সাকিবের নিষেধাজ্ঞায় বিশ্বজুড়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া


প্রকাশিত : অক্টোবর ৩০, ২০১৯ ||
স্পোর্টস ডেস্ক:  ম্যাচ পাতানোর প্রস্তাব ফিরিয়ে দিয়েছেন কিন্তু কর্তৃপক্ষকে জানাননি। এ জন্য বিশ্বসেরা ওয়ানডে অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানের এই ছেলেমানুষী বোকামির জন্য আইসিসির দুর্নীতি দমন ইউনিট (আকসু) থেকে দুই বছরের নিষেধাজ্ঞা পেয়েছেন। সাকিবের মতো এত অভিজ্ঞ ক্রিকেটারের এমন ভুলে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সাবেক খেলোয়াড়রা হতভম্ব। এছাড়াও সাকিবের এই শাস্তি রাহুল দ্রাবিড়ের চোখে অল্প দোষে বেশি হয়ে গেছে বলে মনে হলেও ইংল্যান্ডের মাইকেল ভন, নিউজিল্যান্ডের স্কট স্টাইরিসের চোখে তা কম বলে মনে হয়েছে।

হুল দ্রাবিড় তার টুইটার একাউন্টে লিখেছেন, ‘অবিশ্বাস্য! সাকিবের শাস্তিটা বেশি কঠোর হয়ে গেল না? সে কি ম্যাচ ফিক্সিংয়ে জড়িত ছিল? আমার মনে হয়, তার অপরাধ হলো আইসিসি এবং আকসুকে ম্যাচ ফিক্সিংয়ের প্রস্তাব সম্পর্কে জানায়নি। এজন্য দুই বছরের নিষেধাজ্ঞা একটু বেশিই কঠিন হয়ে গেছে। আশা করি আইসিসি তাদের সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা করবে।’

শ্রীলঙ্কার সাবেক ব্যাটসম্যান রাসেল আর্নল্ড মনে করেন আইসিসির উচিত ফিক্সার্সকে খুঁজে বের করা। তিনি বলেন, ‘প্রস্তাব না জানানোতে সাকিবের মতো আরেকজন খেলোয়াড় শাস্তির মুখে পড়েছে।

কিন্তু আসল ফিক্সার্স কে? কে আসলে পেছন থেকে কলকাঠি নাড়ছে?’ এদিকে তিন তিনবার প্রস্তাব পেয়েও সাকিব আকসুকে না জানানো বধিরের মতো কাজ করেছে বলে মনে করেন সাবেক অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটার ডিন জোন্স। এই কিংবদন্তি বলেন, ‘এই ছেলেদের দুর্নীতি প্রতিরোধে কতবার বক্তৃতা দেয়া হয়? আইসিসি ও আকসু কর্তৃপক্ষ প্রতিটা টি-টোয়েন্টি এবং টি-টেন লীগের টুর্নামেন্টের আগে এদের সতর্ক করে। তবুও বধিরের মতো আচরণ?’

মাইকেল ভন বলেন, ‘সাকিব আল হাসানের জন্য কোনো দয়া দেখানোর সুযোগ নেই। সে যেই হোক। বর্তমান সময়ের খেলোয়াড়দের সব সময়ই জানানো হয় যে, তারা কি করতে পারবে আর কি করতে পারবে না। কোন বিষয়ে সরাসরি রিপোর্ট করতে হবে, সেটাও বলে দেয়া হয়। দুই বছর একেবারেই যথেষ্ট নয়। অবশ্যই আরও লম্বা শাস্তি প্রয়োজন ছিল।’ নিউজিল্যান্ডের সাবেক অলরাউন্ডার স্কট স্টাইরিসও ভনের সুরে সুর মিলিয়ে বলেন, ‘এক বছর কমিয়ে দেয়া হলো? কেন? কমপক্ষে দুই বছরের জন্য বিদায় বলা দরকার ছিল।’ পাকিস্তানের সাবেক ক্রিকেটার রমিজ রাজা সাকিবকে কিঞ্চিৎ খোঁচার সুরে বলেন, ‘সাকিব আল হাসানের এই নিষেধাজ্ঞা ক্রীড়াপ্রেমী এবং খেলোয়াড় সকলের জন্য একটা শিক্ষা। যদি আপনি খেলাটাকে অসম্মান করেন এবং আরোপিত নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে খেলাটার চেয়ে নিজেকে বড় করার চেষ্টা করেন, তবে চমৎকার একটি পতনের জন্য তৈরি থাকুন।’ ভারতের ক্রীড়া বিশ্লেষক হর্ষ ভোগলে সাকিবের আচরণে হতভম্ব যেমন হয়েছেন আবার তাকে সৌভাগ্যবান বলে দাবি করেন। শীঘ্রই আবার মাঠে সাকিবকে দেখতে পাবেন সে আশা রেখে তিনি বলেন, ‘তিন-তিনবার প্রস্তাব পেয়েও সাকিব গোপন রেখেছে যা সত্যিই আশ্চর্য্যজনক। তবে আমি তাকে সৌভাগ্যবানই বলবো। কারণ, তার এক বছরের শাস্তি স্থগিত করা হয়েছে। তাই সে এক বছর পরেই মাঠে ফিরতে পারবে। আমি তার খেলা সবসময়ই উপভোগ করেছি। তাই আশা করি সে বর্তমান অবস্থা কাটিয়ে আবারও ক্রিকেট মাঠে ফিরবে এবং মাঠে নিজের মূল্যটা দেখিয়ে দেবে।’