তালায় ১৮৭টি মন্ডপে শুরু হচ্ছে শারদীয় দুর্গাপূজা


প্রকাশিত : অক্টোবর ২, ২০১৯ ||

মো. মুজিবুর রহমান, পাটকেলঘাটা: হিন্দু ধর্মালম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা শুক্রবার মহা ষষ্টী। আজ বৃহস্পতিবার মা দুর্গাদেবীর বোঁধন, আমন্ত্রণ ও অধিবাসের মাধ্যমে ঢাক-ঢোল, কাঁশি, বাঁশি বাজিয়ে মন্ডপগুলিতে পূজা শুরু করবে। শাস্ত্রীয় পন্ডিতরা বলছেন, ৩ অক্টোবর বৃহম্পতিবার মহা পঞ্চমীর মধ্যদিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হবে দুর্গোৎসব। এবার দেবী মায়ের আগমন ঘোটকে। ঘোড়ায় এই গমন মোটেও ভালো ফল নয় বলে দাবী শাস্ত্রযজ্ঞদের। মা নিয়ে আসবেন সৃষ্টির সমস্ত সুখ, সমৃদ্ধি আর দূর করবেন যাবতীয় অন্যায় ও অত্যাচার।

পূজার প্রথম দিন থেকে মন্ডপে মন্ডপে ঢাক-ঢোল, কাঁশি, বাঁশি আর উলুধ্বনিতে মুখরিত হবে আকাশ-বাতাস। পূজা মন্ডপগুলো সাজানো হয়ছে নতুন নতুন সাজে। আলোকজ সজ্জ্বায় সজ্জ্বিত করা হয়েছে প্রতিটি মন্ডপ। এদিকে আসন্ন দুর্গোৎসবকে ঘিরে তালা উপজেলার জনপদে আনন্দের হিমেল হাওয়া বইতে শুরু করেছে। দুর্গা উৎসব পালনে অনেকে নতুন জামা-কাপড়সহ ঘরের প্রয়োজনীয় যাবতীয় জিনিসের কেনা-কাটা করেছে। পারকুমিরা হরিসভা পূজা মন্ডপের পুরোহিত বিশ্বজিৎ চক্রবর্তী ও প্রতিমা শিল্পীরা জানান, সময় যেহেতু আর নেই তাই সকাল থেকে রাত পর্যন্ত অবিরাম কাজ করে চলেছেন তারা। তাছাড়া নিখূঁত মূর্তি তৈরীতে করণীয় সব রকম উপকরণ ব্যবহার করা হয়েছে। পরিবারের অন্যরাও এ কাজে তাদের সহযোগিতা করছেন। দুর্গাপূজাকে সামনে রেখে প্রতিমার মাটির কাজ শেষে রং তুলির আঁচরে প্রতিমাগুলো জীবন্ত করে তুলছেন তারা। এসব প্রতিমার কাজগুলো ষষ্ঠির আগে শেষ করতে হবে। জেলা হিন্দু বৌদ্ধ খ্রীষ্ট্রান ঐক্য পরিষদের সভাপতি বিশ্বজিৎ সাধু জানান, প্রতিবছরের ন্যায় এবারও দর্শকদের মন আকর্ষণের জন্য পূজা মন্ডপগুলিকে  ভিন্ন আঙ্গীকে সাজানো হয়েছে। দর্শণার্থীদের দেখার জন্য পূজা মন্ডপে সার্বিক নিরাপত্তা বিধান করা হয়েছে। ইতোমধ্যেই আইনশঙ্খলা বাহিনী নিরাপত্তা বিধানে সার্বক্ষণিক সচেষ্ট আছে। ২০জনকে স্বেচ্ছাসেবক বানিয়ে তাদের পরিচিতির জন্য নির্দিষ্ট ব্যাজ প্রদান করা হয়েছে। তারা সার্বক্ষণিক পূজা মন্দির প্রাঙ্গণ তদারকি করবেন। যাতে কোনভাবে অপ্রীতিকর ঘটনা কেউ ঘটাতে না পারে। উপজেলা চেয়ারম্যান ও পূজা উদযাপন কমিটির সভাপতি ঘোষ সনৎ কুমার জানান, সমগ্র উপজেলায় শান্তিপূর্ণভাবে পূজা অনুষ্ঠান পালনের জন্য নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করা হয়েছে। উপজেলার ১৮৭টি পূজা  মন্ডপের অনুকূলে সরকারিভাবে ৯৩.৫ মেট্রিক টন চাল বিতরণ করা হবে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানা যায়, প্রতি বছরই সার্বজনীনভাবে দুর্গোৎসব উদযাপন করা হয়। সকল ধর্মের মানুষের অংশগ্রহণে এ উৎসব প্রাণের উৎসবে রূপ নেয়। তাই সব ধরনের বিশৃঙ্খলা এড়িয়ে দুর্গাপূজাকে শান্তিপূর্ণ করতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে নেয়া হয়েছে বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা। প্রতিমা তৈরি থেকে ৮ অক্টোবর বিসর্জন পর্যন্ত এ ব্যবস্থা বলবৎ থাকবে। এ ছাড়া প্রতিটি পূজামন্ডপের পূজা কমিটি নেতাদের সাথে মতবিনিময় শেষে এ ব্যাপারে বিশেষ নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।