বুলবুলের আঘাতে আগরদাড়ীতে খোলা আকাশে নিচে রাত কাটাচ্ছে বিধবা মেহেরুন্নেছা!


প্রকাশিত : November 16, 2019 ||

সেলিম হোসেন: ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের আঘাতে ঘরবাড়ি তছনছ হওয়ায় সদর উপজেলার আগরদাড়ী ইউনিয়নে খোলা আকাশে নিচে রাত কাটাচ্ছেন বিধবা মেহেরুন্নেছা। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের আঘাতে আগরদাড়ী ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের বেদেপুতা গ্রামের মৃত আকবর আলির স্ত্রী অসহায় গরীব বিধবা বৃদ্ধা মেহেরুন্নেছার বসত ঘরের চাল ও কাঁচা দেয়াল পড়ে গেছে।

জানা গেছে, বিধবা মেহেরুন্নেছা শুধুমাত্র ঘরটুকু তার সম্বল। এছাড়া তার কোনো জমি নেই। বিধবা মেহেরুন্নেছা এই ঘরে একা বসবাস করেন। বিধবা মেহেরুন্নেছার ২ মেয়ে সন্তান রয়েছে। কিন্তু তার মেয়েরা সবাই শ্বশুর বাড়িতে বসবাস করছেন। মেহেরুন্নেছার কোনো পুত্র সন্তান না থাকায় ও টাকার অভাবে তার পক্ষে ঘর নির্মাণ করা সম্ভব হচ্ছে না। পরের বাড়িতে কাজ করে কোনো রকমে সংসার চলে। এছাড়াও ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের আঘাতে আগরদাড়ী ইউনিয়নের ৯টি ওয়ার্ডে অনেকের কাঁচা ও পাকা ঘরবাড়ির ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। অনেক পরিবার খোলা আকাশে নিচে রাত কাটাচ্ছেন। আগরদাড়ী ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকায় কাঁচা ঘরের দেয়াল ও চাল ভেঙে পড়ে গেছে। পাকা ঘরের ঢেউটিনের চাল পড়ে গেছে। ইউপি চেয়ারম্যান মজনুর রহমান জানান, ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের আঘাতে আগরদাড়ী ইউনিয়নের অনেকের কাঁচা ও পাকা ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এছাড়াও পানিতে তলিয়ে গেছে আমন ধান ও মৎস্য ঘের। ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে শীতকালীন ফসল ও পানের বরজ। তবে ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের আঘাতে মেহেরুন্নেছার মতো আগরদাড়ী ইউনিয়নে অনেকের ঘরবাড়ি ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এদিকে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিরা সরকারি ত্রাণ ও আর্থিক সাহায্য পায়নি বলে জানান। এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলো।