জনগণের ক্ষতি করে ও পথে বসিয়ে কোন কিছু টিকতে পারে না: এমপি রবি


প্রকাশিত : সেপ্টেম্বর ২৫, ২০১৯ ||

নিজস্ব প্রতিনিধি: সাতক্ষীরা পৌরসভার প্রাণসায়ের ব্যবসায়ী সমিতির উদ্যোগে উন্মুক্ত আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার সন্ধ্যা ৭টায় শহরের কামালনগর তুফান কনভেনশন সেন্টার এন্ড রিসোর্টের যমুনা হলে সাতক্ষীরা পৌরসভার প্রাণসায়ের ব্যবসায়ী সমিতির আহবায়ক গৌর দত্ত’র সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন সাতক্ষীরা-২ আসনের সংসদ সদস্য মীর মোস্তাক আহমেদ রবি। এসময় তিনি বলেন, ‘মানবিক দিক বিবেচনা করে সিদ্ধান্ত নিয়ে কাজ করতে হবে। আমি ছাত্রলীগের রাজনীতি করার সময় থেকে সুন্দর সাতক্ষীরার স্বপ্ন দেখি। দেশ ও জনগণের কল্যাণে কাজ করা প্রতিটি জনপ্রতিনিধির মূল লক্ষ্য। জনগণের ক্ষতি করে ও পথে বসিয়ে কোন কিছু টিকতে পারেনা। ক্লিন সাতক্ষীরা গ্রীন সাতক্ষীরা গড়ার লক্ষ্যে সরকারি যে পদক্ষেপ আমরা নিয়েছি তাতে কোন অবৈধ স্থাপনা থাকবে না। তার অর্থ এই নয়, পৌরসভার লীজকৃত দোকানপাট ভেঙে দেওয়া হবে। ব্যবসায়ীদের কথাও ভাবতে হবে। সব কিছু আলোচনার মাধ্যমে সমাধান করতে হবে।’
বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক শেখ সাহিদ উদ্দীন, জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি শেখ আজহার হোসেন, সাধারণ সম্পাদক আশরাফুজ্জামান আশু, সমাজসেবক ডা. আবুল কালাম বাবলা, জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক শেখ হারুন উর রশিদ, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহাম্মদ আবু সায়ীদ, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জ্যোৎ¯œা আরা, জেলা বঙ্গবন্ধু পরিষদের সভাপতি মকসুমুল হাকিম, সাতক্ষীরা পৌরসভার প্রাণসায়ের ব্যবসায়ী সমিতির সদস্য সচিব মো. জাকির হোসেন লস্কর শেলী, জাসদ নেতা ওবায়দুস সুলতান বাবলু, দৈনিক আজকের সাতক্ষীরা পত্রিকার সহ-সম্পাদক শেখ তহিদুর রহমান ডাবলু, ভোমরা স্থলবন্দর ব্যবহারকারী এসোসিয়েশনের আহবায়ক শেখ এজাজ আহমেদ স্বপন, সাবেক সদর উপজেলা কমান্ডার মো. হাসানুল ইসলাম প্রমুখ।
এসময় ব্যবসায়ীরা বলেন, আমাদের দোকান খালের জায়গায় নেই। আমরা চার শতাধিক ব্যবসায়ী তিন পুরুষের বেশি সময় ধরে সাবেক জমিদার প্রাণনাথ বাবুর দান করা সাতক্ষীরা পৌরসভার রেকর্ডীয় সম্পত্তি লীজ নিয়ে ব্যবসা পরিচালনা করে আসছি। যার মাধ্যমে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে প্রায় চল্লিশ হাজার মানুষের জীবন জীবিকা নির্বাহ করে। আমরা চার শতাধিক ব্যবসায়ী আমাদের ন্যায্য দাবীর কথা সাতক্ষীরাবাসী দলমত নির্বিশেষে সকলের কাছে তুলে ধরার জন্য এই উন্মুক্ত আলোচনা। সাতক্ষীরা নিউ মার্কেট ১১তলা ভবন তৈরীর লক্ষ্যে ভাঙা হয়েছিল। যা এক বছর অতিবাহিত হলেও নিউ মার্কেট তৈরীর কাজ আজও শুরু হয়নি। ব্যবসায়ীরা আজ ব্যাংক ডিফোল্ডার হয়ে বেকার হয়ে পথে পথে ঘুরছে। ক্লিন সাতক্ষীরা গ্রীন সাতক্ষীরার নামে আমাদের দোকান ভেঙে ফেললে সাতক্ষীরায় আরো অনেক মানুষ পথে বসবে এবং বেকার হয়ে পড়বে। জননেত্রী শেখ হাসিনা জনগণের বাড়ি ঘর ভেঙে কোন ক্ষতি হোক এমন কাজ করতে নিষেধ করেছেন। আমাদের পূণর্বাসন না করে দোকান ভাঙলে আমরা আন্দোলনে নামবো।’ আলোচনা সভায় ব্যবসায়ীদের চোখের পানিতে কান্নাজড়িত কণ্ঠে তাদের অভিব্যক্তি প্রকাশ করেন। সাতক্ষীরা পৌরসভার প্রাণসায়ের ব্যবসায়ী সমিতির অন্তভূক্ত দোকান মালিক ও শ্রমিকরা উপস্থিত ছিলেন। সমগ্র অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সাতক্ষীরা পৌরসভার প্রাণসায়ের ব্যবসায়ী সমিতির সদস্য সচিব মো. জাকির হোসেন লস্কর শেলী।