তালা শিক্ষা অফিস থেকে বাদ পড়েছে কয়েক শ’ শিক্ষক


প্রকাশিত : অক্টোবর ৪, ২০১৯ ||

ইলিয়াস হোসেন, তালা (সদর): তালায় শিক্ষা অফিসের খামখেয়ালীপনায় অধিগ্রহণকৃত সহকারী শিক্ষকদের পদোন্নতিতে মানা হচ্ছেনা ২০১৩ সালের প্রজ্ঞাপনের বিধিমালা। প্রতিকার চেয়ে উপজেলা শিক্ষা অফিসার বরাবর লিখিত আবেদন করা হয়েছে।

লিখিত আবেদনে অধিগ্রহনকৃত সহকারী শিক্ষকগণ বলেন, ১৫-৯-২০১৯ তারিখে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর স্বারক নং সুত্র ৩৮.০১.০০০০.৪০০.১২.০২১.২০১৭-৮২/৬৪ মতে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষকগণের সন্মিলিত পূর্ণাঙ্গ জ্যেষ্ঠতা তালিকাসহ হালনাগাদ তথ্যাদি প্রেরণ করার জন্য। যা ২০১৩ সালের রাষ্ট্রপতির পক্ষে উপ-সচিব মোহাম্মদ আবুল কালাম স্বাক্ষরিত বাংলাদেশ গেজেট রেজিস্টার্ড নং ডিএ-১ বৃহস্পতিবার ০১আগস্ট ২০১৩ এর বিধিমালায় ২এর গ এবং ৯ এ উল্লেখ্য আছে। উল্লেখিত আদেশ অনুযায়ী অধিগ্রহনকৃত সহকারী শিক্ষকগণ যোগদানের পর হতে ২০১২ সাল পর্যন্ত চাকুরী ৫০% কার্যকাল গণনা করা হবে এবং ২০১২ সালের পর সকল চাকরি হিসাব করে জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে গ্রেডেশান বা পদোন্নরি তালিকা প্রেরণ করতে হবে। কিন্তু উপজেলা শিক্ষা অফিস সুত্রে জানা যায়, জেলা শিক্ষা অফিসার কর্তৃক মৌখিকভাবে পুরাতন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকদের তালিকা হালনাগাদ করে পাঠানোর জন্য আদেশ দিয়েছেন। সেই হিসেবে ২০১৩ সালের বিধিমালা না মেনে অধিগ্রহণকৃত সহকারী শিক্ষকদের বাদ দিয়ে পূর্ণাঙ্গ গ্রেডেশান তালিকা প্রস্তুত করা হয়েছে। এমন আদেশে প্রায় ৩ শত অধিগ্রহনকৃত সহকারী শিক্ষক পদোন্নতি হতে বঞ্চিত হওয়ার আশঙ্কায় রয়েছেন। শিক্ষকগণ আরও বলেন, জেলা শিক্ষা অফিসারের মৌখিক আদেশ কার্যকরী হলে, স্বল্পচাকরির শিক্ষকগণ পদোন্নতি হতে বঞ্চিত হওয়ার আশঙ্কায় হতাশায় ভুগছেন। এ ছাড়া প্রতিটি বিদ্যালয়ে আরও একজন করে সহকারী প্রধান শিক্ষকদের পদ বৃদ্ধি করা হবে বলে জানা যায়। এমন অবস্থা সৃষ্টি হলে আমরা সহকারী প্রধান শিক্ষকদের পদ হতেও বঞ্চিত হবো। বঞ্চিত শিক্ষকরা আরও বলেন, অতি গোপনে অধিগ্রহণকৃত শিক্ষকদের বাদ দিয়ে জ্যেষ্টতা তালিকা তৈরী করা হয়েছে বলে মনে হচ্ছে।

এমতবস্থায় আবেদনকৃত সহকারী শিক্ষকগণের দাবী, ২০১৩ সালের বিধিমালার মেনে গ্রেডেশান অনুযায়ী পূর্ণাঙ্গ (পদোন্নতির তালিকা) প্রেরণের জন্য সংশ্লিষ্ট শিক্ষা বিভাগের কর্মকর্তাসহ মহাপরিচালকের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

এ বিষয়ে, তালা উপজেলা শিক্ষা অফিসার শেখ মোস্তাফিজুর রহমান তার দায়িত্ব এড়িয়ে দিয়ে বলেন, শিক্ষকগণকে বলেন, আগামী রবিবার জেলা শিক্ষা অফিসারের সাথে কথা বলার জন্য।