বেনাপোলে সুগন্ধী ১১জাতের সীডলেস লেবুচাষে আনোয়ারের সাফল্য


প্রকাশিত : September 27, 2019 ||

এমএ রহিম, বেনাপোল (যশোর): বেকার যুবক বেনাপোল পোড়াবাড়ি নারানপুর গ্রামের আনোয়ার হোসেন। স্বল্প সময়ে অল্প খরচে সুগন্ধী ১১জাতের সীডলেস (বীজহীন) লেবু ও কলম চারার বানিজ্যিক চাষে অভূতপূর্ব সাফল্য দেখিয়েছেন তিনি। মাত্র ৩ বিঘা জমিতে দেশি বিদেশী উন্নত জাতের এসব লেবু বাগানে তিনি মান সম্মত চারা (কলম) তৈরী করে তা ছড়িয়ে দিচ্ছেন দেশের বিভিন্ন এলাকায়। তার সাফল্য দেখে এলাকার অনেকেই এখন ঝুঁকছেন সুগন্ধী জাতের এ লেবু চাষে। বাড়ছে চাষ লাভবান হচ্ছে চাষী ও ব্যবসায়ী।
কৃষি বিভাগের তথ্যমতে, বাংলাদেশে কাগজি লেবু, পাতি লেবু, বাতাবি লেবুসহ হরেক রকমের লেবু চাষ হয়ে থাকে। তবে সম্প্রতি উন্নত জাতের সীডলেস (বিজহীন) সুগন্ধী পাতলা আবরণ প্রচুর রসযুক্ত এ লেবু চাষে বেশ সাড়া ফেলেছে পোড়াবাড়ি নারানপুর গ্রামের ইউছুপ আলীর ছেলে আনোয়ারা হোসেন। বিএডিসি উদ্যান উন্নয়ন কেন্দ্র যশোরের সহায়তায় এবং ভারতের বিভিন্ন প্রদেশ থেকে সংগ্রহ করেন, কুনকান আর্লি, চিরলেস, মাদ্রাজি, বাতাবি, লেমন এলাচি জাতের দুই বছর আগে মাত্র এক বিঘা জমিতে এ লেবুর চাষ করেন। বর্তমান তিনি ৩বিঘা জমির লেবু বিক্রির পাশাপাশি উন্নত মানের লেবুর কলম বিক্রি করে ভাগ্যে বদলে ফেলেছেন। চলতি মৌসুমে তিনি এক বিঘা জমিতে এক লাখ টাকার লেবু ও আড়াই লাখ টাকার লেবুর গুটি কলম চারা তৈরী করে তা বিক্রি করে বেশ লাভবান হয়েছেন বলে জানান সৌখিন চাষী আনোয়ার হোসেন।
তিনি আরো জানান, প্রতিটি লেবু গাছে বাছাই করা নির্দিষ্ট ডালে বিশেষ পদ্ধতিতে রুটহর্মণ অর্থাৎ বীজ গজানো হর্মন লাগিয়ে তৈরী করা হচ্ছে গাছের গুটি কলম চারা। উৎপাদিত এসব কলম চারা স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে চলে যাচ্ছে দেশের বিভিন্ন জেলাতে।বাড়ছে চাষ লাভবান হচ্ছে চাষী। অন লাইনেও হচ্ছে বেচাকেনা। কুরিয়ার সার্ভিসে এসব কলম পাঠানো হচ্ছে বিভিন্ন স্থানে। তার দাবী সরকারি পৃষ্টপোষকতা পেলে দেশের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশেও রপ্তানি করা সম্ভব সুমিষ্ট এসব লেবু ও চারা।
চাষী ও ব্যবসায়ীরা জানান, কৃষক আনোয়ার হোসেনের দেখাদেখি অনেকেই এখন এ লেবু চাষের প্রতি আগ্রহী হচ্ছেন। তার সাফল্য দেখে প্রতিদিন লেবুর কলম চারা কিনতে বিভিন্ন এলাকার চাষিরা ছুঁটে আসছেন এই বাগানে। তার বাগানে কাজ করে অনেকে হচ্ছেন উপকৃত। লেবু চাষে সাড়া ফেলেছে এলাকায়।
শার্শা কৃষি কর্মকর্তা সৌতম কুমার শীল জানান, মাঠে নয় ছাদেও লাগানো যায় এ লেবু। মানসম্মত লেবুর কলম চারা উৎপাদনে কৃষককে প্রশিক্ষণসহ নানা কারিগরি সহায়তা দেয়া হচ্ছে। অন্যান্য ফসলের চেয়ে লাভজনক হওয়ায় আগামীতে জেলার অন্যান্য এলাকায় সুগন্ধী জাতের এ লেবু চাষের সংখ্যা বাড়বে বলে আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা।