শ্যামনগরে ঔষধি গাছের প্রদর্শনী

সুন্দরবনাঞ্চল (শ্যামনগর) প্রতিনিধি: বুধবার শ্যামনগর উপজেলার ঈশ্বরীপুর ইউনিয়নের শ্রীফলকাটি গ্রামের কওমী মাদ্রাসা প্রাঙ্গণে শ্রীফলকাটি সমাজ কল্যাণ বহুমুখী সমবায় সমিতি ও বারসিক বুড়িগোয়ালীনি রিসোর্স সেন্টারের আয়োজনে এক কবিরাজ কর্মশালা এবং ঔষধি গাছের প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়।

কর্মশালা উদ্বোধন করেন সমিতির সভাপতি আবুল কাশেম। কর্মশালা উপলক্ষ্যে দিনব্যাপী বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা প্রদান করেন হায়বাতপুর গ্রামের কবিরাজ জাহাঙ্গীর কবির, কবিরাজ ফরিদা পারভীন ও শ্রীফলকাটি গ্রামের কবিরাজ রহিমা বেগম, আব্দুল মজিদ মোল্লা ও মোহাম্মদ মোল্লা। অনুষ্ঠানে কবিরাজবৃন্দ সম্মিলিত উদ্যোগে প্রায় অর্ধশতাধিক ঔষধী উদ্ভিদের প্রদর্শনী করেন।

এ সময়  শ্রীফলকাটি ও ধুমঘাট গ্রামের অর্ধ শতাধিক দুস্থ নারী ও পুরুষকে বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হয়।

সুন্দরবনাঞ্চল (শ্যামনগর) প্রতিনিধি: বুধবার শ্যামনগর উপজেলার ঈশ্বরীপুর ইউনিয়নের শ্রীফলকাটি গ্রামের কওমী মাদ্রাসা প্রাঙ্গণে শ্রীফলকাটি সমাজ কল্যাণ বহুমুখী সমবায় সমিতি ও বারসিক বুড়িগোয়ালীনি রিসোর্স সেন্টারের আয়োজনে এক কবিরাজ কর্মশালা এবং ঔষধি গাছের প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়।

কর্মশালা উদ্বোধন করেন সমিতির সভাপতি আবুল কাশেম। কর্মশালা উপলক্ষ্যে দিনব্যাপী বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা প্রদান করেন হায়বাতপুর গ্রামের কবিরাজ জাহাঙ্গীর কবির, কবিরাজ ফরিদা পারভীন ও শ্রীফলকাটি গ্রামের কবিরাজ রহিমা বেগম, আব্দুল মজিদ মোল্লা ও মোহাম্মদ মোল্লা। অনুষ্ঠানে কবিরাজবৃন্দ সম্মিলিত উদ্যোগে প্রায় অর্ধশতাধিক ঔষধী উদ্ভিদের প্রদর্শনী করেন।

এ সময়  শ্রীফলকাটি ও ধুমঘাট গ্রামের অর্ধ শতাধিক দুস্থ নারী ও পুরুষকে বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হয়।

খাবার খাওয়ার আবদার পূরণ হলো না শিশু বাঁধনের

শ্যামনগর প্রতিনিধি: দুপুরের পর থেকে খাবারের জন্য কাঁদছিল বাঁধন। বাধ্য হয়ে দিনমজুর পিতা সামছুর রহমান পকেট থেকে দুই টাকার একটি নোট বের করে তুলে দেয় তার হাতে। ঐ টাকাই শেষ পর্যন্ত কাল হয়ে দাড়াল বাঁধনের জন্য। খাবার কিনতে দোকানে যাওয়ার জন্য রাস্তা পারাপারের সময় দ্রুতগামী মাইক্রোবাস এসে বাঁধনের খাবার কিনে খাওয়ার ইচ্ছাকে পিষে দেয়। মঙ্গলবার বিকাল সাড়ে চারটার দিকে শ্যামনগর উপজেলা সদরের উত্তর বাদঘাটা মসজিদের সামনের রাস্তায় এ ঘটনা ঘটে। তাৎক্ষণিক  স্থানীয়রা শ্যামনগর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়ার পর চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। শিশু বাঁধনের হৃদয় বিদারক এ মৃত্যুর ঘটনায় গোটা এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

বাঁধনের পরিবার জানায়, বাদঘাটা গ্রামের সামছুর রহমান মাত্র ২/৩ মাস বয়সে বাঁধনকে দত্তক নেয়। কোন পুত্র সন্তান না থাকায় পিতামাতা তাকে পরম ¯েœহে লালন পালন করছিল। শিশু বাঁধন স্থানীয় ৬০নং শিশু শিক্ষা নিকেতন রেজি. প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রথম শ্রেণিতে পড়ালেখা করতো।দুর্ঘটনার খবর পেয়ে নিহত শিশুর বাড়ি যেয়ে দেখা যায় তার মা পুত্র শোকে বার বার মুর্ছা যাচ্ছে, আর বিলাপ করে বলছে খাবার কিনতে যেয়েও খাবার খেতে পারলো না আমার বাঁধন। পরিবারের সদস্যরা আরও জানান, বাঁধন গতকাল বিদ্যালয় থেকে বাড়ি ফিরে দুপুরের খাবার খায়। খাবার খেয়ে কিছুক্ষণ বিশ্রাম নেয়ার পর থেকে বাঁধন খাবার খাওয়ার আবদার করে কান্না শুরু করে। এক পর্যায়ে পিতা সামছুর রহমান তার হাতে দুই টাকার একটি নোট উঠিয়ে দেয়। টাকা পেয়ে বাঁধন দৌড়ে বাড়ি থেকে বের হয়ে যায়। একপর্যায়ে রাস্তা অতিক্রমের সময় শ্যামনগর থেকে কালিগঞ্জ অভিমুখে রওনা হওয়া একটি মাইক্রোবাস তাকে চাপা দিয়ে দ্রুত চলে যায়। বাঁধনের মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে গোটা গ্রামের শত শত মানুষ তাদের বাড়িতে জড়ো হয়। জানা গেছে, ঘাতক মাইক্রোবাসটিকে নিহত শিশুর পরিবারের সদস্যরা সনাক্ত করেছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত উভয় পক্ষের মধ্যে সমঝোতার চেষ্টা চলছিল।

শ্যামনগরে অজ্ঞাত মহিলার লাশ উদ্ধার

সামিউল মনির, শ্যামনগর: শ্যামনগর উপজেলার মুন্সিগঞ্জ ইউনিয়নের কুলতলি এলাকায় ধানের ক্ষেত থেকে পুলিশ অজ্ঞাত এক মহিলার লাশ উদ্ধার করেছে। স্থানীয় গ্রামবাসীর মাধ্যমে খবর পেয়ে পুলিশ মঙ্গলবার সকাল দশটার দিকে ঐ মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করে। এ ঘটনায় শ্যামনগর থানায় ইউডি মামলা হয়েছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সকালে পথচারীরা জেলেখালী-মুন্সিগঞ্জ সড়ক দিয়ে যাতায়াতের সময় রাস্তার পাশের ধান ক্ষেতের মধ্যে এক মহিলার মৃত দেহ দেখতে পায়। খবরটি দ্রুত সর্বত্র ছড়িয়ে পড়লে মৃতদেহ দেখতে শত শত মানুষ সেখানে ভিড় করে। এক পর্যায়ে সকাল দশটার দিকে উপ-পরিদর্শক সফিক আহমেদের নেতৃত্বে পুলিশ সদস্যরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে মৃতদেহ উদ্ধার করে। ফর্সা রংয়ের অধিকারী ঐ মহিলার পরণে লাল শাড়ি এবং বোরকা এবং হাতে মেহেদীর আলপনা আঁকা ছিল।মৃতদেহের অনতিদূরে নিহতের ব্যবহৃত চামড়ার স্যান্ডেল এবং আরও কিছু দূরে দুটি নুতন শাড়ি পড়ে ছিল বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়। সরেজমিনে যেয়ে দেখা যায়, ৩৫/৩৬ বছর বয়সী সুঠাম স্বাস্থ্যের অধিকারী ঐ মহিলার মৃতদেহ ধান ক্ষেতের মধ্যে উপুড় হয়ে পড়ে আছে। তার মুখ-মন্ডল কর্দমক্ত মাটির মধ্যে ঠাসা এবং নাক দিয়ে বেরিয়ে আসা রক্ত জমাট বেঁধে রয়েছে। কুলতলি গ্রামের রেবেকা আক্তার, মোখছেুুর রহমানসহ স্থানীয়রা জানান, তাদের ধারণা ঘাতকরা ঐ মহিলাকে মটর সাইকেলযোগে বাইরে থেকে এনে ধানক্ষেতের পানির মধ্যে চুবিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে পালিয়ে গেছে। তারা আরও জানান, সকালে পথচারীরা ধান ক্ষেতে মৃতদেহ দেখতে পেয়ে হাক-ডাক শুরু করলে ক্রমেই সেখানে গ্রামবাসী জড়ো হয়।

শ্যামনগর থানার উপ-পরিদর্শক সফিক আহমদ জানান, মৃতদেহের সুরতহাল দেখে মনে হয়েছে গভীর রাতে তাকে ঘটনাস্থলে এনে শ্বাসরোধ করে হত্যার পর লাশ ধান ক্ষেতে ফেলে ঘাতকরা পালিয়ে যায়।

শ্যামনগর থানার অফিসার ইনচার্জ আমীর তৈমুর ইলি জানিয়েছে, দুপুর পর্যন্ত মধ্য বয়সী ঐ মহিলার লাশের নাম ঠিকানা পাওয়া যায় নি। ঘটনাস্থলে উক্ত মহিলার জুতা ছাড়াও পুরুষ মানুষের ব্যবহৃত এক জোড়া জুতা উদ্ধার করা হয়েছে। পুলিশ বাদী হয়ে একটি মামলা করছে। তিনি আরও জানান, নির্জন জায়গা বুঝে উক্ত স্থানে নিয়ে মহিলাকে শ্বাসরোধ করে হত্যার পর ঘাতকরা লাশ ধান ক্ষেতে ফেলে পালিয়ে যায় বলে প্রাথমিকভাবে মনে করা হচ্ছে।

 

কাশিমাড়ীতে লবণ পানি উত্তোলন করায় ফসলহানির আশংকা

শ্যামনগর অফিস: শ্যামনগরের কাশিমাড়ীতে অবৈধভাবে খোলপেটুয়া নদী থেকে লোনা পানি তুলে ফসলী জমি ও পুকুরে ঢুকানোর অভিযোগ উঠেছে।

এলাকাবাসী ও স্থানীয় ইউপি সদস্য জামিরুল আলম বাবলু ও ইউপির প্যানেল চেয়ারম্যান কোরবান আলী জানান, কাশিমাড়ী গ্রামের ছইলদ্দীন তরফদারের ছেলে জালাল ২০০০ টাকার বিনিময়ে একই গ্রামের আবুল কাঁসেম, হাঁসেম, মাসুম ও বাচ্চু’র নেতৃত্বে পাউবো’র ৫নং পোল্ডার এর আওতাধীন কাশিমাড়ীর স্লুইচ গেট দিয়ে গত শনিবার গভীর রাতে এলাকায় লোনা পানি ঢোকায়। একই প্রক্রিয়ায় দক্ষিণ কাশিমাড়ীর ২টি সরকারি রাস্তা কেটে অবাধে এলাকার ধানের জমি ও সাদা মাছের ঘেরে লোনা পানি তোলা হয়। এতে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় দক্ষিণ কাশিমাড়ীর সকল যোগাযোগ। এদিকে এই লোনা পানি ঢুকানোর ফলে কাশিমাড়ীর ৮নং ওয়ার্ডে কমপক্ষে ১৫০/২০০ লোকের ২০০০ বিঘা জমির ধান, ৫০/১০০ বিঘা জমির পুকুর ও সাদা মাছের ঘেরের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। পরবর্তীতে এই লোনা পানি মুশির খাল হয়ে বকমারা খালে এবং বকমারা থেকে বাঁলিখাল হয়ে পুরো এলাকায় বিস্তার লাভ করে। কিছু অসাধু ঘের মালিক নিজেদের ঘের করার স্বার্থে টাকার বিনিময়ে এই ঘটনা ঘটিয়েছে বলে একাধিক সূত্রে জানা যায়।

এ ব্যাপারে কাশিমাড়ী গ্রামের ছইলদ্দীন তরফদারের ছেলে জালাল বলেন, শ্যামনগর উপজেলার এসও’র সাথে পরামর্শ ক্রমে পানি উঠানো হয়েছে। তবে এসও’র সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তার মুঠোফোন বন্ধ পাওয়া যায়। ক্ষতিগ্রস্ত এলাকাবাসী এ ব্যাপারে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

চুনা নদীতে ঐতিহ্যবাহী নৌকা বাইচ

 

আব্দুল হালিম, নীলডুমুর (শ্যামনগর): গত সোমবার বুড়িগোয়ালীনির চুনা নদীতে ঐতিহ্যবাহী নৌকা বাইচ অনুষ্ঠিত হয়েছে। পাঁচটি নৌকা এ প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়। মুন্সিগঞ্জের মেজর আলাউদ্দীন মার্কেট থেকে শুরু হয়ে বুড়িগোয়ালীনি ফরেস্ট স্টেশন ঘাট পর্যন্ত নৌকা বাইচ অনুষ্ঠিত হয়।প্রতিযোগিতায় আবাদচন্ডীপুরের নুর হোসেনের দল প্রথম গাবুরা’র তালেব মালির দল দ্বিতীয় এবং বুড়িগোয়ালীনির নুর ইসলামের দল তৃতীয় স্থান অধিকার করে। নৌকা বাইচ শেষে স্থানীয় চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম ও স্থানীয় ইউপি সদস্য শহিদুল ইসলাম পুরস্কার বিতরণ করেন।

 

চুনা নদীতে নব্বই বস্তা চালভর্তি ট্রলার ডুবি

নীলডুমুর (শ্যামনগর) প্রতিনিধি: মঙ্গলবার বিকালে নব্বই বস্তা চাল নিয়ে একটি ট্রলার চুনা নদীতে ডুবে গেছে। রাত ন’টা পর্যন্ত ব্যাপক খোঁজাখুজি করেও ট্রলারটির কোন সন্ধান মেলেনি। ট্রলার মালিক উপজেলার গাবুরা ইউনিয়নের ৯নং সোরা গ্রামের আলমগীর হোসেন জানান, মুন্সিগঞ্জ বাজারের ব্যবসায়ী নজরুল ইসলামের চাল নিয়ে তিনি মুন্সিগঞ্জ নৌ-ঘাট থেকে দুপুরের দিকে ট্রলারটি ছেড়ে আসেন। এক পর্যায়ে বিকাল তিনটার দিকে ট্রলারটি নীলডুমুর ঘাটে পৌঁছে আকস্মিকভাবে ডুবে যায়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, ট্রলারটিতে অতিরিক্ত চাল বহন করা হচ্ছিল। যে কারণে নীলডুমুর ঘাটে এসে ঢেউয়ের সময় ট্রলারে পানি উঠে সেটি পানিতে নিমজ্জিত হয়। ব্যবসায়ী নজরুল ইসলাম জানান, তার মুন্সিগঞ্জ বাজারের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে চাল নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল গাবুরার চকবারা এলাকার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে। উক্ত চালের আনুমানিক মূল্য এক লাখ টাকা। এদিকে দরিদ্র ট্রলার মালিক আলমগীর জানান, তিনি সম্মত না হওয়া সত্ত্বেও নজরুল ইসলাম তাকে অতিরিক্ত চাল বহনে বাধ্য করে। কিন্তু ট্রলারটি নিমজ্জিত হওয়ার পর এখন তার কোন হদিস না মেলায় রুটিরুজি হারানোর শংকায় পড়েছেন তিনি।

এবার মনিরা বেগমকেও শাসানো হলো

 

শ্যামনগর প্রতিনিধি: স্ত্রীকে বেধড়ক মারপিটের ঘটনা নিয়ে সংবাদ প্রকাশের পর স্বামী সোবহান মোল্যার সাগরেদ আমিনুল এবার মনিরা বেগমকে শাসিয়েছে। তার ওস্তাদের বিরুদ্ধে নারী নির্যাতনের মামলা করা হলে কিংবা ওস্তাদের অপকীর্তি নিয়ে সংবাদ মাধ্যমকে আর কোন তথ্য সরবরাহ করা হলে তাকে দুনিয়া থেকে সরিয়ে দেওয়ার হুমকি দিয়েছে সে। সোবহানের হাতে প্রহৃত তার স্ত্রী মনিরা বেগম মঙ্গলবার এসব কথা জানান।

সোমবার দৈনিক পত্রদূতে মটর সাইকেল চোর সোবহান ম্যেল্যা বেপরোয়া, চুরিতে বাঁধা দেয়ায় স্ত্রী’র উপর মধ্যযুগীয় নির্যাতন শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশ হয়। সংবাদ প্রকাশের বিষয়টি সোবহান মোল্যা এবং তার লোকজন জানতে পারার পরপরই টেংরাখালী গ্রামের তোরাব সরদারের ছেলে আমিনুল সরদার তার সাঙ্গপাঙ্গদের নিয়ে এসে মুনিরা বেগমকে শাসিয়ে যায় বলে তিনি অভিযোগ করেন। মুনিরা বেগম আরও বলেন, আমিনুল তাকে হুমকি দিয়েছে সোবহানের বিরুদ্ধে আর কোন কথা বলা হলে তাকে নিখোঁজ করে ফেলা হবে।

উল্লেখ্য, উপজেলার যতীন্দ্রনগর গ্রামের মোহাম্মদ মোল্যার ছেলে সোবহান মোল্যা গত মঙ্গলবার নিজ স্ত্রীর উপর ব্যাপক শারীরিক নির্যাতন চালায়। এক পর্যায়ে বালিশ চাপা দিয়ে তাকে মেরে ফেলার চেষ্টা করা হলে মুনিরা বেগম কৌশলে বাড়ি থেকে বের হয়ে যেয়ে জীবন রক্ষা করে। মুনিরা বেগম জানান, পরর্তীতে নিজ পুত্রকে বাড়ি থেকে আনতে যেয়ে আবারও নির্যাতনের আশংকায় তিনি পুলিশ নিয়ে গেলেও পুলিশের সামনে সোবহান এবং তার পিতা মাতা তাকে অশ্রাব্য ভাষায় গালিগালাজ করে। মুনিরা বেগম অভিযোগ করে বলেন, তার স্বামী মটর সাইকেল চোর সিন্ডিকেট’র হোতা। তার এসব অপকর্ম নিয়ে কথা বলায় এবং বাড়িতে বাইরের মেয়ে লোক এনে রাতের পর রাত অবস্থান করানোর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করায় তার উপর ঐ নির্যাতন করা হয়। এর আগেও একবার শ্বশুর শ্বাশুড়িসহ সোবহান তাকে ঘরের মধ্যে হাত-পা বেঁধে কেরোসিন দিয়ে শরীরে আগুন লাগিয়ে হত্যার চেষ্টা চালায়। সেই দগদগে ক্ষত নিয়ে এখন পর্যন্ত ঘুরেফিরে বেড়াচ্ছে দাবি করে মুনিরা বেগম জানান, সোবহান মটর সাইকেল চুরির পর উপর মহলের আশ্রয়ে প্রশ্রয়ে থাকে। আর গত এক মাসে কমপক্ষে সোবহান আরও ছয়টি মটর সাইকেল চুরি করে বাড়িতে এনে রাখে এবং তার নিজস্ব লোকজন দিয়ে নুতন ডাইস লাগিয়ে ভিন্ন ইঞ্জিন ও চেসিস নং যুক্ত করে বাইরের খরিদ্দারদের নিকট বিক্রি করে। এসব বিষয়ে কথা বলায় সর্বশেষ তার উপর অত্যাচার করা হয় বলে মুনিরা বেগম জানান।

বিশ্বস্ত একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে, সোবহান তার গডফাদারদের একটি করে মটর সাইকেল ব্যবহারের জন্য দিয়েছে, জাল কাগজপত্র তৈরী করে। এমন নানান তথ্য  সে জানে বিধায়, সোবহান এখন তাকে দুনিয়া থেকে সরিয়ে দেয়ার ফন্দি আটছে বলে সে আশংকা করছে। আর নিজের হাতিয়ার হিসেবে সোবহান তার মটর সাইকেল চুরি কাজের সহযোগী আমিনুলসহ অন্যদের ব্যবহার করছে।

শ্যামনগরে সিক্স-এ সাইড ক্রিকেট টুর্ণামেন্ট

শ্যামনগর অফিস: মঙ্গলবার শ্যামনগর মহসীন কলেজ মাঠে হার্ডি বয়েজ ক্লাবের ব্যবস্থাপনায় আট দলীয় হাবীব এন্টারপ্রাইজ সিক্স-এ সাইড ক্রিকেট টুর্ণামেন্ট অনুষ্ঠিত হয়। একদিনের এই নকআউট টুর্ণামেন্টে চিংড়ীখালী শতদল ক্লাব চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করেছে।

প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ফাইনালে তারা গোমানতলী ক্রিকেট ক্লাবকে পরাজিত করে। বিজয়ী দলের মুকুল ম্যান অফ দি ম্যাচ এবং সাইফুল ম্যান অফ দি সিরিজ মনোনীত হন। শ্যামনগর মহসীন কলেজ মার্কেটস্থ মেসার্স হাবীব এন্টারপ্রাইজ এর সৌজন্যে অনুষ্ঠিত এ খেলা শেষে বিজয়ী দলের হাতে পুরস্কার তুলে দেন আনোয়ার সাহাদাৎ মিলন। এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন প্রভাষক সোহাগ, ছাত্রলীগ নেতা শারাফাত হোসেন, আব্দুল্লাহ আল মামুন, রায়হান সিদ্দিকী, রসিসহ হার্ডি বয়েজ’র কর্মকর্তারা।

 

শ্যামনগরে কোজাগরী লক্ষ্মী পূজা অনুষ্ঠিত

সুন্দরবনাঞ্চল (শ্যামনগর) প্রতিনিধি: শ্যামনগর উপজেলার সর্বত্র সাড়ম্বরে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের কোজাগরী লক্ষ্মী পূজা অনুষ্ঠিত হয়েছে। প্রতিষ্ঠান এবং পারিবারিক পর্যায়ে এ পূজা অনুষ্ঠিত হয়। পূজা উপলক্ষ্যে বিভিন্ন স্থানে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানেরও  আয়োজন করা হয়।

সূত্র জানায়, উপজেলার মুন্সিগঞ্জ জেলেখালী, ধানখালী, ধূমঘাট, শীলতলা, নকিপুর, নূরনগর, হরিনগর, আড়পাঙ্গাশিয়া ও অন্যান্য স্থানে ধন সম্পদের দেবী লক্ষ্মীর পূজা সাড়ম্বরে অনুষ্ঠিত হয়েছে। পূজা উপলক্ষ্যে হিন্দু ধর্মালবম্বীদের বাড়িতে আলপনা অঙ্কন, ধর্মীয় পুস্তক পাঠ ও অন্যান্য কর্মসূচি পালিত হয়।

মুন্সিগঞ্জ জেলেখালী ভাই ভাই সংঘের আয়োজনে কোজাগরী লক্ষ্মী পূজা উপলক্ষ্যে ‘অঞ্জলি’ কাব্যগ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন করেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শিল্পী রানী মৃধা। ধূমঘাট শীলতলা নামক স্থানে এলাকাবাসীর আয়োজনে ধর্মীয় যাত্রা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শ্যামনগরে চুরিতে বাঁধা দেয়ায় স্ত্রী’র উপর মধ্যযুগীয় নির্যাতন

শ্যামনগর প্রতিনিধি: দীর্ঘদিন ধরে স্বামী দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে মটর সাইকেল চুরি করে এনে বাড়িতে রাখে সোবহান মোল্যা। আর ঐ ঘটনার প্রতিবাদ করতে যেয়ে পাষন্ড স্বামীর নির্মম নির্যাতনের শিকার হয়েছে মুনিরা বেগম(৩০)। এঘটনায় অভিযুক্ত সোবহানের বিরুদ্ধে শ্যামনগর থানায় নির্যাতিতা মহিলা লিখিত অভিযোগ দিয়েছে বলে তিনি জানান। এদিকে স্বামীর বিরুদ্ধে মুখ খুললে মুনিরা বগেমসহ তার মেয়েকে দুনিয়া থেকে সরিয়ে দেয়ার হুমকি দিয়েছে সোবহান। হাসপাতালে টানা ৪/৫ দিন চিকিৎসা শেষে গতকাল সকালে তিনি এসব অভিযোগ করেন। আলোচিত এই ঘটনাটি ঘটেছে শ্যামনগর উপজেলার জেলার যতীন্দ্রনগর গ্রামে।

নির্যাতনের শিকার মুনিরা বেগম অভিযোগ করে জানান, প্রায় ছয় বছর পুর্বে টেংরাখালী গ্রামের মোহাম্মদ মোল্যার পুত্র সোবহান মোল্যার সাথে তার বিয়ে হয়। এসময় তিনি স্বামী পরিত্যক্তা মুনিরা বেগমকে তার পুর্বের  ঘরের একমাত্র মেয়েসহ সোবহান তাকে বাড়িতে নিয়ে আসে।

এক পর্যায়ে তার স্বামী আন্তঃ বিভাগীয় মটর সাইকেল চোর এবং ছিনতাই জড়িয়ে যায় উল্লেখ করে মুনিরা বেগম জানান, তিনি বিয়ের পর থেকে বিষয়টি আঁচ করতে পেরে ওই পথ থেকে ফিরে আসার জন্য অনুরোধ করন। কিন্তু তার কথায় কর্নপাথ না করে বরং টেংরাখালী গ্রামের ছাকাত মোল্যার ছেলে আব্দুল্লাহ ওরফে ক্যামবেল, ধোনাকেনা গাজীর ছেলে ছাদেক বাচ্চুসহ আরও পাঁচ/ছয় জনকে নিয়ে পৃথক একটি বাহিনী গড়ে তোলে। এসব নিয়ে আপত্তি করলে মুনিরা বেগমকে প্রায় মারদর করতো সোবহান। তিনি আরও অভিযোগ করে জানান, সোবহান মোল্যা ও তার বাবা-মা গত ২ বছর আগে তাকে ঘরের মধ্যে আটকে রেখে শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুনে পুড়িয়ে মারার চেষ্টা করে।

অভিযোগ উঠেছে সম্প্রতি সোবহান মোল্যা তার গ্যাংয়ের মাধ্যমে দুটি মটর সাইকেল চুরি করে এনে বাড়িতে রাখে। এছাড়া একই সময় বাইরে থেকে যোৗনকর্মী নিয়ে এসে ঘরে থাকার সুযোগ করে দেয়। বিষয়টি নিয়ে আপত্তি করলে বাদানুবাদের এক পর্যায়ে সোবহান মোল্যা মুনিরা বেগমকে হাত-পা েেবঁধে গরানের লাঠি দিয়ে বেধড়ক মারধর করে। গত মঙ্গলবার মুনিরা বেগমের উপর পৈশাচিক ঐ নির্যাতনের পর স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে শ্যামনগর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

মুনিরা বেগম জানান বিভিন্ন সময় ব্যবসা এবেং গাড়ী ক্রয়ের অজুহাতে দুই লাখ বিশ হাজার টাকার বেশী নগদ অর্থ হাতিয়ে নেয় সোবহান মোল্যা। এছাড়া মারধরের পর এখন তাকে করে বাড়ি ফিরতে দিচ্ছে না সোববহান।

মুনিরা বেগম জানান, তাকে মারপিটের ঘটনায় শ্যামনগর থানায় তিনি লিখিত অভিযোগ দিয়েছে। গতকাল স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে “রিলিজ” নিয়ে এলাকায় ফিরলেও মুনিরাকে সোবহান বাড়িতে প্রবেশ করতে দিচ্ছে না। তিনি অভিযোগ করে বলেন, তার পুর্রে সংসারের একমাত্র মেয়ে শ্রাবনীকে টেংরাখালী গ্রামে বিয়ে দেয়ার সুযোগে সোবহান মোল্যা মুনিরা বেগমের মেয়ের স্বামী আতাউরের উপর প্রচন্ড চাপ সৃষ্টি করছে তার মেয়েকে স্বামীগৃহ থেকে তাড়িয়ে দিতে।

নাম প্রকাশ না করে মুনিরা বেগম বলেন থানায় এজাহার দেয়ার পর নিম্মপদস্থ এক পুলিশ কর্তকর্তা সোবহানের হাতে-পায়ে পড়ে বিষয়টি মিটিয়ে নিতে পরার্মশ দিয়েছে। তবে গত চার/পাঁচ দিনে মামলাটি রেকর্ড হয়নি বলে তিনি অভিযোগ করেন।

মুনিরা বেগম অভিযোগ করে জানান, সোবহান এখন তার বাহিনী লেলিয়ে দিয়েছে তাকে ধরে নিয়ে যেতে। যে কারনে তিনি পলায়নপর জীবন যাপন করছে দাবি করে বলেন, সোবহান বা তার গুন্ডা বাহিনী একবার তাকে আটক করতে পারলে নিশ্চিত মেরে ফেলবে। কারন তিনি সোবহারে মটর সাইকেল চুরির অনেক ঘটনা জানেন বল দাবি কেেরন।

কথা বলতে যেয়ে ক্রন্দনরত মুনিরা বেগম জানান, তার শিশু পুত্র এবং মেয়েসহ নিজের জীবন নিেেয় তিনি ভিশন চিন্তিত। সমগ্র শরীরে ব্যাপক নির্যাতনের চিহ্ন দেখিয়ে মুনিরা বেগম বলেন, সোবহান দাবি করেছে পুলিশ তার বিরুদ্ধে মামলা রেকর্ড করবে না এবং তার কেউ কিছু করতে পারবে না বলে দম্ভোক্তি করে বেড়াচ্ছে।  তিনি জেলা পুলিশ সুপারসহ সংশ্লিষ্টদের কাছে দাবি করেছে ঘটনার সত্যতা মিললে মামলাটি রেকর্ডের এবং  সোবহানের হাত থেকে দু’সন্তানসহ নিজের জীবন রক্ষার।

 

 

 

 

 

শ্যামনগরে কেন্দ্রীয় ঈদগাহে সর্ববৃহৎ ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত

শ্যামনগর প্রতিনিধি: শ্যামনগরের কেন্দ্রীয় ঈদগাহে উপজেলার সর্ববৃহৎ ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়। সকাল সাড়ে আটটায় অনুষ্ঠিত জামাতে ইমামতি করেন উপজেলা পরিষদ মসজিদের ইমাম মুফতি আলহাজ্ব আব্দুল খালেক।

চার সহস্রাধিক মুসল্লীর পাশাপাশি কেন্দ্রীয় ঈদগাহ’র জামাতে ইউএনও দৌলতুজ্জামান খান, অফিসার ইনচার্জ আমীর তৈমুর ইলি, উপজেলা বিএনপি সভাপতি মাষ্টার আব্দুল ওয়াহেদ, উপজেলা আঃলীগের সহ-সভাপতি আলহাজ্ব খাজা নাজিমউদ্দীন, সদর চেয়ারম্যান ও বিএনপি নেতা শেখ লিয়াকত আলী বাবু, জাতীয় পার্টির সাধারন সম্পাদক হাফেজ আঃ রশিদসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ও পেশাজীবি সংগঠনের নেতৃবৃন্দ অংশ নেন। নামায  শেষে দেশ ও জাতিসহ মুসলিম উম্মাহ’র মঙ্গল কামনায় দোয়া কামনা করা হয়।

 

নওয়াবেঁকীতে ৮ দলীয় সিক্স- এ সাইড ক্রিকেট টুর্নামেন্ট

 

শ্যামনগর অফিস: শ্যামনগর উপজেলার নওয়াবেঁকীতে ৮ দলীয় সিক্স-এ সাইড ক্রিকেট টুর্নামেন্ট সম্পন্ন হয়েছে। প্রতি বছরের ন্যায় ঈদ পুনর্মলন উপলক্ষে স্থানীয় টাইর্গাস ক্লাব উক্ত টুর্নামেন্টের ব্যবস্থাপনা ও আয়োজনের দায়িত্ব পালন করে। টানা ১৪ বছরের ধারাাহিকতা রক্ষা করে এবোরও ঈদের পরদিন গত রবিবার উক্ত টুর্নামেন্টের আয়োজন করা হয়। টুর্নামেন্টের চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করে টাইগার্স ক্রিকেট ক্লাব। সমাপনি অনুষ্ঠানে আয়োজক টাইগার্স ক্লাবের সভাপতি জামাত সানা, সম্পাদক মোশরফ হোসেন ইউনিয়ন যুবলীগের আহবায়ক জাকির হোসেন, যুবলীগ নেতা মারুফ বিল্লাহ, আসলাম হোসেন, মোস্তফা জামান খোকন, শাহাজান কবির, জালাল হোসেনসহ  স্থানীয় বিশিষ্টজনেরা উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া মইনুল ইসলাম ও মোস্তফাসহ খেলা পরিচালনা করেন আল মামুন নাইম, মিন্টু, হেলাল, নাইস, নাদিম ও মনি। টুর্নামেন্টে টাইগিার্স ক্লাবের আবির হোসন সিরিজি মনোনীত হয়।

 

 

 

সুন্দরবন কলেজ ছাত্রলীগ নেতা বিপ্রজিৎ সাহার ঠাকুর মাতার পরলোক গমন

সুন্দরবন কলেজ ছাত্রলীগ নেতা বিপ্রজিৎ সাহার ঠাকুর মা মলিনা বালা সাহা (৯০) সোমবার দিবাগত রাত ১২টা ৪০ মিনিটে পরলোক গমন করেছেন। তিনি ৩ ছেলে ও ১ মেয়েসহ অসংখ্য আত্মীয়-স্বজন ও গুনগ্রাহী রেখে গেছেন। মলিনা বালা সাহা’র মৃত্যুতে গভীর শোক ও সমবেদনা জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন খুলনা মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি দেব দুলাল বাড়ৈই বাপ্পি, কেন্দ্রীয় ছাত্রনেতা ও খুলনা মহানগর ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক শেখ শাহজালাল হোসেন সুজন, দপ্তর সম্পাদক অভিজিৎ পাল, উপ-দপ্তর সম্পাদক মনিরুল ইসলাম, সাঈদুজ্জামানসহ খুলনা মহানগর ছাত্রলীগের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ। প্রেস বিজ্ঞপ্তি

শ্যামনগরের কৈখালীতে ঈদ পূণ:মিলনী

কৈখালী (শ্যামনগর) প্রতিনিধি: শ্যামনগর কৈখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জি,এম রেজাউল করিম দীর্ঘদিন অসুস্থ থাকায় ঢাকায় চিকিৎসা শেষে নিজ এলাকায় আসার পর দলীয় নেতা কর্মী ও বিভিন্ন শ্রেণীর মানুষের সাথে মত বিনিময় এবং ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। ২৯ অক্টোবর ২০১২ বেলা-১১টায় চেয়ারম্যান রেজাউল করিমের কৈখালীর ৩নং ওয়ার্ডের মধ্যে অবস্থিত সাহেবখালী গ্রামের বাড়ীতে ঈদ পূর্ন মিলন  ও সুস্থাতার জন্য দোয়া অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন। উক্ত অনুষ্ঠানে সকল ইউ,পি সদস্য, প্রক্তন সদস্যবৃন্দ, পরিষদের সচীব, গ্রাম পুলিশ, এনজিও প্রতিনিধিসহ শতাধীক সচেতন ও গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিতিতে এই মিলন মেলা অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন আলহাজ্ব আলী মোড়ল। প্রধান অতিথি ছিলেন জি,এম রেজাউল করিম চেয়ারম্যান কৈখালী, বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন ১,২,৩,৮,৯, নং ওয়ার্ডের মেম্বর সহ যথাক্রমে ডাঃ আঃ রশিদ মোড়ল , নুরুল ইসলাম, আমিনুর রহমান, আজিজুল ইসলাম, আজগার আলী। এলাকাবাসীর পক্ষে বক্তব্য রাখেন, বিশিষ্ট সমাজ সেবক শিল্পপতি মোঃ আঃ রহিম ভুলু, এনজিও প্রত্যাশার পরিচালক মাহবুব আজাদ (খোকন), মৎস্য ব্যবসায়ী ও সংবাদিক আজিজুর রহমান গাজী, বিশিষ্ট সমাজ সেবক ভূমিহীন নেতা ফজলুল হক মোল্লা, প্রাক্তন মহিলা সদস্যা খায়রুন নেছা, সমাজ সেবক মাওলানা নুরুল ইসলাম। অনুষ্ঠানের শেষে চেয়ারম্যান এর রোগ মুক্তির জন্য দোয়া করা হয়। দোয়া ও মোনাজাত পরিচালনা করেন জয়াখালী ফেরীঘাট এতিম খানা সুপার মাওলানা হাফেজ শহিদুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে সর্ব শেষে গরিব, অসহায়দের জন্য চেয়াম্যান এর ব্যক্তিগত তহবিল থেকে শাড়ি, লুঙ্গি ও নগদ অর্থ প্রদান করা হয়।

 

ঈদের ছুটিতে শ্যামনগরে সড়ক দূর্ঘটনায় ১ জন নিহত

সুন্দরবনাঞ্চল (শ্যামনগর) প্রতিনিধি: শ্যামনগর উপজেলায় ঈদুল আযহার ছুটিতে সড়ক দূর্ঘটনায় ১ জন মহিলা নিহত হয়েছে। শ্যামনগর হাসপাতাল সূত্রে প্রকাশ ঈদের দিন বিকালে উপজেলার শ্রীফলকাটি গ্রামের হানিফ শেখের স্ত্রী ফজিলা বেগম(৪৫) ইঞ্জিন ভ্যানে নিজ পুত্রের বাড়ী থেকে ফেরার পথে বংশীপুর-মুন্সিগঞ্জ রোডে কামাল মাষ্টার মোড়ে ভ্যানের চালক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশে গাছের সাথে জোরে ধাক্কা খায়। এরপর ফজিলা বেগমের বাম পায়ের হাটুর নিচ থেকে কেটে পড়ে যায়। এ অবস্থায় শ্যামনগর হাসপাতালে ভর্তি করা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক জানান, অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ জনিত কারণে তার মৃত্যু হয়েছে বলে জানান। অপরদিকে ঈদের ছুটিতে মোটর সাইকেল, ইঞ্জিন ভ্যান ও অন্যান্য যানবাহনে চলাচল করতে যেয়ে আহত হয়ে শ্যামনগর হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ১ জন শিশু, ১ জন মহিলা ও ১১ জন পুরুষ। জানা যায় গত ২৬ অক্টোবর থেকে ২৮ অক্টোবর পর্যন্ত  উক্ত ব্যক্তিবর্গ সড়ক দূঘর্টনায় আহত হয়।