আশাশুনিতে লিগ্যাল এইড’র কর্মশালায় শেখ মফিজুর রহমান: বিচারহীনতার সংস্কৃতি থেকে বেরিয়ে আসছে বাংলাদেশ (ভিডিও)


প্রকাশিত : অক্টোবর ১৯, ২০১৯ ||

বদিউজ্জামান: জেলা লিগ্যাল এইড কমিটির চেয়ারম্যান জেলা ও দায়রা জজ শেখ মফিজুর রহমান বলেছেন, বিচারহীনতার সংস্কৃতি থেকে বেরিয়ে আসছে বাংলাদেশ। এখন আর দরিদ্র মানুষ অর্থের অভাবে আইনি অধিকার পাওয়া থেকে বঞ্চিত হচ্ছেনা। সরকার লিগ্যাল এইড’র মাধ্যমে বিনা খরচে তাদেরকে আইনি সহায়তা, আইনগত পরামর্শ এবং আপোষ-মিমাংসার মাধ্যমে বিরোধ নিষ্পত্তিতে সহযোগিতা করছে। তিনি আরও বলেন, এ জেলার প্রত্যান্ত অঞ্চলের অসহায়-দরিদ্র খেটে খাওয়া সাধারণ মানুষ যাতে বিনা মূল্যে আইনি সেবা পেতে পারে সেজন্য সাতক্ষীরা চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত ভবনের তৃতীয়তলার ৩১১ নম্বর রুম থেকে লিগ্যাল এইড এর সেবা দেওয়া হয়ে থাকে।

তিনি গতকাল বেলা ১১টায় আশাশুনির নাকতাড়া সরকারি প্রাইমারি স্কুল মাঠে জেলা লিগ্যাল এইড কমিটির আয়োজনে এবং শ্রীউলা ইউনিয়ন লিগ্যাল এইড কমিটির সহযোগিতায় জেলা লিগ্যাল এইড কমিটির সাথে ইউনিয়ন লিগ্যাল এইড কমিটির আইনগত সহায়তা প্রদান বিষয়ক বিশাল কর্মশালায় সহ¯্রাধীক জনতার উপস্থিতিতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

শীউলা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবু হেনা সাকিলের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত কর্মশালায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন, উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. অরুন কুমার ব্যানার্জী, আইনজীবী সমিতির সভাপতি এম শাহ আলম, পিপি এড. আব্দুল লতিফ, জিপি এড. শম্ভু নাথ সিংহ, আশাশুনি উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান অসিম বরণ চক্রবর্তী এবং ওসি তদন্ত ইমারত হোসেন।

কর্মশালায় প্রধান অতিথি জেলা ও দায়রা জজ শেখ মফিজুর রহমান আরও বলেন, সময় এসেছে অপরাধীদের প্রতিহত করার, যতবড় সন্ত্রাসী হোক আপনি দরিদ্র এবং অসহায় বলে আর আপনাকে দাবিয়ে রাখতে পারবেনা, কারণ সরকার রয়েছে আপনার সাথে এবং লিগ্যাল এইড অফিস দেবে আপনাকে বিনা মূল্যে আইনি সহায়তা। তিনি উপস্থিত হাজারো জনতার উদ্দেশ্যে আরও বলেন, আপনি বাদী হোন আর আসামী হোন, আপনি যদি দরিদ্র হয়ে থাকেন- লিগ্যাল এইড অফিস আপনাকে মামলা চালানোর খরচ দেবে।

কর্মশালায় উন্মুক্ত আলোচনা পর্বে সাধারণ জনগনের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন জেলা ও দায়রা জজ শেখ মফিজুর রহমান। এ সময় তিনি লিগ্যাল এইড কি, কোথায় কার কাছে গেলে দরিদ্র মানুষ লিগ্যাল এইড এর সেবা পাবে এবং লিগ্যাল এইড অফিসে কেবল মামলা নয়, সেখানে যে আপোষও হয়, আইনি পরামর্শও দেওয়া হয় সে সব ব্যাপারেও উপস্থিত সকলকে অবহীত করেন।

কর্মশালায় লিগ্যাল এইড আইন ২০০০ এর উপর চমৎকার ভাবে সাধারণ আলোচনা করেন এবং সমগ্র কর্মশালাটি সঞ্চালনা করেন, ভারপ্রাপ্ত লিগ্যাল এইড কর্মকর্তা ও জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ইয়াসমিন নাহার।