ইমামদের সন্ত্রাস জঙ্গিবাদ ও মাদক বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে: শ্রম প্রতিমন্ত্রী


প্রকাশিত : September 29, 2019 ||

শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান বলেছেন, সরকার ইমাম ও মুয়াজ্জিনদের সকল সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধি করেছে। ইমামদের কল্যাণে সরকার ইমাম কল্যাণ ট্রাস্ট গঠন করছে। দেশের সকল উপজেলাতে একটি করে মডেল মসজিদ নির্মাণ করা হচ্ছে।

তিনি রবিবার দুপুরে খুলনা ইমাম প্রশিক্ষণ একাডেমি মিলনায়তনে সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও মাদকের বিরুদ্ধে গণসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষে আলোচনা সভা ও নিয়মিত ৯৮০তম দলের প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ইমামদের মাঝে সনদপত্র বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, সরকার কওমী মাদ্রাসাকে স্বীকৃতি দিয়েছে। ইমামরা হচ্ছেন সমাজের নেতা।  কুরআনের পথই সুনির্দিষ্ট পথ। ইসলামের অপব্যাখ্যায় যাতে কেউ বিশৃঙ্খলা, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদে লিপ্ত না হয় সেজন্য সাধারণ মানুষকে সচেতন করতে হবে ইমামদের। ইসলামের বিপক্ষে কোন কাজ করেনি এই সরকার। তিনি বলেন, ইমামরা এখান থেকে প্রশিক্ষণ নিয়ে হাঁস, মুরগি, গরু, ছাগল ও সবজি চাষ করে নিজে স্বাবলম্বী হওয়া সম্ভব। এজন্য সরকার ব্যাংক থেকে ঋণের ব্যবস্থা করবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশকে একটি ধারায় নিয়ে গেছেন। আমরা আগামী প্রজন্মের কাছে সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, মাদক ও দুর্নীতিমুক্ত বাংলাদেশ রেখে যেতে চাই। এজন্য সকল ইমামদের সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও মাদক বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে। সরকার সন্ত্রাস, মাদক, জঙ্গিবাদ ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি ঘোষণা করেছে। তিনি বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে প্রধানমন্ত্রীর হাতকে শক্তিশালী করতে যার যার অবস্থান থেকে কাজ করার আহবান জানান।

খুলনার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) জিয়াউর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বাগত জানান খুলনা ইসলামিক ফাউন্ডেশনের বিভাগীয় পরিচালক শাহীন বিন জামান। অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন খালিশপুর থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি একেএম সানাউল্লাহ নান্নু, কেসিসির প্যানেল মেয়র এডভোকেট মেমোরি সুফিয়া রহমান শুনু, মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. আশরাফুল ইসলাম প্রমুখ।

পরে প্রতিমন্ত্রী খুলনা বিভাগের ৮টি জেলা এবং ঢাকা বিভাগের ২টি জেলার প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত একশ তিনজন ইমামের মাঝে সনদপত্র বিতরণ করেন। তথ্য বিবরণী