মিষ্টি খাওয়ার জন্যই যেতে পারেন এসব জেলায়

অনলাইন ডেস্ক:  অনেকে মিষ্টি বেশ পছন্দ করেন, আবার কেউ কেউ মিষ্টি দেখলে ‍মুখ ফিরিয়ে নেন। কিন্তু দেশের বিভিন্ন জেলায় এমন কিছু বিখ্যাত মিষ্টি আছে, যেগুলো চেখে দেখতে ভুল করেন না কেউই। অনেকে তো শুধু মিষ্টি খেতেই পাড়ি দেন বিভিন্ন জায়গায়। এমনই ২১টি জনপ্রিয় মিষ্টির খোঁজ জানানো হলো এই আয়োজনে। চার পর্বের দ্বিতীয় পর্ব রইলো আজ-

প্রথম পর্ব: দেশের জনপ্রিয় ২১ মিষ্টি, যা একবার হলেও খাওয়া উচিত

কুমিল্লার রসমালাই

কুমিল্লার রসমালাই

কুমিল্লার রসমালাই

কুমিল্লার বিখ্যাত খাবার মানেই রসমালাই। স্বাদে, গন্ধে ও মানে খাঁটি হওয়ায় দেশের পূর্বাঞ্চলের মানুষ ভরসা করে আসছে যুগ যুগ ধরে। জানা যায়, উনিশ শতকের প্রথম দিকে কুমিল্লার ঘোষ সম্প্রদায় দুধ ঘন করে ক্ষীর বানিয়ে তাতে ছোট আকারের শুকনো ভোগ বা রসগোল্লা ভিজিয়ে যে মিষ্টান্ন তৈরি করে তা ক্ষীরভোগ নামে পরিচিতি পায়। ক্রমান্বয়ে তা রসমালাই নামে পরিচিত হয়ে উঠে। প্রতি কেজি রসমালাইয়ের বিক্রি হয় ২৬০ টাকা।

কুমিল্লায় কোনো পর্যটক বা অতিথি এলে রসমালাইয়ের স্বাদ নেননি এমন ঘটনা বিরল। তবে আসল রসমালাইয়ের স্বাদ পেতে চাইলে পেতে হবে আসল পণ্য। কারণ কুমিল্লা শহরকে ঘিরে নকল রসমালাইয়ের অসংখ্য দোকান গড়ে ওঠায় আসল যে রসমালাই তার স্বাদ অনেকেই পান না। কুমিল্লা শহরের মনোহরপুরের কুমিল্লা মাতৃভান্ডার নামের একটি প্রতিষ্ঠানে আসল রসমালাই পাওয়া যায়। সেখান থেকেই অমৃত এই রসমলাই যাত্রা শুরু করেছিল।

 

সন্দেশ

সন্দেশ

সাতক্ষীরার সন্দেশ

খাঁটি দুধের ছানা দিয়ে তৈরি এক ধরণের সুস্বাদু মিষ্টি সন্দেশ। যিনি এক বার সাতক্ষীরার সন্দেশ খেয়েছেন তিনি কখনোই ভুলতে পারবেন না। এ কারণেই সাতক্ষীরার বিখ্যাত সন্দেশের কদর এখন দেশের মাটি ছাড়িয়ে বিদেশেও। খাঁটি দুধের খাটি ছানার সঙ্গে চিনি ও হালকা ময়দা জ্বালিয়ে এ সন্দেশ তৈরি করা হয়।

বর্তমানে ফকির মিষ্টান্ন ভাণ্ডার, মিষ্টি মুখ, সাগরের সন্দেশ, জয়গুণ মিষ্টান্ন ভাণ্ডার, হালিমা হোটেল, সুশীল, সাহা ও নুর সুইটসে উৎপাদিত হয় এই সন্দেশ। কিছু দোকান সাম্প্রতিককালে প্রতিষ্ঠিত হলেও এদের কেউ কেউ ব্রিটিশ আমল থেকেই সন্দেশ তৈরি করে আসছে সুনামের সঙ্গে। এই মিষ্টি স্বাদে গুণে যেমন অনন্য তেমনি দামেও সাশ্রয়ী।

 

বালিশ মিষ্টি

বালিশ মিষ্টি

নেত্রকোনার বালিশ মিষ্টি

নেত্রকোনার বিখ্যাত বালিশ মিষ্টি খেয়েছেন? শত বছরেরও বেশি আগে বালিশ মিষ্টির জনক গয়ানাথ ঘোষ বারহাট্টা রোডে গয়ানাথ মিষ্টান্ন ভাণ্ডারে এটি প্রস্তুত করেন। সে সময়ে শুধু তার দোকানেই এই মিষ্টি বিক্রি হতো। অন্য মিষ্টির চেয়ে আকারে বড় এবং দেখতে অনেকটা বালিশের মতো হওয়ায় ক্রেতাদের পরামর্শে গয়ানাথ মিষ্টির নাম রাখেন ‘বালিশ’। অল্পদিনেই অতুলনীয় স্বাদের এ মিষ্টির খ্যাতি চারিদিকে ছড়িয়ে পড়ে।

নেত্রকোনার গয়ানাথ মিষ্টান্ন ভাণ্ডারে আসল বালিশ মিষ্টি পাওয়া যায়। জানা যায়, এই দোকানে সাধারণত ১০ থেকে শুরু ২০০ টাকা পর্যন্ত বিভিন্ন সাইজের বালিশ মিষ্টি তৈরি হয়। ২০০ টাকা মূল্যের বালিশ আকারে ১৩ থেকে ১৪ ইঞ্চি হয়। ওই মিষ্টির ওজন ৮০০ থেকে ১০০০ গ্রাম হয়ে থাকে। এর চেয়ে বেশি ওজনের বালিশও বানানো হয়। তবে তা অর্ডার দিলে তৈরি করা হয়।

তিলের খাজা

তিলের খাজা

কুষ্টিয়ার তিলের খাজা

কুষ্টিয়ার তিলের খাজার নাম শোনেননি দেশে এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া মুশকিল। তিলের খাজা মূলত চিনি জ্বাল করে তার সঙ্গে দুধ মিশিয়ে একটা মন্ডা তৈরি করা হয়। মন্ডা লম্বা করে বিছিয়ে কাটা হয় এবং ওই কাটা অংশে তিলের প্রলেপ লাগিয়ে তা বিক্রি করা হয়। কুষ্টিয়া থেকেই এই খাবারটির উৎপত্তি।

উপাদেয় এবং দামে কম বলে এটি গ্রামে-গঞ্জে, শহর-বন্দরে সবখানে অত্যন্ত জনপ্রিয়। রেলওয়ে স্টেশন, বাসস্ট্যান্ড, ফেরি বা লঞ্চঘাটসহ অলিতে গলিতে রাস্তায় প্রায় সর্বত্রই পাওয়া যায় কুষ্টিয়ার তিলের খাজা। ফেরিওয়ালারা তিলের খাজা ফেরি করে বেড়ায় আনাচে-কানাচে সর্বত্রই। প্রতি প্যাকেট তিলের খাজা পাওয়া যায় দশ থেকে চল্লিশ টাকায়।

সাদেক গোল্লা

সাদেক গোল্লা

যশোরের জামতলার রসগোল্লা

দেশ-বিদেশে সমাদৃত যশোরের জামতলার রসগোল্লা। এটির আরেক নাম সাদেক গোল্লা। দীর্ঘ ৬৩ বছরের ইতিহাস-ঐতিহ্য ধরে রেখে শ্রেষ্ঠত্ব বজায় রেখেছে এই মিষ্টি। যশোর শহর থেকে প্রায় ৩৮ কিলোমিটার দূরের জামতলা বাজারে প্রতিদিন হাজারো মানুষ ছুটে আসেন এই মিষ্টি কেনার উদ্দেশে।

১৯৫৫ সালে চায়ের দোকানদার মরহুম শেখ সাদেক আলী প্রথম এ রসগোল্লা তৈরি করেন। যা জামতলার রসগোল্লা বা সাদেক গোল্লা নামে পরিচিত। বর্তমানে সুনামের সঙ্গে বাবার রেখে যাওয়া এ ব্যবসাটি আঁকড়ে ধরে আছেন তার ছেলেরা। প্রতিদিন তিন থেকে পাঁচ হাজার সাদেক গোল্লা তৈরি করেন কারিগররা। যা দুপুরের আগেই বিক্রি হয়ে যায়। স্থানীয়ভাবে সংগৃহীত দেশি গরুর দুধ, চিনি আর জ্বালানি হিসেবে কাঠ ব্যবহার করা হয় বলে জানায় কারিগররা। প্রতি প্যাকেট ১০০ টাকায় বিক্রি হয়।

ইমরান খানকে পাকিস্তানের সেনাবাহিনীর সমর্থন

অনলাইন ডেস্ক: পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে ক্ষমতা থেকে সরিয়ে দেয়ার আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে তার প্রতি সমর্থন ব্যক্ত করেছে দেশটির সেনাবাহিনী।
পাকিস্তান সেনাবাহিনী মুখপাত্র লেফটেন্যান্ট জেনারেল আসিফ গফুর শনিবার রাওয়ালপিন্ডিতে সেনাবাহিনীর সমর্থনের কথা জানান।

তিনি বলেন, সেনাবাহিনী পাকিস্তানের সংবিধান সমুন্নত রাখতে বদ্ধপরিকর। তারা বিরোধীদের আন্দোলনের মুখে সাংবিধানিকভাবে নির্বাচিত ইমরান খান সরকারকে সমর্থন দিয়ে যাবে।

জেনারেল গফুর বলেন, সেনাবাহিনী তার নিরপেক্ষতা বজায় রাখবে এবং সংবিধান মেনে চলবে। এর আগে চলমান আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে ইমরান খান বলেন, কিছু সরকার বিরোধীর বিক্ষোভের কারণে তার নেতৃত্বাধীন সাংবিধানিক বৈধ সরকারের পতন হবে না। তিনি জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের সরকার বিরোধী বিক্ষোভ ও ধর্মঘটের প্রতি ইঙ্গিত করেন। প্রতিবাদ বিক্ষোভ সত্ত্বেও তাদের সরকার দৈনন্দিন কাজকর্ম চালিয়ে যাবে বলে তিনি জানান।

ইমরান খান বলেন, বিরোধী দলগুলোর সঙ্গে তার সরকার বেশ কিছু বিষয়ে সমঝোতা করেছে। কিন্তু এসব দল যদি সে সমঝোতা মেনে না চলে বা সংবিধান লঙ্ঘন করে বা জাতীয় স্বার্থ জলাঞ্জলি দেয়ার চেষ্টা করে তাহলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী তার দেশকে গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ সম্পন্ন হিসেবে আখ্যায়িত করে বলেন, বিরোধীরা যত খুশি আন্দোলন করতে পারে কিন্তু আইন অমান্য করলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

পদত্যাগ না করলে বিরোধী দলীয় বিক্ষোভকারীরা প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে গ্রেফতার করবেন বলে হুমকি দিয়েছেন পাকিস্তানের রাজনৈতিক দল জমিয়ত-ই-ইসলামের (জেইউআই-এফ) প্রধান মাওলানা ফজলুর রেহমান। তবে অন্য কোনো রাজনৈতিক দল এ ধর্মঘটে যোগ দেয়নি।

তার এ হুমকির পর রোববার ইসলামাবাদে ইমরান খানের বাসভবনে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে বলে দেশটির ইংরেজি দৈনিক এক্সপ্রেস ট্রিবিউন এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে।

নির্বাচনের আগেই বিতর্কে মুখোমুখি হবে বরিস ও করবিন

অনলাইন ডেস্ক: নির্ধারিত সময়ের আগেই আগামী ১২ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ব্রিটেনের সাধারণ নির্বাচন।
২০১৭ সালে সর্বশেষ নির্বাচন হবার পরবর্তী নির্বাচন হওয়ার কথা ছিল ২০২২ সালের ৫ মে। কিন্তু ব্রেক্সিট অচলাবস্থার কারণে পার্লামেন্টে প্রধানমন্ত্রী আগাম নির্বাচনের প্রস্তাব করলে বিপুল ভোটে তা পাস হয়।

প্রধান বিরোধী দল লেবার পার্টি আগে থেকেই চুক্তিহীন ব্রেক্সিট হওয়ার সম্ভবনার প্রেক্ষিতে আগাম নির্বাচনের আহ্বান দিয়েছিলেন। আর এই নির্বাচন নিয়ে ব্রিটেনের রাজনীতিতে চলছে নানা আলোচনা সমালোচনা।

ক্ষমতাসীন কনজার্ভেটিভ পার্টি ও প্রধান বিরোধী দল লেবার পার্টি নির্বাচন উপলক্ষে জনগণের কাছে তাদের নানা প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন।

এদিকে আগামী ১২ ডিসেম্বরের নির্বাচন ঘিরে ব্রিটেনের ইন্ডিপেন্ডেন্ট টেলিভিশন (আইটিভি) চ্যানেল আগামী ১৯ নভেম্বর প্রধানমন্ত্রী ও বিরোধী দলের প্রধানের মুখোমুখি বিতর্কের আয়োজন করেছে।

গত বৃহস্পতিবার প্রধান বিরোধী দল লেবার পার্টির প্রধান জেরেমি করবিন প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনকে মুখোমুখি বিতর্কের চ্যালেঞ্জ জানান।

পরবর্তীতে শুক্রবার জেরেমি করবিনের চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করেন প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। আর এরই পরিপ্রেক্ষিতে আইটিভি ওই বিতর্কের আয়োজন করে।

নির্বাচনের তারিখ ঘোষণার পর প্রথম মুখোমুখি ওই বিতর্কে সঞ্চালকের ভূমিকা পালন করবেন আইটিভির নিউজ প্রেজেন্টার জুলি এচিনঘাম।

বরিস ও করবিনের মুখোমুখি বিতর্কের পরে অনুষ্ঠানটির উপর ভিত্তি করে ওই দিন সন্ধ্যায় লাইভ সাক্ষাৎকারের আয়োজন করবে আইটিভি। সাক্ষাৎকার অনুষ্ঠানে অংশ নেবে কনজার্ভেটিভ পার্টি, লেবার পার্টি, লিবারাল ডেমোক্রেটিক (লিবডেম) পার্টি, ব্রেক্সিট পার্টি, স্কটিশ ন্যাশনাল পার্টি (এসএনপি) ও গ্রিন পার্টির নেতারা।

প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন এক টুইট বার্তায় লেবার লিডার জেরেমি করবিনকে মুখোমুখি বিতর্ককে স্বাগত জানিয়ে বলেন, ব্রেক্সিট বাস্তবায়নের মাধ্যমে আমাদের উচিত জনগণের জন্য এনএইচএস, স্কুল, অপরাধ নিয়ন্ত্রণ ও জীবনমান উন্নয়নে কাজ করা। এসবের মাধ্যমেই দেশের জন্য ইতিবাচক কাজ করে দেশকে এগিয়ে নিতে হবে।

লেবার লিডার জেরেমি করবিনও এক টুইট বার্তায় প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানান ও তার চ্যালেঞ্জকে গ্রহণ করেন।

এদিকে ব্রেক্সিটের বিপক্ষে অবস্থানকারী দল লিবডেমের নেতারা নির্বাচন নিয়ে আইটিভি বিতর্ক অনুষ্ঠানে তাদের দলের প্রতিনিধিকে না রাখায় হতাশা ব্যক্ত করেছে।

এক টুইট বার্তায় লিবডেম জানিয়েছে- ব্রেক্সিটের কারণেই ব্রিটেনে আগাম নির্বাচন হতে যাচ্ছে। আর এ ব্রেক্সিটের বিপক্ষে অবস্থানকারী প্রধান দল হচ্ছে লিবডেম। এ দলের প্রধান জো সুইনসনকে মুখোমুখি বিতর্কের প্রধান অনুষ্ঠানে না রাখা আইটিভির ব্যর্থতা।

সেখানে বলা হয়, ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গে ব্রিটেনকে পাশে রাখার পক্ষে সবচেয়ে শক্তিশালী দল লিবডেম। এই দলের নারী নেত্রীর মুখোমুখি হতে ভয় পাচ্ছেন বরিস জনসন ও জেরেমি করবিন। তাদের সহায়তা করা আইটিভির উচিত নয়।

লিবডেমের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে আইটিভি জানিয়েছে, নির্বাচনী প্রচারণার মধ্যে তারা পরবর্তীতে লিবডেম, এসএনপি, ব্রেক্সিট পার্টি, প্লেইড সাইম্রো পার্টির সিনিয়র নেতাদের নিয়ে বিতর্ক অনুষ্ঠান করবে। ওই বিতর্ক অনুষ্ঠানে কনজার্ভেটিভ পার্টি ও লেবার পার্টির নেতারাও থাকবেন।

আগামী ১২ ডিসেম্বর নির্বাচনের আগে নির্বাচনী প্রচারণার জন্য বাকি আছে আর মাত্র পাঁচ সপ্তাহ। নির্বাচন উপলক্ষে প্রধান দু’দলই তাদের বক্তব্য জনগণের কাছে পৌঁছানোর চেষ্টা করছে।

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন বলেছেন, ব্রেক্সিট এবং দেশের ভবিষ্যত বিষয়ে মতামত দেয়ার অধিকার রয়েছে দেশের জনগণের। তিনি আশা করছেন, বেক্সিট চুক্তি এবং বর্তমান পার্লামেন্টে অচলাবস্থা নিরসনে তাকে নতুন করে ম্যান্ডেট এনে দেবে নির্বাচন, যে ব্রেক্সিটের জন্য ২০২০ সালের ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত এখন সময় পেয়েছে যুক্তরাজ্য।

‘পার্টি হাউজ’ নিষিদ্ধ করলো এয়ারএনবি

অনলাইন ডেস্ক: উত্তর ক্যালিফোর্নিয়ার একটি বাসায় হ্যালোয়েন পার্টিতে গুলিতে পাঁচজন নিহত হওয়ার ঘটনার পর শনিবার ‘পার্টি হাউজ’ কে নিষিদ্ধ করেছে এয়ারবিএনবি আইএনসি।
কর্তৃপক্ষ জানায়, সান ফ্রানসিস্কো থেকে ৩০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত অরিন্ডার ওই বাড়ির পার্টিতে প্রায় ১০০ জনেরও বেশি লোক উপস্থিত ছিল। পুলিশ বৃহস্পতিবার ওই বাড়িটিতে অনুসন্ধান চালায়।

কন্ট্রা কোস্টা শেরিফের অফিস গত শুক্রবার গভীর রাতে জানায়, পার্টিতে আহত হওয়া ১৯ বছর বয়সী এক ভুক্তভোগী হাসপাতালে মারা যাওয়ার পরে মৃতের সংখ্যা বেড়ে পাঁচ জনে দাঁড়ায়।

এয়ারবিএনবি এর মালিক মাইকেল ওয়াং এর বরাত দিয়ে সান ফ্রান্সিসকো জানায়, পার্টির উদ্যোক্তা এয়ারবিএনবি এর মাধ্যমে বাড়িটি ভাড়া নেয়। তিনি আরো বলেন, বাড়িটি ভাড়া নেয়ার সময় বলা হয়- সেখানে মাত্র কয়েকজন লোকের জন্য পুনর্মিলনের আয়োজন করা হবে।

এয়ারএনবি এর সহ-প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী ব্রায়ান চেস্কি টুইটারে জানান, আজ থেকে আমরা ‘পার্টি হাউজ’ নিষিদ্ধ ঘোষণা করছি। তিনি আরো বলেন, অননুমোদিত পার্টিসহ অবমাননাকর উদ্যোক্তাদের ব্যাপারে সচেতন হওয়ার লক্ষ্যে দ্বিগুণ প্রচেষ্টা চালাবো। অরিন্ডাতে ঘটে যাওয়া ঘটনার সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ ঘটনা থেকেও সচেতন থাকবো।

ঐশ্বরিয়াকে নকল আংটি দিয়ে বিয়ের প্রস্তাব দিয়েছিলেন অভিষেক!

অনলাইন ডেস্ক:বলিউডের জনপ্রিয় অভিনেত্রী ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চন গেল শুক্রবার ৪৬ বছরে পা দিয়েছেন। তবে এবার তার জন্মদিনটা কাটিয়েছেন ইতালির রোমে, সেখানে স্বামী অভিষেক ও মেয়ে আরাধ্যাও রয়েছে।
শোনা গেছে, স্ত্রীর জন্মদিনটা এবছর একটু স্পেশাল ভাবেই সেলিব্রেট করছেন অভিষেক। ঐশ্বরিয়া-অভিষেকের সম্পর্কের রসায়নটা যে স্বামী-স্ত্রীর থেকেও বেশি তা নতুন করে না বললেও চলে। তাদের একে অপরের সঙ্গে দেখা হয় ২০০০ সালে ‘ঢাই অক্ষয় প্রেম কে’ ছবির শুটিংয়ে। সেসময় তারা শুধুই বন্ধু ছিলেন। জানা যায়, তাদের প্রেমটা জমেছিল ‘গুরু’ ছবির শুটিংয়ের সময় থেকে।

নিউ ইয়র্কে হয়েছিল এ ছবির দৃশ্যধারণের কাজ। সেসময়ই অভিষেক ঠিক করে ফেলেন ঐশ্বরিয়াকে বিয়ের প্রস্তাব দেবেন। তবে তার জন্য কোনো আংটি কেনা হয়নি। তাই ছবির শুটিংয়ে প্রপোজ হিসাবে ব্যবহার করার জন্য আনা আংটি দিয়েই ঐশ্বরিয়াকে বিয়ের প্রস্তাব দেন অভিষেক। তার প্রস্তাব গ্রহণ করে রাই। ২০০৭ সালে ২০ এপ্রিল সাত পাকে বাঁধা পড়েন দুজনে। ইতিমধ্যেই এক যুগ সংসার করে ফেলেছেন তারা।

এক সাক্ষাৎকারে স্ত্রী ঐশ্বরিয়া সম্পর্কে বলতে গিয়ে অভিষেক বলেন, সকলেই ঐশ্বরিয়ার সৌন্দর্যে মুগ্ধ হন, তবে মানুষ হিসাবে ও আরো সুন্দর। খুবই সাধারণ। ঐশ্বরিয়া একজন আন্তর্জাতিক তারকা, তবে ওর ব্যবহারে ও সেটা কখনোই দেখায় না।

তাহসান-সাবির ‘মেমোরিজ…কল্পতরু’

অনলাইন ডেস্ক:  সম্প্রতি ‘মেমোরিজ…কল্পতরু’ নামের নাটকে অভিনয় করেছেন জনপ্রিয় গায়ক ও অভিনেতা তাহসান খান। এ নাটকে তার বিপরীতে অভিনয় করেছেন শায়লা সাবি। নাটকের গল্প লিখেছেন ফারিয়া কবির আভা আর পরিচালনা করেছেন আলোচিত নির্মাতা মাবরুর রশীদ বান্নাহ।

এই নাটকের গল্প পেতে দুই মাস আগে ফেসবুকে একটি পোষ্ট করেছিলেন তাহসান নিজেই। এরপর বেশ কিছু গল্প থেকে বাছাই করা হয় ফারিয়া কবির আভার গল্পটি। আর এ পুরো প্রক্রিয়াটি করার কারণ নাটকটি ছিলো তাহসানের শততম নাটক।

এ নাটকটির প্রযোজনা করেছেন আকবর হায়দার মুন্না ও সার্বিক তত্ত্বাবধানে মাসুদ উল হাসান। নির্মাতা মাবরুর রশীদ বান্নাহ উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে বলেন, এটি খুবই বিশেষ একটি ব্যাপার। আমি তাহসানের এই সাফল্যের অংশীদার হতে পেরে খুবই খুশি।  ‘মেমোরিজ…কল্পতরু’ দর্শক কীভাবে নেয় সেটিই এখন দেখার পালা।

মুন্না বলেন, তাহসানকে ইচ্ছার কথা বলেছিলাম যে তার ১০০তম নাটক আমি প্রযোজনা করব। তিনি আমাকে নিরাশ করেননি। এমনিতেই অসম্ভব ভালো একজন মানুষ তিনি। আমিও তার দেয়া সম্মান রাখার চেষ্টা করেছি।

নির্মাতা সুত্রে জানা গেছে, শিগগিরই তাহসানের এ নাটকটি  ক্লাব ১১-এর ইউটিউব চ্যানেলে প্রকাশ হবে।

জন্মদিনে এতিমদের সঙ্গে মৌসুমী

অনলাইন ডেস্ক: ঢালিউডের প্রিয়দর্শিনী অভিনেত্রী মৌসুমীর জন্মদিন আজ। জীবনের ৪৬ বছর পেরুচ্ছেন এ অভিনেত্রী। জন্মদিন উপলক্ষে তিনি হাজির হন গাজীপুরের এক এতিমখানায়। সেখানে এতিমদের সঙ্গে জন্মদিনের আনন্দ ভাগাভাগি করে নেন তিনি।

জানা গেছে, সোশ্যাল মিডিয়ার ‘আরিফা পারভিন জামান মৌসুমী ফ্যান ক্লাব’র উদ্যোগে ঢাকার পূবাইলের ‘দিলারটেক সাউতুল হেরা ইসলামিয়া মাদ্রাসা ও এতিমখানা’য় বাচ্চাদের খাবার দেয়া হয় মৌসুমীর তত্ত্বাবধানে। প্রিয়দর্শিনী বাচ্চাদের সঙ্গে সময় কাটান ও হাসি-ঠাট্টায় মেতে ওঠেন।

এদিকে রাত বারোটায় নরসিংদীর একটি হেরিটেজ রিসোর্টে স্বামী ওমর সানী, দুই সন্তান ফারদিন ও ফাইজাকে নিয়ে জন্মদিনের কেক কাটেন মৌসুমী।

মৌসুমী ১৯৯৩ সালে সোহানুর রহমান সোহান পরিচালিত ‘কেয়ামত থেকে কেয়ামত’ সিনেমার মাধ্যমে চলচ্চিত্রে যাত্রা করেন। এখন পর্যন্ত সমানতালে কাজ করে চলেছেন তিনি। ২০০৩ সালে ‘কখনো মেঘ কখনো বৃষ্টি’ পরিচালনার মাধ্যমে পরিচালক হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন। চলচ্চিত্রের পাশাপাশি ছোটপর্দার নাটক ও বিজ্ঞাপনচিত্রেও অভিনয় করেছেন মৌসুমী।