যদি লজ্জা থাকে, আর টুইট করো না


প্রকাশিত : নভেম্বর ৬, ২০১৯ ||

স্পোর্টস ডেস্ক: নিজেদের ক্রিকেট ইতিহাসে বাংলাদেশের কাছে প্রথমবার হারের স্বাদ পেলো ভারত। রোববার দিল্লিতে ৭ উইকেটের বড় ব্যবধানে হেরে যায় রোহিত শর্মার দল। বাংলাদেশের এমন জয়ে ভারতীয় সমর্থকরা রীতিমতো স্তম্ভিত। দুর্বল পারফরম্যান্সের কারণে ভক্তদের সমালোচনার মুখে পড়েছে টিম ইন্ডিয়া। কিন্তু কে জানতো, ভারতের হারের কারণে ট্রলের শিকার হবেন দেশটির সাবেক ওপেনার বিরেন্দর শেবাগ!

বাংলাদেশকে জয়ের বন্দরে পৌঁছানোর মূল নাবিক ছিলেন মুশফিকুর রহিম। সিরিজে এগিয়ে গেলো টাইগাররা। সিরিজ জিততে হলে রাজকোট ও নাগপুরে নিজেদের সর্বোচ্চটা দিতে হবে স্বাগতিকদের।

কিন্তু ভারতের হারে শেবাগকে কেন রোষানলে পড়তে হলো? ঘটনার প্রেক্ষাপট আরো আগে। বাংলাদেশ-ভারত সিরিজের প্রচারণা হিসেবে স্টার স্পোর্টস একটি বিজ্ঞাপন বানিয়েছে যেখানে আছেন শেবাগ। বিজ্ঞাপনটিতে ভারতের সাবেক এ ওপেনার আগে কোন ম্যাচে না জেতায় বাংলাদেশকে ঔদ্ধত্যপূর্ণ ব্যঙ্গ করেছিলেন।

কিন্তু এই বিজ্ঞাপনটি ভালোভাবে নিতে পারেনি ভারতীয় সমর্থকরা। অনেকেই মনে করেন এমন বিজ্ঞাপন দেখাও অপমানজনক। ভারতের হারের পর সমর্থকরা আরও ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে। বিজ্ঞাপনে শেবাগকে বলতে শোনা যায়, ‘এখানেই এত উড়ছে, যদি প্রথমবারের মতো ভারতের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টিতে জিতে যায়, তবে কী করবে কে জানে।’ এতে ভক্তরা আরো বেশি ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে এবং নানাভাবে ট্রলের শিকার হচ্ছেন শেবাগ।

সৌরভ মণ্ডল নামক এক ভক্ত টুইটারে শেবাগকে উদ্দেশ লেখেন, এ ধরনের বিজ্ঞাপন করা বন্ধ করুন। এটা ভারতীয় ক্রিকেটের জন্য অপয়া।

আল নাঈম লেখেন, বাংলাদেশ তো ম্যাচটি জিতে গেলো। এখন আপনি কী করবেন? নাটক নাকি টুইট?

শেবাগ আগে বলেছিলেন, বাংলাদেশ ম্যাচ জিতলে তিনি টুইট করা ছেড়ে দেবেন। আর সেটাকে খোঁচা দিয়ে আদিত্য পারিক লেখেন, ভাই শেবাগ, যেহেতু বাংলাদেশ জিতেছে তাই তোমাকে এখন টুইট করা ছেড়ে দিতে হবে। পুরুষ মানুষ হও এবং ওয়াদা রক্ষা করো। 

আরেক ভক্ত ফাহিম হোসেন শেবাগকে উদ্দেশ করে লেখেন, যদি তোমার লজ্জা থাকে, আর টুইট করো না।