পতিত জমিতে বিঘায় ৫হাজার খরচে লক্ষাধিক টাকা লাভ: বেনাপোলে পানিফল চাষে সাফল্য


প্রকাশিত : September 22, 2019 ||

এম এ রহিম, বেনাপোল (যশোর): বেনাপোলে পতিত জমিতে বানিজ্যেকভাবে পানিফল চাষে সাফল্য পেয়েছেন নুর ইসলাম নামে এক কৃষক। প্রতি বিঘায় ৫হাজার টাকা খরচে বিক্রি করা যায় লক্ষাধিক টাকার পানিফল। তার লাভ দেখে এলাকায় বাড়ছে চাহিদা ও পানিফল চাষ। লাভবান হচ্ছে চাষী।
ভিতরের অংশ সাদা হলেও উপরের অংশ লাল দেখতে শিঙাড়ার মতো। খেতে সুসাদু, পুষ্টিগুনে ভরা এই পানিফলের চাহিদা রয়েছে সর্বত্রই। ৪মাসের মধ্যেই পাওয়া যায় ফলন। সাতক্ষীরা, খুলনা, বরিশালসহ নদীমাতৃক বিভিন্ন এলাকায় এ ফলের চাষ হলেও এই প্রথম বেনাপোল চাত্তেরবিলে বানিজ্যিকভাবে শুরু হয়েছে পানিফল চাষ। ৭বিঘা জমিতে ২৫হাজার টাকা খরচে পানিফল চাষ করেছেন বেনাপোল ভবারবেড় গ্রামের নুর ইসলাম। ফুলে ফলে ভরে গেছে সবুজ ক্ষেত। প্রথম মাসেই দ্ইু লক্ষাধিক টাকার ফল বিক্রির আশা তার।
চাষী মো: নুর ইসলাম বলেন, সাতক্ষীরার কালিগজ্ঞ থেকে ২৫ হাজার ৫৬০ টাকাল বীজ নিয়ে ৭ বিঘা জমিতে চাষ করেছেন। ফল ধরেছে ভাল। ১০গুন লাভোর আশা তারা।
নিচু এলাকায় সারা বছর জমিতে পানি থাকায় হয়না ধান চাষ। বর্ষাকালে এসব জমি ছাপিয়ে যাওয়ায় মাছ চাষে কৃষকেরা হয় ক্ষতিগ্রস্ত। তাই নুর ইসলামের দেখাদেখি লাভের আশায় পানিফল চাষে ঝুকছেন-কৃষকেরা। প্রতিকেজি ফল স্থানীয় বাজারগুলোতে বিক্রি হয় ৩০ থেকে ৪০টাকা। বিঘায় ফলে আড়াই টন ফল। খরচ ও সময় কম লাগায় এফল চাষ এলাকার চাষীদের মধ্যে পানি ফল চাষে আগ্রহ বাড়ছে। ফল ও বীজ বিক্রি করে অধিক লাভের আশা চাষীর।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সৌতম কুমার শীল বলেন, বেনাপোলে প্রথম বানিজ্যিকভাবে হয়েছে পানিফল চাষ। ফলন ও লাভ বেশী হওয়ায় অনেকে ঝুকছেন এ ফল চাষে। প্রশিক্ষণ পরামর্শ ও সহযোগিতা দিচ্ছেন কৃষি বিভাগ।