ইন্দো-বাংলা এডুকেশন সামিটে অংশ নিতে ভারত গেলেন কলারোয়ার প্রধান শিক্ষক চাঁন্দু


প্রকাশিত : সেপ্টেম্বর ১২, ২০১৯ ||

নিজস্ব প্রতিনিধি: ইন্দো-বাংলা এডুকেশন সামিট-২০১৯ এ অংশ নিতে ভারত গেছেন কলারোয়ার ঐহিত্যবাহী সোনাবাড়ীয়া সম্মিলিত মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আখতার আসাদুজ্জামান চাঁন্দু। কোলকাতার শান্তি নিকেতনে বাংলাদেশ ভবনে ১৪ ও ১৫ সেপ্টেম্বর এ সামিট অনুষ্ঠিত হবে। বাংলাদেশ-ভারতের শিক্ষা সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তারা সামিটে অংশ নিচ্ছেন। আখতার আসাদুজ্জামান চাঁন্দু জানান, দু’দেশের শিক্ষার মানোন্নয়নে এ ধরণের আয়োজন। একই সঙ্গে তিনি সংশ্লিষ্ট সকলকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন তাকে এ সামিটে মনোনীত করার জন্য। উল্লেখ্য, আখতার আসাদুজ্জামান চাঁন্দু ১৯৯৭ সালে প্রধানমন্ত্রী পদক পান। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মোবাইল ট্রেনিং রিসোর্চ টীমের বিজ্ঞান বিষয়ক বিশেষজ্ঞ শিক্ষক হিসেবে দেশের বিভিন্ন উপজেলায় পিছিয়ে পরা স্কুল-মাদরাসার মান্নোয়নের কাজ করেন। সৃজনশীল প্রশ্নপত্রের বিজ্ঞান বিষয়ের মাষ্টারট্রেইনার ও সৃজনশীল প্রশ্নপত্রের শিক্ষক প্রশিক্ষণ মেন্যুয়াল তৈরিতে বিজ্ঞান বিষয়ে কাজ করেন। আখতার আসাদুজ্জামান চাঁন্দু উপজেলা স্কাউটসের সাধারণ সম্পাদক, উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি। দুর্নীতি প্রতিরোধে উপজেলা পর্যায় দুর্নীতি দমন কমিশন কর্তৃক প্রেরিত বিভিন্ন কর্মসূচী সফলতার সঙ্গে তার নেতৃত্বে সম্পন্ন করায় কলারোয়া উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটি ২০১৭ সালে খুলনা বিভাগে শ্রেষ্ঠত্বের তালিকায় ৩য়, এবং ২০১৮ সালে ১ম স্থান অধিকার করেন। ২০১৬ ও ২০১৮ সালে তিনি উপজেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ প্রধান শিক্ষক নির্বাচিত হন। ব্যক্তিগত জীবনে আখতার আসাদুজ্জামান চাঁন্দু ২ কন্যা সন্তানের জনক। কন্যাদের একজন যারীন তাসনীম প্রীমা মাধ্যমিক পর্যায়ে স্কাউটসে সর্বোচ্চ খেতাব প্রেসিডেন্ট স্কাউটস অ্যাওয়ার্ড-২০১৫ এবং কনিষ্ঠ কন্যা রাইসা মাহজাবীন প্রভাব প্রাথমিক স্তরের কাব স্কাউটসে সর্বোচ্চ খেতাব শাপলা অ্যাওয়ার্ড-২০১৮ পাওয়ার জন্য মনোনীত হয়েছে। আখতার আসাদুজ্জামান চাঁন্দু ১৯৯৪ সালের ১৪ ডিসেম্বর সহকারি শিক্ষক হিসেবে সোনাবাড়ীয়া সম্মিলিত মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা শুরু করেন। তারপর ২০১১ সালের ৩১ জানুয়ারি তিনি প্রধান শিক্ষক হিসেবে একই প্রতিষ্ঠানে দায়িত্ব গ্রহণ করেন।