খুলনায় দক্ষতা উন্নয়নের মাধ্যমে যুব-কর্মসংস্থান সৃষ্টি বিষয়ক কর্মশালা


প্রকাশিত : সেপ্টেম্বর ২০, ২০১৯ ||

 

নিজস্ব প্রতিনিধি: খুলনায় দক্ষতা উন্নয়নের মাধ্যমে যুব-কর্মসংস্থান সৃষ্টি বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। ‘আমেরিকান সরকারের আন্তজার্তিক উন্নয়ন সংস্থা (ইউএসএআইডি) এর ফুড ফর পিস (টাইটেল-২) খাদ্য সহায়তা কার্যক্রমের অর্থায়নে ‘নবযাত্রা’ আওতায় বৃহস্পতিবার খুলনার একটি সিএসএস আভা সেন্টারে দিনব্যাপী এ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। কর্মশালায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য দেন খুলনার বিভাগীয় কমিশনার লোকমান হোসেন মিয়া।

‘জেগেছে যুব, জেগেছে দেশ, লক্ষ্য ২০৪১-এ উন্নত বাংলাদেশ’ এই স্লোগানকে সামনে রেখে  যুবদের ন্যায়নিষ্ঠ, আধুনিক জীবনবোধ সম্পন্ন, আত্মমর্যাদাশীল ও ইতিবাচক মানুষ হিসেবে গড়ে তোলা ও যোগ্যতা অনুযায়ী পেশা ও কর্মের ব্যবস্থা করার লক্ষ্যে এ কর্মশালার আয়োজন করা হয়।

এসময় প্রধান অতিথির বক্তব্য বিভাগীয় কমিশনার লোকমান হোসেন মিয়া বলেন, শিক্ষার্থীদের টেকনিক্যাল শিক্ষার দিকে বেশি মনোযোগী হতে হবে। যার যে দিকে মেধা আছে তার মেধা সেই দিকে কাজে লাগাতে হবে। সকলকে পরি¤্রমি হয়ে জীবনে লক্ষে পৌছানোর জন্য যোগ্যতা অনুযায়ী কাজ করতে হবে। জীবনে কোন পেশাই ছোট না। সামাজিক দায়বন্ধতা থেকে দেশের উন্নয়নে তিনি সকলকে এক হয়ে কাজ করার আহবান জানান।

সুশীলনের প্রোগ্রামের উপ-পরিচালক মো. রফিকুল হক’র সভাপতিত্বে কর্মশালার উদ্দেশ্য তুলে ধরেন বক্তব্য দেন প্রকল্পের ডিরেক্টর-প্রোগ্রাম, পলিসি এ্যান্ড এ্যাডভোকেসি মো. নুরুল আলম রাজু। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন  ইয়ুথ স্পেশালিস্ট মো. আশিক বিল্লাহ।

কর্মশালায় খুলনা জেলার দাকোপ ও কয়রা এবং সাতক্ষীরা জেলার কালিগঞ্জ ও শ্যামনগর উপজেলায় থেকে আগত প্রায় ৬০ জন যুব, যুব সাংবাদিক, যুব ক্লাব সদস্য ও যুব প্রতিনিধি, সরকারী বে-সরকারি দপ্তরের প্রতিনিধিবৃন্দ, সাংবাদিকরা তাদের মতামত প্রদান করেন।

উল্লেখ্য, ‘নবযাত্রা’ একটি পাঁচ বছর মেয়াদী প্রকল্প; যা ২০১৫ সালের সেপ্টেম্বরে শুরু হয়েছে ২০২০ সালের সেপ্টেম্বরে শেষ হবে। ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ এর নেতৃত্বে নবযাত্রা প্রকল্প অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে ওয়ার্ল্ড ফুড প্রোগ্রাম, উইনরক ইন্টারন্যাশনাল এবং গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতায় বাস্তবায়িত হচ্ছে। প্রকল্পটি বাংলাদেশের দক্ষিণ পশ্চিম উপকূলীয় খুলনা জেলার দাকোপ ও কয়রা এবং সাতক্ষীরা জেলার কালিগঞ্জ ও শ্যামনগর উপজেলার ৮,৫৬,১১৬ জন উপকারভোগীর জন্য বাস্তবায়িত হচ্ছে। স্থানীয় বেসরকারি সংস্থা (এনজিও), সুশীলন নবযাত্রা কর্মসূচীর সুশাসন, জেন্ডার, এবং আলট্রা পুওর গ্র্যাজুয়েশন কম্পোন্যান্টের বিভিন্ন কার্যাবলী বাস্তবায়ন করছে।