বেনাপোলে ৮০ লাখ টাকার ভারতীয় শাড়ি আটক

পত্রদূত ডেস্ক: বেনাপোলের ছোটআঁচড়া গ্রামে অভিযান চালিয়ে ৮০ লাখ টাকার ভারতীয় শাড়ি, থ্রি-পিস ও থান কাপড় আটক করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) সদস্যরা। শুক্রবার সন্ধ্যায় বিজিবি গোপন সূত্রের মাধ্যমে সংবাদ পেয়ে অভিযান চালিয়ে পরিত্যক্ত অবস্থায় চোরাচালানের মাধ্যমে দেশে আসা অবৈধ এসব পণ্য আটক করে।
যশোর ২৬ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মতিউর রহমান জানান, ভারত থেকে বিপুল পরিমাণ শাড়ি, থ্রি-পিস ও থান কাপড়ের একটি চালান বাংলাদেশের সীমান্ত পার হয়ে ভেতরে ঢুকে যশোরে পাচারের উদ্দেশ্যে বেনাপোল পোর্ট থানার ছোটআঁচড়া গ্রামে মজুদ করা হয়েছিল। পরে বিজিবির সদস্যরা অভিযান চালানোর সময় ওই গ্রামের মন্দিরের পাশে কুদ্দুসের বাড়ি থেকে ১৭ বেল ভারতীয় শাড়ি, থ্রি-পিস ও থান কাপড়ের চালানটি আটক করা হয়। এ সময় ওই বাড়ি কোন লোক ছিল না। এ ব্যাপারে থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে এবং প্রায় ৮০ লাখ টাকা মূল্যের আটক করা এসব কাস্টমস হাউজে জমা দেওয়া হয়েছে বলেও নিশ্চিত করেন তিনি।

মণিরামপুরে বিএনপি ও জামায়াতের দুই নেতা আটক

মণিরামপুর প্রতিনিধি: বিএনপি ও জামায়াতের দুই নেতাকে আটক করেছে পুলিশ। বুধবার ও বৃহস্পতিবার তাদের দুইজনকে আটক করা হয়।
আটককৃতরা বলেন- নেহালপুর ইউনিয়ন বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ও স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান জিএম খলিলুর রহমান (৪৫) এবং ঢাকুরিয়া ইউনিয়নের জামায়াত নেতা ও গোপালপুর বাহিরঘরিয়া আলিম মাদ্রাসার শিক্ষক হাফেজ তবিবুর রহমান (৪৭)।
মণিরামপুর থানার ওসি (তদন্ত) নাসির উদ্দীন হাওলাদার বলেন, ধৃত জামায়াত নেতার বিরুদ্ধে আদালত থেকে জিআর ১০২/১৩, জিআর ১৪৩/১৩, জিআর ১৩০/১৩, জিআর ১৬/১৩, মামলার গ্রেপ্তারী পরোয়ানা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আগমন বার্তার প্রচার মাইক ভাঙচুর করার মামলা নং- ৭৯(১)১৪ রয়েছে।

কেশবপুরের ফেনসিডিলসহ ১ ব্যক্তি আটক

কেশবপুর প্রতিনিধি: গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কেশবপুর থানার এস আই আকরাম হোসেন,এস আই সুব্রত সরকার ও এস আই শাকিল নেশাআশক্তদের মাঝে বিক্রির জন্যে আনা ৫ বোতল ফেনসিডিল সহ ১ ব্যক্তিকে গত ৪ ফেব্রুয়ারি রাত ৮টার দিকে উপজেলা শহরের মাছবাজার সংলগ্ন ক্লে রোড থেকে আটক করেছে।এ ঘটনায় মাদক দ্রব্য আইনে একটি মামলা হয়েছে।যার নং-০১ তাং ০৪-০২-১৪।
আটককারি ব্যক্তি কেশবপুর উপজেলার বড়েঙ্গা গ্রামের মৃত জাফর আলী সরদারের পুত্র আক্তার হোসেন (২৪)।

কেশবপুরে সুপারের অপসারণের দাবিতে মাদ্রসায় তালা

কেশবপুর প্রতিনিধি: কেশবপুর উপজেলার সারুটিয়া বালিকা দাখিল মাদ্রাসার সুপার ও এক শিক্ষিকার অপসারণের দাবিতে মাদ্রাসাটিতে সমাবেশ করে তালা ঝুলিয়ে দিয়েছে ছাত্রী ও অভিভাবকরা।
এলাকাবাসী সূত্রে জানাগেছে, সারুটিয়া বালিকা দাখিল মাদ্রাসার সুপার মাও. আব্দুল হালিমের সাথে একই মাদ্রাসার শিক্ষিকা শাহানাজ পারভীনের অনৈতিক সম্পর্কের অভিযোগ এনে ছাত্রী ও অভিভাবকরা মঙ্গলবার সকালে মাদ্রাসায় বিক্ষোভ সমাবেশ করে তালা ঝুলিয়ে দেয়।
পরে মাদ্রাসা চত্বরে অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, এলাকার ইউপি সদস্য নূরুল ইসলাম, অভিভাবক সফর আলী সরদার, মনিরুজ্জামান, শফিকুল ইসলাম, জাকির হোসেন, সোহরাব শেখ, কামরুল ইসলাম, রুহুল আমিন, অভিভাবিকা হাসিনা বেগম, লাভলী বেগম, রুমিনা আক্তার, আছিয়া খাতুন, মুন্নী আক্তার যুথী, সারমিন সুলতানা জ্যোতি প্রমুখ।
ঐ প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক মনিরুজ্জামান ও শিক্ষিকা সাজেদা খাতুন জানান, সুপার আব্দুল হালিম ও শিক্ষিকা শাহানাজ পারভীনের অনৈতিক সম্পর্কের কারণে মাদ্রাসার পরিবেশ নষ্ট হওয়ায় ছাত্রী-অভিভাবকরা ফুঁসে উঠেছে। এ কারণে অনেক অভিভাবক মেয়েদের অন্য মাদ্রাসায় ভর্তি করেছে।
এদিকে পরিস্থিতি সামাল দিতে প্রতিষ্ঠানের সভাপতি গোলাম কিবরিয়া মনি অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দিলে বিক্ষোভকারীরা আন্দোলন স্থগিত করে।
এ প্রসঙ্গে সুপার আব্দুল হালিম জানান, গ্রামের কিছু ষড়যন্ত্রকারী কুৎসা রটিয়ে অভিভাবকদের উত্তেজিত করেছে।

যশোরে গণতান্ত্রিক ফ্রন্টের মিছিল

জাতীয় গণতান্ত্রিক ফ্রন্ট-এনডিএফ’র ২৬তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে বুধবার সকাল সাড়ে ১১টায় যশোরের পাইপপট্টি মোড় থেকে লাল পতাকা মিছিল বের করে নেতা-কর্মীরা।
মিছিলটি যশোর শহর প্রদক্ষিণ করে পাইপপট্টি মোড়ে গিয়ে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে মিলিত হয়। সেখানে বক্তব্য রাখেন সংগঠনের জেলা সভাপতি আব্দুল হক, সহ-সভাপতি আব্দুর রাজ্জাক মাস্টার ও সাধারণ সম্পাদক হাফিজুর রহমান প্রমুখ। প্রেস বিজ্ঞপ্তি

মনিরামপুরে ফেন্সি ভাবি আটক

মণিরামপুর (যশোর) প্রতিনিধি: মণিরামপুর উপজেলার দূর্গাপুর জামাই পাড়ার মাদক ব্যবসায়ী নুরজাহান (৩৮) ওরফে ফেন্সি ভাবীকে ১৭ বোতল ফেনসিডিলসহ যশোর মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা আটক করেছে। সোমবার দুপুর সাড়ে ৩টার দিকে তাকে আটক করা হয়। নুরজাহান দূর্গাপুর গ্রামের মৃত রফিকুল ইসলাম বুদোর স্ত্রী।
মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের সদস্যরা জানান, নুরজাহান বেগম দীর্ঘদিন ধরে মাদক ব্যবসা করে আসছেন। তাকে হাতে নাতে ধরার জন্য চেষ্টা করা হচ্ছিল।
এ ব্যাপারে এসআই নিরঞ্জন শিকদার বাদী হয়ে থানায় একটি মামলা করেছেন। যার মামলা নং- ০৩(০২)১৪।

কেশবপুরে ডাকাত সন্দেহে দুই জুয়াড়ি আটক

কেশবপুর প্রতিনিধি: কেশবপুরের সন্ন্যাসগাছা গ্রামের ভাঙ্গাপোল এলাকা থেকে সোমবার বিকেলে ডাকাত সন্দেহে দুই জুয়াড়িকে আটক করেছে পুলিশ। আটককৃতরা হলো সন্ন্যাসগাছা গ্রামের কওসার গোলদারের ছেলে সামাদ গোলদার (৪০) ও একই গ্রামের সিদ্দিক সরদারের ছেলে সাত্তার সরদার (৩০)।
কেশবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল জলিল সাংবাদিকদের জানান, আটককৃতরা পেশাদার জুয়াড়ি ও বিভিন্ন অপরাধের সাথে জড়িত। গত ২৮জানুয়ারি মঙ্গলবার রাতে সন্ন্যাসগাছা গ্রামের সূবর্ণ বণিক পাড়ায় জুয়েলার্স ব্যবসায়ীর বাড়িতে ডাকাতির ঘটনায় জড়িত থাকার সন্দেহে তাদেরকে আটক করা হয়েছে।

মণিরামপুরে শিক্ষার্থীকে নির্যাতনের দৃশ্য মোবাইলে ধারণ করায় দুইজনের নামে মামলা

মণিরামপুর প্রতিনিধি: মণিরামপুরের নেহালপুরের এক শিক্ষার্থীকে নির্যাতনের দৃশ্য মোবাইল ফোনে ভিডিও করে প্রচারের অভিযোগে দুইজনের নামে মামলা হয়েছে।
জানা যায়, ২০১৩ সালের ১০ ফেব্র“য়ারি দুপুর ৩টায় নেহালপুর কলেজিয়েট স্কুলের শিক্ষার্থী আবু বক্কার সিদ্দীক (২০) তার ঘনিষ্ট বান্ধবীর সঙ্গে অসামাজিক কর্মে লিপ্ত হয়। এদৃশ্য সে তার বন্ধু প্রভাংকর মোবাইল ফোনে ভিডিও করে। পরবর্তীতে ওই ভিডিও ব্লুটুথের মাধ্যমে বিভিন্ন মোবাইলে আবু বক্কর ও তার বন্ধু প্রভাংকর ছড়িয়ে দেয়। প্রায় ৯ মাস পর গত ১৬ নভেম্বর বিষয়টি জানাজানি হয়। এ বিষয়ে ২০ নভেম্বর ক্ষতিগ্রস্তরা স্থানীয় চেয়ারম্যান নজমুস সাহাদাতের কাছে অভিযোগ করেন। পরবর্তীতে ক্ষতিগ্রস্তরা আদালতের আশ্রয় নেন।
আদালতের নির্দেশে মণিরামপুর থানায় গত ১ ফেব্র“য়ারি অভিযোগটি মামলা হিসেবে রেকর্ড হয়। যার মামলা নং- ০২(০২)১৪।
মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এস আই হাবিব জানান, বাদী কর্তৃক আদালতে দাখিলকৃত পর্ণো ভিডিওটির সিডি পরীক্ষা নিরীক্ষা করার জন্য সিআইডিতে প্রেরণ করা হচ্ছে। আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

মণিরামপুরে গণধর্ষণের ঘটনায় আটক ৩, দু’টি মোবাইল উদ্ধার

মণিরামপুর প্রতিনিধি: মণিরামপুরে মা ও মেয়েকে গণধর্ষণ এবং ডাকাতির ঘটনায় পুলিশ ৩ ব্যক্তিকে আটক করেছে। আটককৃতদের মধ্যে একজন ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে।
জানা যায়, উপজেলার রাজগঞ্জ বাজারের নিকট মনোহরপুর গ্রামের একটি বাড়িতে ৮ ডিসেম্বর রাতে মা ও মেয়েকে গণধর্ষণ করে ডাকাতি সংঘটিত হয়। ১০/১২ জন মুখোশধারী সশস্ত্র সন্ত্রাসী এই ঘটনা ঘটায়। এ ব্যাপারে বাড়ির গৃহকর্তা বাদী হয়ে মণিরামপুর থানায় দু’টি মামলা করেন। যার মামলা নং -১৩(১২)১৩ ধারা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ আইনের ৯(৩) ও মামলা নং-১৪(১২)১৩ ধারা ৩৯৫,৩৯৭ দন্ডবিধি।
সূত্র মতে, উভয় মামলায় এজাহার নামীয় আসামি না থাকায় এবং শুধুমাত্র ১০/১২ জন অজ্ঞাত আসামি হওয়ায় মামলাটির রহস্য উদঘাটনে পুলিশকে বেশ বেগ পেতে হয়েছে। অবশেষে ওসি (তদন্ত) নাসির উদ্দিন হাওলাদার গোপন অনুসন্ধানের মাধ্যমে ঘটনার সংগে সরাসরি জড়িত ৩ জনকে আটক করে তাদের কাছ থেকে মা ও মেয়ের ব্যবহৃত ডাকাতি হওয়া দু’টি মোবাইল উদ্ধার করতে সক্ষম হয়েছেন ।
আটককৃতরা হলো যশোর কোতয়ালী থানার কৃষ্ণবাটি গ্রামের আব্দুর রহিমের ছেলে শরিফুল (২৫), বিরামপুর গ্রামের খোরশেদ আলমের ছেলে আব্দুস সালাম বিষু (২২) ও মণিরামপুর থানার পাড়দিয়া গ্রামের আব্দুস সাত্তারের ছেলে আকবর (৩০)। শনিবার রাতে পুলিশ তাদের আটক করলে তারা মা ও মেয়েকে ধর্ষণসহ ডাকাতি করার কথা স্বীকার করে।
পুলিশকে তারা জানায়, যশোর ও সাতক্ষীরা জেলার বিভিন্ন্ এলাকার পেশাদার ১২ জন ডাকাত এই ঘটনায় অংশগ্রহণ করে। ৭ ডিসেম্বর রাতে তারা সকলে পাড়দিয়া গ্রামের ডাকাত আকবরের বাড়িতে একত্রিত হয়। সেখানে রাতের খাবার খেয়ে তারা মনোহরপুর গ্রামের ওই বাড়িতে ডাকাতি করতে যায়। এ সময় বাড়িতে চাহিদা মত সোনাদানা ও টাকা পয়সা না পাওয়ায় তারা ক্ষিপ্ত হয়ে মা ও মেয়েকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে ।
এ ব্যাপারে ওসি (তদন্ত) জানান, ধৃতদের সকলে ঘটনার সংগে জড়িত থাকার তথ্য দিয়েছে। এদের মধ্যে আব্দুস সালাম বিষু রোববার বিকালে চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়ে ঘটনার সঙ্গে জড়িত অন্যদের পরিচয় ও অপকর্মের কথা প্রকাশ করেছে।

কেশবপুরে এক সপ্তাহে ১৩ বাড়িতে চুরি

কেশবপুর ব্যুরো: কেশবপুর উপজেলার সাতবাড়ীয়া গ্রামের ঘোষপাড়ায় চুরি আতংক বিরাজ করছে। গত এক সপ্তাহে ১৩ বাড়ি থেকে ৫ লাখ টাকার মালামাল চুরি হয়েছে।
স্থানীয় সূত্রে জানাগেছে, গত সপ্তাহে সাতবাড়ীয়া গ্রামের ঘোষ পাড়ার মিন্টু ঘোষের বাড়ি থেকে দেড় ভরি স্বর্ণালংকার, নগদ ১০ হাজার টাকা, ২টি বাই সাইকেল ও ৪ টি মোবাইল সেট, প্রশান্ত ঘোষের বাড়ি থেকে ১ টি টিভি, নগদ টাকা, থালাবাটি ও মূল্যবান কাপড়, দূলাল ঘোষের বাড়ি থেকে ১ মন ঘী ও হাড়ি-পাতিল, তুষার ঘোষের বাড়ি থেকে ১টি টিভি, সিডিসেট ও স্বর্ণালংকার, মাস্টার বিকার্ন ঘোষের বাড়ি থেকে মন্দিরের পূজার সরজ্ঞাম, অশিত ঘোষের বাড়ি থেকে স্বর্ণালংকার ও নগদ টাকা, পরিতোষ ঘোষ ও গৌরঙ্গ ঘোষের বাড়ি থেকে ২ টি মোটর ও সরকারী ডিপ টিউবয়েলের ১টি মোটর, আনন্দ ঘোষের বাড়ি থেকে ১টি অগভীর নলকূপ, অশিত ঘোষের বাড়ি থেকে ২ মণ ঘি ও হাড়িপাতিল এবং রাজকুমার ঘোষের বাড়ি থেকে নগদ টাকা ও হাড়িপাতিল চুরি হয়ে যায়। নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয়রা জানান, ঘোষপাড়ার ২ ব্যক্তি চুরি যাওয়া মোটর ফেরত দিতে পরিতোষ ও অশোক ঘোষের নিকট ৫ হাজার টাকা করে দাবি করে। স্থানীয় ইউপি সদস্য মোহাম্মদ আলী জানান, হঠাৎ করে এলাকায় চুরির মাত্রা বেড়ে গেছে। গত ১ সপ্তাহে ঘোষ পাড়া থেকে প্রায় ৫ লাখ টাকার মালামাল চুরি হয়ে যায়। চুরি ঠেকাতে এলাকায় পাহারার ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

কেশবপুরে হত্যা মামলার বাদীকে হুমকি

কেশবপুর ব্যুরো: কেশবপুর উপজেলার মেধাবী ছাত্র মারুফ হত্যা মামলার আসামিরা জামিনে মুক্তি পেয়ে বাদীকে হত্যার হুমকি দিচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
প্রাপ্ত অভিযোগে জানা গেছে, গত ১১ ডিসেম্বর উপজেলার কেসমত সানতলা গ্রামের জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষ সিদ্দিকুর রহমান গাজীর ছেলে ভবদাহ ডিগ্রী কলেজের মেধাবী ছাত্র বোরহান উদ্দীন ওরফে মারুফ হোসেনকে ক্রিকেট খেলার ব্যাট দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করে। এ ঘটনায় নিহতের চাচা রজব আলী গাজী বাদী হয়ে ৭ জনকে আসামি করে কেশবপুর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। যার নং ০৩/২৪৩, তারিখ ১২/১২/২০১৩। মামলার আসামিরা দীর্ঘদিন পলাতক থাকার পর হাইকোর্ট থেকে নি¤œ আদালতে হাজির হওয়ার শর্তে গত ২৭ জানুয়ারি হতে ১৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত অর্ন্তবর্তীকালীন জামিন গ্রহণ করে। জামিন পেয়ে বাড়ি ফিরে বাদীপক্ষকে বিভিন্ন প্রকার ভয়ভীতি ও হুমকি প্রদান করছে আসামিরা। স্থানীয় ইউপি সদস্য আলমগীর সিদ্দিক, স্থানীয় রেজাউল করিম, সেলিম আক্তার রাজু জানান, আসামিরা মামলার পর থেকে মোবাইলের মাধ্যমে বাদীদের বিভিন্ন প্রকার হুমকি প্রদান করে আসছে। এছাড়াও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই নাসির উদ্দীন আসামিদের পক্ষ থেকে অর্থনৈতিক সুবিধা নিয়ে বাদীকে বিভিন্ন প্রকার ভয়ভীতি ও মামলার হুমকি দিচ্ছে বলে জানান তারা।

কেশবপুরে আ.লীগের মতবিনিময়

কেশবপুর ব্যুরো: কেশবপুরে আওয়ামী লীগের মতবিনিময় সভায় দলীয় সমর্থন চাইলেন আসন্ন উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা কাজী রফিকুল ইসলাম। রোববার দুপুরে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এসএম রুহুল আমিনের সভাপতিত্বে দলীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখেন সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি তপন কুমার ঘোষ মন্টু, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মাষ্টার আব্দুস সামাদ, জি এম এরশাদ, মশিয়ার দফাদার, মুনসুর আলী, শাহাদাৎ হোসেন, স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক পৌর কাউন্সিলর বিপুল সিদ্দিক, ডা. অরুণ দে, আনিসুর রহমান, কবির হোসেন, গোলাম কিবরিয়া মনি, জি.এম.হোসেন, মাসুদুজ্জামান মাসুদ, এস.এম. হাবিবুর রহামান হাবিব, স্বপন মুখার্জী, স্বপন মন্ডল, শিবপদ কুন্ডু, কাজী মুক্তো, প্রভাষক শেখ কাজল, ইউপি সদস্য গৌতম রায়, কার্তিক সাহা, যুবলীগের কাজী মুজাহীদুল ইসলাম পান্না, শহিদুজ্জামান শহিদ, শাহরিয়ার রায়হান সান্টু, এস এম বাবর, ছাত্রলীগের কাজী মানিক প্রমুখ।

রাবিতে আন্দোলনরতদের উপর হামলার ঘটনায় যশোর জাতীয় ছাত্রদলের নিন্দা

বর্ধিত বেতন-ফি প্রত্যাহার ও বাণিজ্যভিত্তিক সান্ধ্যকালীন কোর্স বাতিলের দাবিতে গড়ে উঠা রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র আন্দোলনে ছাত্রলীগের হামলা ও পুলিশের গুলিতে অর্ধশতাধিক ছাত্রছাত্রী আহত হওয়ার ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে অবিলম্বে ছাত্রছাত্রীদের ন্যায্য দাবি মেনে নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন জাতীয় ছাত্রদল যশোর জেলা কমিটির আহ্বায়ক মান্নান কবির ও যুগ্ম-আহ্বায়ক বিশ্বজিৎ বিশ্বাস। বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ হামলার সাথে জড়িতদের গ্রেপ্তার পূর্বক দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন। প্রেস বিজ্ঞপ্তি

গৌরীঘোনায় আইনশৃঙ্খলা বিষয়ক মতবিনিময়

কেশবপুর প্রতিনিধি: গত শনিবার সন্ধ্যায় কেশবপুরের গৌরীঘোনা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ’র কার্যালয়ে আইনশৃঙ্খলা বিষয়ক এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।
গৌরীঘোনা ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও আ.লীগ নেতা এসএম সিদ্দিকুর রহমানের সভাপতিত্বে ও উপজেলা যুবলীগ নেতা সোহেল রানার পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুল জলিল। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন ইউনিয়ন আ.লীগের সভাপতি ডা. অরুণ কুমার দে। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন এসআই আকরাম হোসেন, সাংবাদিক গৌতম চট্টোপাধ্যায়, এএসআই তাপস কুমার রায়, ইউপি সদস্য সরদার আব্দুর রশিদ, সোলাইমান ফকির প্রমুখ। সভা শেষে থানার অফিসার ইনচার্জ গত মঙ্গলবার সন্ন্যাসগাছা সূবর্ণ বনিক পাড়ায় জুয়েলার্স ব্যবসায়ীর বাড়িতে ডাকাতি হওয়ার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

মণিরামপুরে ভোট কেন্দ্রে নাশকতার অভিযোগে ১১ জন আটক

মণিরামপুর প্রতিনিধি: যশোর-৫ আসনের বিভিন্ন ভোট কেন্দ্রে নাশকতা সৃষ্টির অভিযোগে মণিরামপুর থানা পুলিশ বিএনপি ও জামায়াত-শিবিরের ১১ কর্মীকে আটক করেছে। শুক্রবার রাতে মণিরামপুর উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়।
আটককৃতরা হলেন- বাটবিলা গ্রামের আসাদুজ্জামান ওরফে বোমা খোকন, উত্তর লাউড়ি গ্রামের ইয়াসিন সরদারের পুত্র ইসমাইল (৩৫), আমিনপুর গ্রামের মমতাজ উদ্দীনের পুত্র রেজওয়ান (২৩), মুজগুন্নী গ্রামের আব্দুল হামিদের পুত্র শামছুর (৫০), চালকিডাঙ্গা গ্রামের গোলাম কাদেরের পুত্র জালাল উদ্দীন (৫৫), ভরতপুর গ্রামের কাশেম গাজীর পুত্র হামিদ (৫৫), আব্দুল জলিলের পুত্র শহিদুল (২৮), পীর বক্স সরদারের ৩ পুত্র ইউনূচ (৪৫), হানিফ (৩০), আয়ুব (৪৫) ও রফিকুল ইসলামের পুত্র বোরহান (২০)।