে এলাকাবাসীকে মিথ্যা মামলা দিয়ে জেল খাটানোর হুমকি দিচ্ছে রেজাউল ইসলামের ছেলে পুলিশ কনষ্টেবল আব্দুল কাদের এবং জামাতা সখিপুরের লিটন। এ ঘটনায় বুধবার দেবহাটা উপজেলার সেকাই মোড় সংলগ্ন মাঝ পারুলিয়া গ্রামের জনসাধারণের পক্ষ থেকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাজিয়া আফরীনের কাছে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। এলাকাবাসির পক্ষে স্থানীয় বাসিন্দা শেখ মিজানুর রহমান, শরিফুল ইসলাম, রজব আলী, আব্দুল হক, শেখ বাবু, নুর ইসলাম, আশরাফ আলী, রমজান আলীসহ একাধিক ব্যক্তি তাদের অভিযোগে জানান, ব্রিটিশ শাসনামল থেকে তাদের পূর্বপুরুষ এবং পর্যায়ক্রমে তারাও সরকারি ওই রাস্তাটিতে চলাচল করে আসছিলেন। সরকারি তথ্য মতে ওই রাস্তাটির গড় প্রস্থ ১২ ফুট বলেই জেনে এসেছেন তারা। বেশ কয়েক বছর আগে স্থানীয় ভুমিদস্যু রেজাউল ইসলাম সরকারি ১২ প্রস্থের রাস্তাটির ৮ ফুট জায়গা দখল করে পাঁকা প্রাচীর ও গোয়ালঘর নির্মাণ করেন। ফলে জনসাধারণের চলাচলের রাস্তাটি মাত্র ৪ফুট প্রস্থ হয়ে সরু গলিতে পরিণত হয়েছে। ফলে কেবলমাত্র বাইসাইকেল ছাড়া অন্য কোন যানবহন বা প্রয়োজনীয় মালামাল ওই রাস্তা দিয়ে বর্তমানে আনা নেওয়া করতে পারেন না স্থানীয়রা। পাশাপাশি সামান্য বৃষ্টিতেই মাত্র ৪ফুট প্রস্থের রাস্তাটি কর্দমাক্ত হয়ে পড়ায় সাধারণ মানুষ চলাচলে অনেকটাই বিড়ম্বনা ও ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন। অন্যদিকে রাস্তার অপর পাশের বাসিন্দা শেখ মিজানুর রহমানসহ অন্যান্যরা তাদের রেকর্ডীয় সম্পত্তিতে প্রাচীর নির্মাণ করতে গেলে বাঁধাসৃষ্টিসহ তাদেরকেও বিভিন্নভাবে হয়রানী করছেন রেজাউল ইসলাম। বিষয়টি নিয়ে বুধবার এলাকাবাসী ইউএনও সাজিয়া আফরীনের কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করলে বৃহস্পতিবার ইউএনও’র নির্দেশে সরকারি সার্ভেয়ার ও পারুলিয়া ইউনিয়ন ভূমি অফিসের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে পৌছে রাস্তার জমি পরিমাপ শেষে ১২ ফুট প্রস্থের রাস্তার ৮ ফুট ভুমিদস্যু রেজাউল ইসলামের জবরদখলে রাখার বিষয়টি নিশ্চিত করে লাল ফ্লাগ ঝুলিয়ে দেন। এঘটনার পর থেকে অবৈধভাবে দখলকৃত সরকারি রাস্তার জমি নিজের দখলে রাখতে বিভিন্ন মহলে দৌড়ঝাপসহ এলাকার অসহায় সাধারণ মানুষদের ভয়ভীতি দেখিয়ে আসছেন রেজাউল ইসলাম। তাই অবিলম্বে রেজাউল ইসলামের নির্মাণকৃত অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের মাধ্যমে সরকারি রাস্তা পুনরুদ্ধারসহ সকলের চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করে জনদুর্ভোগ লাঘবের জন্য জেলা প্রশাসক ও দেবহাটা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে দাবী জানিয়েছেন এলাকাবাসী।