মারপিটের মামলায় কারাগারে আশাশুনির রমজান


প্রকাশিত : সেপ্টেম্বর ২২, ২০১৯ ||

নিজস্ব প্রতিনিধি: মারপিটের মামলায় জামিন নিতে গিয়ে জেল হাজতে গেলেন আশাশুনির একাধিক মামলার আসামী কাপসন্ডা গ্রামের সুন্দর মোড়লের পুত্র রমজানসহ তার দুই সহযোগী। সহযোগীরা হলেন আমিনুদ্দীনের পুত্র খোকা ও জোনাব আলীর পুত্র আব্দুস সাত্তার। রোববার সাতক্ষীরা জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক তাদের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে প্রেরণ করেন।
গত ২২ আগস্ট সকালে চেউটিয়া গ্রামের কবির উদ্দীন ও তার ভাই মিলন মটরসাইকেল যোগে সাতক্ষীরা যাওয়ার পথে কাপসন্ডা গ্রামে পৌছালে রমজানসহ তার বাহিনী খোকা, সাকিল ও নুরুল্লাহসহ গতিরোধ করে তাদেরকে হত্যার উদ্দেশ্যে বোমা, রামদাসহ ধাওয়া করে। জীবনের ভয়ে পার্শ্ববর্তী সাত্তার গাজীর ঘরের ভিতরে গিয়ে আশ্রয় নিলে রমজান বাহিনী দরজা ভেঙে কবির এবং তার ভাই মিলনকে কুপিয়ে মৃত ভেবে ফেলে রেখে যায়। তাদেরকে সন্ত্রাসীদের কবল থেকে রক্ষা করার জন্য সাত্তার ও সামাদ এগিয়ে আসলে সন্ত্রাসীরা তাদেরকেও একই কায়দায় কুপিয়ে রক্তাক্ত জখম করে ফেলে রেখে যায়। সামাদকে চোখ বরাবর কোপ দিলে তার চোখ নষ্ট হয়ে যায়। স্থানীরা তাদের উদ্ধার করে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে প্রেরণ করেন। আহতদের মধ্যে সামাদ গাজী ও কবির হোসেনকে অবস্থা আশংকাজনক বলে জানিয়েছেন সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক। তবে সামাদ গাজীর অবস্থার বেশি অবনতি হওয়ায় সাতক্ষীরা সদর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাকে খুলনা ২৫০ শয্যা হাসপাতালে প্রেরণ করেছেন। তার অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাকে ঢাকায় বঙ্গবন্ধু মেডিকেলে প্রেরণ করা হয়েছে। এঘটনায় কবিরের ভাই মহসীন হোসেন বাদী হয়ে মামলা রমজানসহ ১৫জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে। যার জি আর ২০৯/১৯। উক্ত মামলায় জামিন আবেদন করে রমজান, তার সহযোগী খোকা ও সাত্তার আদালতে হাজিরা দিলে। বিজ্ঞ বিচারক তাদের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে জেল হাজতে প্রেরণ করেন।