নিরাপদ আশ্রয়ের খোঁজে গাবুরার মানুষ (ভিডিও)


প্রকাশিত : নভেম্বর ৯, ২০১৯ ||

আব্দুল হালিম, বুড়িগোয়ালিনী (শ্যামনগর): ঘুর্ণিঝড় বুলবুলির প্রভাবে শ্যামনগর উপকূলের জনসাধারণকে নিরাপদ আশ্রয় সরিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য বাস গাড়ির ব্যবস্থা করা হয়েছে। মূলত গাবুরার মানুষকে সরিয়ে নিতে এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। তবে সকাল থেকে জোয়ারের কারণে খোলপেটুয়া নদী উত্তাল হওয়ায় কোন মানুষ পারাপার করা সম্ভাব হচ্ছিল না। বেলা ১১টার দিক থেকে শতাধিক মানুষকে উদ্ধার করে আনা হয়েছে। বেলা বাড়ার সাথে সাথে বৃষ্টি ও বাতাসের মাত্রা বাড়তে শুরু করেছে।
এরআগে প্রবল শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাবে সাতক্ষীরার অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরগুলো ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেতের আওতায় থাকবে বলে আবহাওয়া অফিসের সর্বশেষ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।
মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরে ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। এছাড়া চট্টগ্রাম ৯ ও কক্সবাজার ৪ নম্বর সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। শনিবার সকাল পৌনে ৯টার দিকে আবহাওয়াবিদ মো. রুহল কুদ্দুস এ তথ্য জানান। আজ রাতেই এটি বাংলাদেশের খুলনা-সাতক্ষীরা উপকূলে আঘাত হানতে পারে। উপকূলীয় জেলা সাতক্ষীরা, ভোলা, বরগুনা, পটুয়াখালী, বরিশাল, পিরোজপুর, ঝালকাঠি, বাগেরহাট, খুলনা এবং তাদের অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরগুলো ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেতের আওতায় থাকবে। শনিবার (১১ নভেম্বর) সকালে বাংলাদেশের উপকূলের ৪শ কিলোমিটারের মধ্যে প্রবেশ করেছে বুলবুল। ঘূর্ণিঝড়টির গতিপথ দেখে আবহাওয়াবিদরা বলছেন, স্পষ্টত এটি বাংলাদেশের খুলনা উপকূল ও ভারতের পশ্চিমবঙ্গের দিকে অগ্রসর হচ্ছে। ঘূর্ণিঝড়টির গতিবিধি গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। ঘূর্ণিঝড়টির বিষয়ে আবহাওয়ার বিশেষ বুলেটিনে বলা হয়, উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন পশ্চিম-মধ্য বঙ্গোপসাগর এলাকায় অবস্থানরত অতিপ্রবল ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ আরও উত্তর দিকে অগ্রসর ও ঘণীভূত হয়েছে। ঘূর্ণিঝড়টি আরও ঘণীভূত হয়ে উত্তর-উত্তরপূর্ব দিকে অগ্রসর হয়ে শনিবার সন্ধ্যা নাগাদ ভারতের পশ্চিমবঙ্গ-খুলনা উপকূল (সুন্দরবনের কাছ দিয়ে) অতিক্রম করতে পারে। ঘূর্ণিঝড়টির মূল অংশ খুলনায় আঘাত হানলেও এর প্রভাবে সমুদ্র বন্দরসমূহ, উত্তর বঙ্গোপসাগর ও বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায় ভোর থেকে দমকা বা ঝড়ো হাওয়া বয়ে যাচ্ছে। অতিপ্রবল ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৭৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ১৩০ কিলোমিটার যা দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ১৫০ কিলোমিটার পর্যন্ত বাড়ছে। ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের কাছে সাগর খুবই বিক্ষুব্ধ রয়েছে। এ কারণে সবধরনের মাছধরা নৌকা ও ট্রলারকে নিরাপদ আশ্রয়ে থাকতে বলা হয়েছে।